দেবভূমিতেও (Uttarakhand Assembly Election 2022)গেরুয়া ধ্বজা! উত্তরাখণ্ডে ফের বিজেপির আধিপত্য, শূন্য হাতে সোনিয়া

Home দেশের মাটি দেবভূমিতেও (Uttarakhand Assembly Election 2022)গেরুয়া ধ্বজা! উত্তরাখণ্ডে ফের বিজেপির আধিপত্য, শূন্য হাতে সোনিয়া
দেবভূমিতেও (Uttarakhand Assembly Election 2022)গেরুয়া ধ্বজা! উত্তরাখণ্ডে ফের বিজেপির আধিপত্য, শূন্য হাতে সোনিয়া

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: উত্তরাখণ্ডেও (Uttarakhand Assembly Election 2022) ফেল করল কংগ্রেস। দেবভূমিতে সরকার গঠনের পথে বিজেপি । বুথ ফেরত সমীক্ষাকে অনেকটাই সত্যি প্রমাণ করে, ১৭০টি বিধানসভা কেন্দ্রে ফলাফলের ট্রেন্ড অনুযায়ী আবারও উত্তরাখণ্ডে সরকার গড়তে চলেছে বিজেপি(BJP) ৷ উত্তরাখণ্ডে ৭০ আসনের বিধানসভায় একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ৩৬। প্রাথমিকভাবে আসন কমার আভাস থাকলেও সরকার গড়ার সম্ভাবনা বিজেপিরই ছিল। তবে এবার ঘাড়ের কাছে নিঃশ্বাস ফেলছিল প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস(Congress)। কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে ছবিটাও পাল্টাতে থাকে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বিজেপি ৪৭, কংগ্রেস ১৮, বিএসপি ২, আপ(AAP) ০ এবং অন্যান্যরা ৩ আসনে এগিয়ে। আরও দুটি আসনের(Uttarakhand Assembly Election 2022) ফল ঘোষণা এখনও বাকি। ফলে স্পষ্ট দেবভূমিতে আবারও উড়তে চলেছে গেরুয়া (BJP) ধ্বজা। ক্ষমতাসীন বিজেপি এবার টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসতে চলেছে উত্তরাখণ্ডে, যা রাজ্যের ২১ বছরের ইতিহাসে কখনও ঘটেনি।

২০২৪ লোকসভা ভোটের আগে এই হাই ভোল্টেজ নির্বাচন (Uttarakhand Assembly Election 2022) কার্যত সমস্ত রাজনৈতিক দলের কাছেই ছিল অ্যাসিড টেস্ট। এছাড়াও একাধিক রাজ্যে নিজেদের জমি শক্ত রাখতে ২০২২ বিধানসভা ভোট বহু রাজনৈতিক শিবিরের কাছেই কার্যত পাখির। ফলে বাকি চার রাজ্যের সঙ্গে দেবভূমি উত্তরাখণ্ডের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফলের দিকে নজর ছিল।  

 2017 সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির 57টি আসন পেয়েছিল ৷ 11টি আসন পেয়েছিল কংগ্রেস ৷ বুথ ফেরত সমীক্ষায় উত্তরাখণ্ডে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের ইঙ্গিত দিলেও কংগ্রেস আশা করেছিল, এই রাজ্যে শেষ হাসি হাসবে তারাই ৷ কিন্তু এদিন ইভিএম খোলার পর প্রথম দিকে সমানে সমানে লড়াই চললেও বেলা যত গড়াতে থাকে, ততই স্পষ্ট হতে থাকে উত্তরাখণ্ডে কংগ্রেসের আশায় জল ঢেলে ফের ক্ষমতায় আসতে চলেছে বিজেপিই ৷ উত্তরপ্রদেশের পর উত্তরাখণ্ড। এই দুই রাজ্যেই নিজেদের ধ্বজা উড়িয়ে লোকসভা ভোটের আগে স্বভাবতই উজ্জীবিত গেরুয়া শিবির ৷ অন্যদিকে উত্তরপ্রদেশে ভরাডুবির পর উত্তরাখণ্ডও কংগ্রেসের সব আশায় জল ঢালল। ৭ মার্চ শেষ হয় ৫ রাজ্যের বিধানসভা ভোটপর্ব (Uttarakhand Assembly Election 2022)। যা শুরু হয়েছিল ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে। করোনার ওমিক্রন আতঙ্কের মধ্যে চলছে এই ভোটের প্রচার পর্ব। করোনা পরিস্থিতির জেরে একাধিক বিধি আরোপ করেছিল কমিশন। ৭ মার্চ ভোট পর্ব শেষ হতেই প্রকাশ্যে এসেছে বুথ ফেরত সমীক্ষা। সেখানে দেখা গিয়েছে, উত্তরাখণ্ডে বিজেপি(Bharatiya Janata Party)-কংগ্রেস(Congress) হাড্ডাহাড্ডি লড়াইতে নামতে পারে।

উত্তরাখণ্ডে মোট বিধানসভা(Assembly) আসন ৭০টি। সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে প্রয়োজন ৩৬টি আসন। উত্তরাখণ্ডে ২০১৭ সালে বিজেপি(BJP) ৫৭টি আসন পেয়ে সরকার গড়েছিল। তবে এবার উত্তরাখণ্ডে অবশ্য বিজেপির সরকার গড়ারই ইঙ্গিত দিচ্ছে এক্সিট পোল। ৭০ আসনের মধ্যে বিজেপির দখলে যেতে পারে ৩৬ থেকে ৪৬টি। ২০ থেকে ৩০টি আসন পেতে পারে কংগ্রেস। বিএসপি পেতে পারে ২ থেকে ৪টি আসন এবং ২ থেকে ৫টি আসন পেতে পারে অন্যান্যরা। 

