উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) চলাকালীনই রাজ্যে উপনির্বাচন, সঙ্কটে পরীক্ষার্থীরা

উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) চলাকালীনই রাজ্যে উপনির্বাচন, সঙ্কটে পরীক্ষার্থীরা

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: সামনেই উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা (HS Exam)। এদিকে সেই পরীক্ষার মাঝেই আসানসোল লোকসভা কেন্দ্র ও বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনের ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। পরীক্ষার মাঝে নির্বাচন পড়ে যাওয়ায় সঙ্কটে পরীক্ষার্থীরা। কীভাবে সূচি অনুযায়ী উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়া যাবে, তা নিয়ে চিন্তায় পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদও।

নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে, আগামী ১২ এপ্রিল আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রে ও বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন (by election) অনুষ্ঠিত হবে। ১৬ এপ্রিল নির্বাচনের ফলপ্রকাশ হবে। ১৭ মার্চ কমিশন ভোটের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৮ মার্চ। একইদিনে ছত্তিশগঢ়, বিহার, মহারাষ্ট্রের ৩টি বিধানসভা কেন্দ্রেও উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

২০১৯ সালে আসানসোল লোকসভা কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মুনমুন সেনকে হারিয়ে জয়ী হয়েছিলেন বিজেপি নেতা বাবুল সুপ্রিয়। পরপর দু’বার কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রীও হয়েছিলেন তিনি। পরবর্তীকালে তিনি যোগ দেন তৃণমূল কংগ্রেসে (tmc)। সাংসদ পদ থেকেও ইস্তফা দেন তিনি। ফলে আসানসোল লোকসভা সাংসদ শূন্য হয়ে পড়ে। অন্যদিকে ২০২১ সালের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে বালিগঞ্জ কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন বর্ষীয়ান তৃণমূল নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়। কিন্তু গত বছর কালীপুজোর রাতে মৃত্যু হয় রাজ্যের প্রাক্তন পঞ্চায়েতমন্ত্রীর। তাই আগামী ১২ এপ্রিল একইসঙ্গে আসানসোল লোকসভায় ও বালিগঞ্জ বিধানসভায় উপনির্বাচনের ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (Election Commission)।

কিন্তু এর ফলে সমস্যায় পড়েছে পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। তাদের পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী আগামী ১ এপ্রিল প্রথম ভাষার পরীক্ষা হওয়ার কথা। ৪ এপ্রিল দ্বিতীয় ভাষার, ৬ এপ্রিল হেলথ, আইটি ও আইটিএস সংক্রান্ত বিষয়ের, ৮ এপ্রিল জীববিজ্ঞান, বিজনেস স্টাডি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ের, ১১ এপ্রিল গণিত, মনোবিজ্ঞান, নৃবিজ্ঞান, কৃষিবিদ্যা ও ইতিহাস বিষয়ের, ১২ এপ্রিল কম্পিউটার সায়েন্স, কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন, পরিবেশবিদ্যা, শারীরশিক্ষা, সঙ্গীত ও ভিজ্যুয়াল আর্টস বিষয়ের, ১৪ এপ্রিল বাণিজ্যিক আইন, দর্শন ও সমাজবিজ্ঞান বিষয়ের, ১৬ এপ্রিল পদার্থবিদ্যা, পুষ্টিবিজ্ঞান, শিক্ষাবিজ্ঞান ও হিসাববিদ্যা বিষয়ের, ১৮ এপ্রিল রসায়নবিদ্যা, অর্থনীতি, সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ, সংস্কৃত, আরবি, ফারসি বিষয়ের এবং ২০ এপ্রিল স্ট্যাটিটিক্স, ভূগোল, হোম সায়েন্স ইত্যাদি বিষয়ে পরীক্ষা হওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তে এবার সমস্যায় সংসদ কর্তারা।

