ত্রিপুরায় (Tripura) প্রকাশিত হল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের টার্ম ওয়ান পরীক্ষার ফলাফল

ত্রিপুরায় (Tripura) প্রকাশিত হল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকের টার্ম ওয়ান পরীক্ষার ফলাফল

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: প্রকাশিত হল ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ (TBSE) পরিচালিত মাধ্যমিক, মাদ্রাসা আলিম, উচ্চমাধ্যমিক ও মাদ্রাসা ফাজিল টার্ম ওয়ান (Term 1) পরীক্ষার ফল। গত ২৮ ফেব্রুয়ারি প্রকাশিত হয়েছে এই ফল। তবে অন্যান্যবারের চেয়ে এবারের ফলপ্রকাশ সম্পূর্ণ পৃথক, কারণ এই ফলপ্রকাশের মাধ্যমে কোনও ছাত্রছাত্রীকে পাস বা ফেল ঘোষণা করা হয়নি। ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা বোর্ডের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, এ বছর সমস্ত পরীক্ষার্থীদেরই পাস বা ফেল ঘোষণা করা হবে টার্ম ওয়ান এবং টার্ম টু পরীক্ষা দুটির যৌথ ফলাফলের ভিত্তিতে।

২৮ ফেব্রুয়ারি দুপুরে আগরতলার কুঞ্জবন এলাকার ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদের (TBSE) অফিসের কনফারেন্স হলে সাংবাদিক সম্মেলন করে মাধ্যমিক, মাদ্রাসা আলিম, উচ্চমাধ্যমিক ও মাদ্রাসা ফাজিল টার্ম ওয়ান পরীক্ষার ফল ঘোষণা করেন পর্ষদের সভাপতি ড. ভবতোষ সাহা।

ভবতোষবাবু আরও বলেন, এবছর উচ্চমাধ্যমিক ও মাদ্রাসা ফাজিল ট্রাম ওয়ান পরীক্ষা শুরু হয় গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর এবং শেষ হয় ২০২২ সালের ৭ জানুয়ারি। মাধ্যমিক ও মাদ্রাসা আলিম টার্ম ওয়ান পরীক্ষা শুরু হয় গত বছরের ১৬ ডিসেম্বর এবং শেষ হয় ২৯ ডিসেম্বর । রেগুলার, কন্টিনিউ, কম্পার্টমেন্টাল, এক্সটার্নাল সহ সবমিলিয়ে এ বছর ১০৭১টি স্কুলের ৪৩,২৮২ জন ছাত্রছাত্রী মাধ্যমিক পরীক্ষা দিয়েছিল বলে জানান তিনি। এদের মধ্যে ছাত্র পরীক্ষার্থী ২০,৭৭৬ জন এবং ছাত্রী পরীক্ষার্থী ২২,৫০৬ জন। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ছিল সবমিলিয়ে ২৮,৯৩১ জন। ৭টি স্কুলের ১৮২ জন ছাত্রছাত্রী মাদ্রাসা আলিম পরীক্ষা দিয়েছিল। ১টি স্কুলের ৪ জন পরীক্ষার্থী মাদ্রাসা ফাজিল আর্টসের পরীক্ষা এবং ৪টি স্কুলের ৫২জন পরীক্ষার্থী মাদ্রাসা ফাজিল থিওলজি পরীক্ষা দিয়েছিল। এ বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় মোট ২৭ জন প্রতিবন্ধী ছাত্রছাত্রী এবং উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় মোট ২১ জন প্রতিবন্ধী ছাত্রছাত্রী টার্ম ওয়ান পরীক্ষায় বসেছিল বলে জানিয়েছেন ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সভাপতি। পর্ষদের দেওয়া তথ্যানুসারে, সংশোধনাগার থেকে এ বছর কেউ মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় নাম নথিভুক্ত করেনি।

পরীক্ষার ফলাফল ঘোষণার পর দুপুর সাড়ে বারোটা থেকে ছাত্রছাত্রীরা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পরীক্ষার নম্বর সম্পর্কে জানতে পারবে, এমনটাই বলা হয়েছিল পর্ষদের তরফ থেকে। ওয়েবসাইটগুলি হলো www.tbse.tripura.gov.in/www.tripura.nic.in। তবে এই পরীক্ষার জন্য কোন মার্কশিট দেওয়া হবে না পরীক্ষার্থীদের। টার্ম টু পরীক্ষার পরই টার্ম ওয়ান এবং টার্ম টু পরীক্ষার মার্কশিট একত্রে দেওয়া হবে বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এই কারণে এ বছর মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিকের ফলাফল সম্পূর্ণ পৃথকভাবে ঘোষণা করা হয়েছে।