তবে বুথ ফেরৎ সমীক্ষায় এও স্পষ্ট করা হয়েছে যে উত্তরাখণ্ডে (Uttarakhand Assembly Election 2022)বিজেপির ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলছে কংগ্রেস৷ এবং জয়ের সম্ভাবনা থেকে একদমই সরিয়ে দেওয়া যাচ্ছে না কংগ্রেসকে৷ আর এ বিষয়টিই নতুন করে কংগ্রেসকে আশার আলো দেখিয়েছে৷ স্বাভাবিকভাবেই উত্তরাখণ্ডে ক্ষমতায় আসতে মরিয়া কংগ্রেস রাজ্যটির দায়িত্ব সঁপে দেয় ছত্তিসগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেলকে৷ এমনকি কোনও রকম ঘোড়া কেনাবেচা এড়াতে এবং কংগ্রেসের যে সব প্রার্থীরা জিতবেন তাদের সুরক্ষার জন্য হেলিকপ্টার ও চাটার্ড ফ্লাইটও তৈরি রেখেছে কংগ্রেস৷ যদিও বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী পুষ্কর সিং ধামি বলেছেন যে বিজেপির প্রকৃত আসন সংখ্যা এক্সিট পোলে যা অনুমান করা হয়েছে তার চেয়ে বেশি হবে এবং দল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়েই ক্ষমতায় ফিরে আসবে।

কংগ্রেস সূত্রের খবর ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেলকেই উত্তরাখণ্ডে সরকার গড়ার ব্যাপারে প্রধান দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং তাঁকে নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে যে উত্তরাখণ্ড নির্বাচনের((Uttarakhand Assembly Election 2022) ফলাফল ঘোষণার পর কোনো বিজয়ী প্রার্থী যেন বিজেপির শিবিরে না ভিড়ে যায়। তাদের সকল জয়ী প্রার্থীকে নিজের নির্বাচনী এলাকা থেকে দেহরাদুনে আসার নির্দেশ দিয়ে রেখেছে কংগ্রেস। বিজয়ী প্রার্থীদের অক্ষত রাখার জন্য, উত্তরাখণ্ড নির্বাচনের ফলাফলের পরই দেরাদুনে পৌঁছানোর জন্য হেলিকপ্টার পরিষেবারও আশ্বাস দিয়েছে কংগ্রেস। দলের পক্ষ থেকে স্ট্যান্ড বাই একটি চার্টার্ড ফ্লাইটও রাখা হয়েছে বলে খবর। কংগ্রেস যদি উত্তরাখণ্ডে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় তাহলে ভূপেশ বাঘেল যেন জয়ী বিধায়কদের সঙ্গে নিয়ে রায়পুরে উড়ে যান, সে রকমই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যদি উত্তরাখণ্ডে কোনও দলই সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পায় তাহলে বিধানসভায় সরকার গঠনের জন্য নির্দল ও স্থানীয় ছোট দলগুলির প্রার্থীদের একত্রিত এবং কংগ্রেসে নিয়ে আসার চেষ্টার জন্য রাজ্যসভার সদস্য দীপিন্দর সিং হুডাকে দেরাদুনে পাঠিয়ে দেয় হাইকমান্ড।

২০০০ সালে উত্তর প্রদেশের একটা অংশ নিয়ে তৈরি হয়েছিল উত্তরাখণ্ড রাজ্য। এখন পর্যন্ত এই রাজ্য ৮ জন মুখ্যমন্ত্রী পেয়েছে। এই রাজ্যের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী নিত্যান্দ স্বামী ছিলেন বিজেপি-র। ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াত এই রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী। ২০০০ থেকে ২০০৬ পর্যন্ত এই রাজ্যটি উত্তরাঞ্চল নামে পরিচিত ছিল। ২০০৭ সাল থেকে এই রাজ্যের নাম উত্তরাখণ্ড করা হয়। এই রাজ্যের জনসংখ্যা ১.০১ কোটি। যারমধ্যে ৭১% গ্রামাঞ্চলে বাস রেন এবং ২৮% শহর এলাকার বসবাসকারী। এই মুহূর্তে এই রাজ্যে ১৩টি জেলা রয়েছে।

উত্তরাখণ্ডের রাজনীতিতে গত দু’দশক ধরেই বজায় রয়েছে পাঁচ বছর অন্তর পরিবর্তনের ধারা। হিমালয়ঘেরা রাজ্যের ৭০টি বিধানসভা(Assembly) আসনের মধ্যে ২০১৭-য় বিজেপি ৫৭টিতে জিতেছিল। কংগ্রেসের ঝুলিতে গিয়েছিল ১১টি। অন্যান্যরা ২টিতে। এ বার সে রাজ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে পারে বলে কয়েকটি বুথফেরত সমীক্ষার ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। যদিও ভারতের ভোট-রাজনীতির ইতিহাস বলছে, অনেক সময়ই এমন ধরনের সমীক্ষার পূর্বাভাস মেলে না। তবে ভোটের আগে যশপাল আর্য, হরক সিংহ রাওয়তের মতো প্রভাবশালী মন্ত্রীদের বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসে যোগদান ‘দেবভূমি’ উত্তরাখণ্ডে ভোটযুদ্ধে প্রভাব ফেলেছে।  

Leave a Reply

Your email address will not be published.