পরীক্ষার মাঝে উপনির্বাচন পড়ে যাওয়ায় সঙ্কটে পড়েছে উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) পরীক্ষার্থীরাও। এভাবে বারবার পরীক্ষার সূচি বদল হলে তাঁদের পরীক্ষার প্রস্তুতি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, এমনটাই বক্তব্য তাঁদের। এতদিন পূর্ববর্তী পরীক্ষার সূচি অনুযায়ীই প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তাঁরা। একদিকে করোনাকালীন পরিস্থিতি ও লকডাউনের ফলে দীর্ঘদিন স্কুলে না যেতে পারা, অন্যদিকে ব্যবহারিক বিষয়গুলি দীর্ঘদিন হাতেকলমে না শিখতে পারায় উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের প্রস্তুতিতে ও কলেজে ভর্তি হওয়ার আগে নির্দিষ্ট বিষয় সম্পর্কে জানাবোঝার ক্ষেত্রে সমস্যা সৃষ্টি করছিল বলে মত দিয়েছিলেন শিক্ষাবিদেরা। এবার পরীক্ষার মাঝে উপনির্বাচন পড়ে যাওয়ায় উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার প্রস্তুতি ও মানসিক স্থিতাবস্থা একইসঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হবে, বলছেন অনেকে।

এর আগে জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষার জন্য উচ্চমাধ্যমিকের (HS Exam) কয়েকটি পরীক্ষার দিন বদল হয়েছিলো। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়, ১৬ এপ্রিলের বদলে কয়েকটি পরীক্ষা ১৩ এপ্রিল নেওয়া হবে। ১৮ এপ্রিল একাধিক পরীক্ষার দিন বদলে ২৫ এপ্রিল পরীক্ষা। ২০ এপ্রিল অর্থনীতির পরীক্ষা হবে ২৬ এপ্রিল। ১৩ এপ্রিলের পরীক্ষা পিছিয়ে নেওয়া হবে ১৮ এপ্রিল। ২০ এপ্রিলের বদলে ২৬ এপ্রিল শেষ হবে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। ২ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। শেষ হবে ২৬ এপ্রিল।

উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) পরীক্ষার্থীদের বড় অংশ সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় বসে। সেই কারণে পরীক্ষার সূচি বদল করতে হয়েছে বলে জানান পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি চিরঞ্জীব ভট্টাচার্য্য। তিনি বলেন-‘ ২ এপ্রিল উচ্চমাধ্যমিক শুরু হওয়ার কথা। পরীক্ষা সূচির সামান্য পরিবর্তন হতে পারে। আগামী সপ্তাহে নতুন সূচি ঘোষণা হতে পারে। এপ্রিল মাসের ২ থেকে ২০ তারিখ পর্যন্ত রাজ্যে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল।’ এরপর সংসদ সভাপতি জানান ২ এপ্রিল থেকে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হলেও ২০ এপ্রিলের পরিবর্তে ২৬ এপ্রিল পরীক্ষা শেষ হবে।

উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের তরফ থেকে জানানো হয়েছে , আগামী ২৩ এপ্রিল রাজ্যের জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তার পূর্বেই হবে সর্বভারতীয় জয়েন্ট এন্ট্রান্স (JEE) পরীক্ষা। এই পরীক্ষার আয়োজন করে ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি (এনটিএ)। পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ সূত্রে খবর, চলতি বছর প্রায় ৮ লক্ষ পরীক্ষার্থী উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা দিতে চলেছেন। কিন্তু দেখা যায়, সর্বভারতীয় সংস্থা ন্যাশনাল টেস্টিং এজেন্সি জয়েন্ট এন্ট্রান্স মেন পরীক্ষার যে সূচি ঘোষণা করেছে, তার সঙ্গে একইদিনে উচ্চমাধ্যমিকের (HS Exam) একটি পরীক্ষা পড়ে যাচ্ছে। যাঁরা পদার্থবিদ্যা, গণিত এবং রসায়ন নিয়ে পড়েন, তাঁদের একটা বড় অংশ এই পরীক্ষায় বসেন। ফলে একইদিনে পরীক্ষা হলে অত্যন্ত সমস্যার মধ্যে পড়বেন তাঁরা। তাই উচ্চমাধ্যমিক (HS Exam) পরীক্ষার সূচি বদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.