পর্ষদ সভাপতির কথায়, কোভিড পরিস্থিতির কারণে ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষের মতো ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষেও স্কুলগুলিতে পঠনপাঠন চূড়ান্তভাবে ব্যাহত হয়েছে। এই কারণেই ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ (TBSE) গত বছর জুন মাসে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ড পরীক্ষা টার্ম ওয়ান ও টার্ম টু পৃথকভাবে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তাদের লক্ষ্য ছিল, কোভিড পরিস্থিতি প্রতিকূল হলে দুটি পরীক্ষার মধ্যে অন্তত একটি পরীক্ষা নিয়ে সেই ফলাফলের ভিত্তিতে চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে। তাই ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদের পরিচালন কমিটি গত বছরের জুলাই মাসে এই পদ্ধতি চালুর সিদ্ধান্ত নেয় এবং ত্রিপুরার রাজ্য সরকার সেপ্টেম্বর মাস নাগাদ বিষয়টির অনুমোদন দেয়।

প্রসঙ্গত, গত বছর কোভিড অতিমারির প্রকোপে ও লকডাউনের জেরে বাতিল হয়ে যায় ত্রিপুরার মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, মাদ্রাসা আলিম এবং মাদ্রাসা ফাজিল পরীক্ষা। ২০২১ সালের ১৮ মে থেকে এই পরীক্ষাগুলি হওয়ার কথা ছিল। প্রথমে পরীক্ষা স্থগিত করার কথা ঘোষণা করলেও পরে তা বাতিল করতে বাধ্য হয় ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ (TBSE)। ত্রিপুরার শিক্ষামন্ত্রী রতনলাল নাথ জানিয়েছিলেন, মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, মাদ্রাসা আলিম এবং মাদ্রাসা ফাজিল পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার নম্বর একটি বিশেষ কমিটির সুপারিশ অনুসারে দেওয়া হবে। সমস্ত পরীক্ষার ফলাফল ৩১ জুলাই এর মধ্যে প্রকাশ করা হবে। যেসব ছাত্রছাত্রী মধ্যশিক্ষা পর্ষদ প্রদত্ত নম্বরে সন্তুষ্ট হবে না, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে তাদের পরীক্ষা নেওয়া হবে। পরীক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে গত বছর ১৪ জুন ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও ত্রিপুরা শিক্ষামন্ত্রক যৌথভাবে একটি সভার আয়োজন করেছিল। সেই সভায় রাজ্যের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, মনোবিদ, স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তাছাড়াও পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ অনলাইনে অভিভাবকদের মতামত আহ্বান করেছিল। তাতে দেখা গিয়েছিল, মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে ১৬.১৭ শতাংশ অভিভাবক পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে এবং ৮৩.২৪ শতাংশ অভিভাবক পরীক্ষা নেওয়ার বিপক্ষে মতামত জানিয়েছেন। অনুরূপভাবে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ক্ষেত্রে ৯.৯৪ শতাংশ অভিভাবক পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে এবং ৯০.০৬ শতাংশ অভিভাবক পরীক্ষা নেওয়ার বিপক্ষে মতামত জানিয়েছেন। সেই পরিপ্রেক্ষিতেই ত্রিপুরা মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও ত্রিপুরা শিক্ষামন্ত্রক গত বছর মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিলের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

যদিও এই বছর করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। এমতাবস্থায় এ বছরের মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, মাদ্রাসা আলিম এবং মাদ্রাসা ফাজিলের টার্ম ওয়ান পরীক্ষা নেওয়ার পর টার্ম টু পরীক্ষা নিতেই উদ্যোগী ত্রিপুরার শিক্ষামন্ত্রক ও ত্রিপুরার মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

ত্রিপুরার মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের প্রশ্ন এখন একটিই। কবে হতে পারে টার্ম টু পরীক্ষা? পর্ষদ সভাপতি ড. ভবতোষ সাহাকে এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান,সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ১৮ এপ্রিল থেকে শুরু হতে পারে টার্ম টু পরীক্ষা। টার্ম ওয়ান পরীক্ষার মতোই টার্ম টু পরীক্ষার প্রশ্নপত্র হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.