Ukraine to study: কিয়েভে ভারতীয় ছাত্র গুলিবিদ্ধ, জানালেন জেনারেল ভি কে সিং

Home বিদেশ-বিভূঁই Ukraine to study: কিয়েভে ভারতীয় ছাত্র গুলিবিদ্ধ, জানালেন জেনারেল ভি কে সিং
Ukraine to study: কিয়েভে ভারতীয় ছাত্র গুলিবিদ্ধ, জানালেন জেনারেল ভি কে সিং

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: রাশিয়া এবং ইউক্রেনের  মধ্যে চলতে থাকা সংঘর্ষে কিছুদিন আগেই এক ভারতীয় ছাত্র প্রাণ হারিয়েছেন। শুক্রবার ইউক্রেনের রাজধানী শহর কিয়েভে গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন এক ভারতীয় ছাত্র। সেখানে পড়তে যান বহু ভারতীয় ছাত্র (ukraine to study)।

একটি কথোপকথনে, বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী (MoS) জেনারেল ভি কে সিং বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়েছেন।

জেনারেল সিং বলেন, ইউক্রেন পাঠরত একজন ছাত্রকে (Ukraine to study) গুলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে এবং তাঁকে অবিলম্বে কিয়েভের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ভারতীয় দূতাবাস আগে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে জানিয়ে দিয়েছিল যে সকলের কিয়েভ ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত। যুদ্ধের ক্ষেত্রে, বন্দুকের বুলেট কারও ধর্ম এবং দেশের দিকে তাকায় না।

ছাত্ররা বর্তমানে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন থেকে পালিয়ে পোল্যান্ডের সীমান্তে পৌঁছানোর চেষ্টা করছেন। এই পথে তারা ভারতে নিরাপদে ফিরে আসার চেষ্টা করছেন। চার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, হরদীপ সিং পুরি, জ্যোতিরাদিত্য এম সিন্ধিয়া, কিরেন রিজিজু এবং জেনারেল (অব.) ভি কে সিং, ইউক্রেন সংলগ্ন দেশগুলিতে যুদ্ধে আটকে পরা ভারতীয়দের সরিয়ে নিয়ে আসার প্রচেষ্টার তদারকি করছেন।

ইউক্রেনে এখনও আটক বহু ভারতীয় ছাত্র (Ukraine to study)। এর মধ্যে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা অনেক। কিয়েভ এবং খারকিভ থেকে বের হতে পারেননি বহু ছাত্র। ভারতের বিদেশমন্ত্রক একাধিক বিবৃতি দিয়ে ছাত্রদের কিয়েভ এবং খারকিভ ছাড়তে বলেছিল। প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে অনেকেই সে চেষ্টা করেছে। পালানোর সময়েই এক ছাত্রের গুলি লেগেছে বলে জানা গেছে।

সংবাদমাধ্যমকে ভি কে সিং জানিয়েছেন, আমরা খবর পেয়েছি, ইউক্রেনে পড়তে গিয়েছিলেন (ukraine to study) এমন এক ছাত্রের গুলি লেগেছে। আহত হলেও তিনি বেঁচে আছেন। তাঁকে কিয়েভের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ওই ছাত্রের নাম, পরিচয় কিছুই এখনো পর্যন্ত সরকারের তরফে প্রকাশ করা হয়নি। তবে ইউক্রেনের সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট বলছে, ওই ছাত্র কিয়েভ ছেড়ে পালানোর সময় লড়াইয়ের মধ্যে পড়ে যায়। তখনই তার গুলি লাগে। ঘটনাস্থল থেকে তাকে ফের কিয়েভের হাসপাতালের দিকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।

রোমানিয়া, হাঙ্গেরি এবং পোল্যান্ডের সীমান্তে পৌঁছে গেছে ভারতের একাধিক বিমান। এয়ার ইন্ডিয়ার পাশাপাশি ভারতীয় বায়ুসেনার বিমানও সেখানে পৌঁছেছে। ইউক্রেনে পড়তে যাওয়া ছাত্রছাত্রীদের (Ukraine to study) যেভাবেই হোক সীমান্ত পর্যন্ত পৌঁছানোর কথা বলা হচ্ছে। বস্তুত, বুধবার এবং বৃহস্পতিবার দুইটি বিবৃতি প্রকাশ করেছিল ভারত। সেখানে বলা হয়েছিল, ট্রেন না পেলে পায়ে হেঁটে সীমান্তে পৌঁছাতে হবে। খারকিভের ছাত্রদের জন্য এই নির্দেশিকা জারি হয়েছিল।

