তৃতীয় স্বামীর কাছ বিশ্বস্ত থাকতে মেয়েকে পুড়িয়ে মারল মা!

Home দেশের মাটি তৃতীয় স্বামীর কাছ বিশ্বস্ত থাকতে মেয়েকে পুড়িয়ে মারল মা!
তৃতীয় স্বামীর কাছ বিশ্বস্ত থাকতে মেয়েকে পুড়িয়ে মারল মা!

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: তৃতীয় বার বিয়ে। আর তৃতীয় স্বামীর প্রতি বিশ্বস্ত থাকতেই নিজের ছোট্ট মেয়েকে আগুনে পুড়িয়ে মারল মা। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে তামিলনাড়ুর চেন্নাইয়ের থিরুভোত্তুয়রের। পুলিস সূত্রে খবর, নিজের ১০ বছরেরে মেয়ের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেন ৩৮ বছরের মহিলা। ঘটনার পর অভিযুক্ত মহিলা জয়লক্ষ্মী এবং তার তৃতীয় স্বামী পদ্মনাভকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিস।

জানা গিয়েছে, জয়লক্ষ্মীর মেয়েকে প্রায় ৭৫ শতাংশ অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে চিকিৎসকদের বহু চেষ্টার পরও মেয়েটিকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। মৃতা কিশোরী ক্লাস ফাইভের ছাত্রী ছিল। কিন্তু এই বয়সেই কেন তার জীবনে এই নির্মম পরিণতি নেমে এল?

পুলিস সূত্রের খবর, সে ছিল তার মা জয়লক্ষ্মীর দ্বিতীয় স্বামীর সন্তান। জয়লক্ষ্মীর বয়স যখন ১৯ তখন তার প্রথম বিয়ে হয় পাল্লাভানের সঙ্গে। এরপর তাঁকে ছেড়ে নিজের দেওর দুরাইরাজকে বিয়ে করে জয়লক্ষ্মী। তাকেও পরে ছেড়ে দিয়ে তৃতীয় স্বামী পদ্মনাভকে বিয়ে করে জয়লক্ষ্মী। জয়লক্ষ্মীর দুটি মেয়ে। দুই মেয়ের মধ্যে বড়জন এখন নার্সিং পড়ছে। আর ছোট মেয়ে অর্থাৎ এই মৃতা বালিকাটি মা এবং সৎ বাবার সঙ্গেই থাকত। আর ছোট মেয়েটিকে রাখা নিয়েই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে অশান্তি লেগেই থাকত। পদ্মনাভ জয়লক্ষ্মীর মেয়েকে সহ্য করতে পারত না। সেদিনও দুজনের মধ্যে সেই একই কারণে অশান্তি হয়। জয়লক্ষ্মীকে অবিশ্বাস করতে পদ্মনাভ।

ঘটনার বিবরণ দিতে গিয়ে পুলিস জানায়, ঘটনার দিন রাতে পদ্মনাভ জয়লক্ষ্মীর কাছে আনুগত্যের প্রমাণ চায়। আচমকাই সৎ মেয়েকে কাছে টেনে নিয়ে স্ত্রীকে বলে, সে যদি স্বামীর প্রতি সৎ হয়, তাহলে আগুন তাঁর মেয়ের কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। আর জয়লক্ষীও স্বামীর প্রতি বিশ্বস্ত থাকতে তার ফাঁদে পা দিয়ে ফেলে মেয়ের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। মেয়ের মৃত্যুর পর অবশ্য এই অনুতপ্ত মা নিজের সব দোষ স্বীকার করেছে বলে পুলিসের দাবি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.