খারকিভ এবং কিয়েভ থেকে যে ছাত্ররা এখনো পর্যন্ত এসে পৌঁছাতে পেরেছে, তারা জানিয়েছে, পরিস্থিতি ভয়াবহ হয়ে আছে। ইউক্রেনের সেনাও ভারতীয় ছাত্রদের সঙ্গে সহায়তা করছে না। বহু পথ হেঁটে সীমান্তে পৌঁছানোর পরেও সবসময় ভারতীয় কর্মকর্তাদের দেখা যাচ্ছে না।

বৃহস্পতিবার ভারত অবশ্য জানিয়েছে, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্টের ফোনে কথা হয়েছে। রাশিয়া ভারতীয় ছাত্রদের (Indian student) সেফ প্যাসেজ দেওয়ার কথা জানিয়েছে। তারপরেই এক ছাত্রের গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর জানা গেল।

দিন দুয়েক আগে ভারত দাবি করে, ইউক্রেন থেকে সব নাগরিককে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়েছে। গতকাল রাশিয়া চাঞ্চল্যকর দাবি করে। ইউক্রেনে ভারতীয় পড়ুয়াদের (Ukraine to study) নাকি পণবন্দি করে রাখা হয়েছে। যদিও সেই দাবি ওড়ায় নয়াদিল্লি। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব মারাত্মক।

বৃহস্পতিবার বিদেশ মন্ত্রকের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ইউক্রনের ভারতীয় দূতাবাস সেখানকার ভারতীয় নাগরিকদের সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রেখে চলেছে। বুধবার অনেক ভারতীয় পড়ুয়া খারকিভ (kharkiv) শহর ছেড়ে চলে গিয়েছেন। তবে কাউকে বন্দি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়নি। ভায়তীয় পড়ুয়াদের দেশে ফেরানোর বিষয়ে ইউক্রেন সরকারের উদ্যোগের প্রশংসাও করা হয়েছে ওই বিবৃতিতে।

ইউক্রেনের ভারতীয় দূতাবাস কর্তৃপক্ষের তরফে পড়ুয়াদের (Indian student) পণবন্দি করার খবরের সত্যতা যাচাই করে কোনও তথ্যপ্রমাণ মেলেনি বলেও ওই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী ওই বিবৃতি তাঁর সরকারি টুইটারে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘ইউক্রেনে ভারতীয় পড়ুয়াদের পণবন্দি করার খবর নিয়ে সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে আমাদের প্রতিক্রিয়া।’

বুধবার রাতে রাশিয়ার তরফে ইউক্রেন (Ukraine) সেনার বিরুদ্ধে ভারতীয় পড়ুয়াদের পণবন্দি করার অভিযোগ তোলা হয়। দিল্লির রুশ দূতাবাসের টুইটারে লেখা হয়, ‘সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, ইউক্রেনের নিরাপত্তা বাহিনী এই ছাত্রছাত্রীদের পণবন্দি করেছে এবং তাঁদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। যে কোনও উপায়ে তাঁদের রাশিয়া যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এর সম্পূর্ণ দায় কিভের।’

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক দাবি করে, যে সব ভারতীয় পড়ুয়া ইউক্রেন ছেড়ে রাশিয়ায় যেতে চাইছেন, তাঁদের কিয়ভে (kyiv) আটকে রাখা হয়েছে। রাশিয়ায় পৌঁছতে পারলেই তাঁদের বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানায় ভ্লাদিমির পুতিন সরকার। বৃহস্পতিবার এই রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের আবহে (russia ukraine war) ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রক জানিয়েছে, ইউক্রেনে যুদ্ধ পরিস্থিতিতে আটকে পড়া ভারতীয়দের ফেরাতে রাশিয়া, রোমানিয়া, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, স্লোভাকিয়া এবং মলডোভার সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের (putin) মধ্যে একটি টেলিফোন কথোপকথনের পর জারি করা এক রিডআউটে রাশিয়ার তরফে এই তথ্য প্রকাশ করা

Leave a Reply

Your email address will not be published.