তিহারের অন্দরে কুস্তির আখড়া ! গুরু হলেন বন্দি অলিম্পিয়ান সুশীল কুমার (Sushil Kumar)

Home খেলাধুলো তিহারের অন্দরে কুস্তির আখড়া ! গুরু হলেন বন্দি অলিম্পিয়ান সুশীল কুমার (Sushil Kumar)
তিহারের অন্দরে কুস্তির আখড়া ! গুরু হলেন বন্দি অলিম্পিয়ান সুশীল কুমার (Sushil Kumar)

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: দিল্লির তিহার জেলে বন্দি  রয়েছেন অলিম্পিয়ান সুশীল কুমার (Sushil Kumar )। এবার অলিম্পিক পদকজয়ী(Olympic Medalist) সেই হাই প্রোফাইল বন্দিকেই জেলের নতুন ফিটনেস কোচ নিযুক্ত করল তিহার কর্তৃপক্ষ। সাগর ধনকড় খুনের মামলায় অভিযুক্ত আন্তর্জাতিক স্তরের এই ক্রীড়াবিদ।

দু’বারের অলিম্পিক পদক জয়ী কুস্তিগীর(Wrestler) সুশীল কুমারের (Sushil Kumar )ঠিকানা এখন দিল্লির তিহার জেল (Tihar jail)। ছত্রসাল স্টেডিয়ামে জুনিয়র জাতীয় চ্যাম্পিয়ন সাগর রানা ধনকড় হত্যা মামালায় মূল অভিযুক্ত তিনি। গতবছরের জুন মাস থেকেই তিহারে বন্দি রয়েছেন সুশীল। কিন্তু হঠাৎ তিহার কর্তৃপক্ষের মাথায় সুশীল কুমারকে ফিটনেস গুরুর (Fitness Trainer) পদ দেওয়ার চিন্তাভাবনা কেন এল? জানা গিয়েছে, জেলজীবনে নিজেকে ফিট রাখতে এতদিন সুশীল কুমার কারাগার চত্বরে নিজের অভ্যাসবশতই ব্যায়াম করতেন। তাঁর দেখাদেখি আরও অনেকেই শরীর গড়তে নেমে পড়েন। সকলের মধ্যে ছিলেন জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের(জেএনইউ) প্রাক্তন ছাত্র উমর খালিদ। এরা সুশীল কুমারের(Sushil Kumar ) কাছে নিজেকে ফিট রাখার শুধু টিপসই নয়, একেবারে গুরুর আসনে বসিয়ে কুস্তির আখড়া খুলে দেন। আস্তে আস্তে আরও কয়েকজন বন্দীও তাঁদের সঙ্গে প্রশিক্ষণ নিতে শুরু করেন। ফলে শুধু নিজেকে ফিট রাখা নয়, বাকিদেরও শরীরকে চাঙ্গা রাখার মন্ত্র দিচ্ছেন অলিম্পিক পদকজয়ী কুস্তিগীর (Wrestler)। অর্থাৎ শারীরিক ট্রেনিংয়ের (Fitness Trainer) পাশাপাশি সুশীল দিচ্ছেন কুস্তীর পাঠও! 

তিহার (Tihar Jail) কর্তৃপক্ষের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, এবার থেকে তিনি (Sushil Kumar ) কারাগারে অফিসায়ালি কুস্তি ও ফিটনেসের প্রশিক্ষণ দেবেন। এখনও পর্যন্ত ১০ জন বন্দী সুশীল কুমারের ক্লাসে যোগ দিয়েছেন। তিহারের এক আধিকারিক জানান, সুশীলকে সাহায্যের জন্য, আরও কয়েকজন অপেশাদার প্রশিক্ষকের একটি দল রয়েছে।

৩৮ বছরের সুশীল কুমারের মতো আন্তর্জাতিক মানের ক্রীড়াবিদের(Olympic Medalist) সহজাত গুণকে হেলায় নষ্ট হতে দিতে চাননি । কয়েক মাস আগেই, তাঁকে (Sushil Kumar ) মাথায় রেখেই আগেই ফিটনেস প্রজেক্ট চালুর আগেই পরিকল্পনা করা হয়েছিল। কিন্তু আবারও করোনার  তৃতীয় ঢেউ এসে পড়ায়, পরিকল্পনা তখনকার মতো স্থগিত করে দেওয়া হয়। এখন করোনার দৌরাত্ম্য অনেকটাই কম থাকায়, খাতায়-কলমে থাকা পরিকল্পনা এবার বাস্তবায়নের জন্য নতুন করে পদক্ষেপ করলেন তিহারের অফিসাররা।

ডিজি(প্রিজন) সন্দীপ গোয়েল জানিয়েছেন,গত দু’বছর ধরে কোভিডের কারণে কারাগারের বন্দিদের মধ্যেও একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। কিন্তু এবার করোনার দাপট কমতে থাকায় সুশীলকে(Sushil Kumar ) জেল কর্তৃপক্ষ বাকি ইচ্ছুক বন্দিদের জড়ো করে প্রশিক্ষণ দেওয়ার অনুমোদন দিয়েছে। জেল আধিকারিকরা জানিয়েছেন যে, অবসাদ থেকে দূরে থাকার জন্য কোনও জেলবন্দি যদি মনে করেন যে, তিনি সুশীলের থেকে প্রশিক্ষণ নেবেন, তাহলে তাঁকে সেই অনুমোদন দেওয়া হবে। গতবছর জুলাই মাসে সুশীল কুমারের ব্যক্তিগত অনুরোধে, তাঁকে সকলের সঙ্গে বসে টেলিভিশনে কুস্তির শো দেখার ব্যবস্থা করে তিহার কর্তৃপক্ষ।

প্রসঙ্গত, সুশীল কুমার গত ২৩ মে থেকে এই জেলে বন্দি। তাঁর বিরুদ্ধে গতবছর ৪ মে সাগর ধনকড়কে হত্যা করার অভিযোগ ওঠে। এই অলিম্পিকজয়ীর বিরুদ্ধে অপহরণ এবং ষড়যন্ত্রের অভিযোগও আনে দিল্লি পুলিস। বলা হয় যে, সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে, ধনকড়কে তাঁর দিল্লির মডেল টাউন অ্যাপার্টমেন্ট থেকে অপহরণ করে সুশীল নিয়ে যান ছত্রসাল স্টেডিয়ামে। ২৩ বছরের সাগরের মৃত্যুর পর পঞ্জাবের জলন্ধর থেকে সুশীল ও তাঁর সহযোগী অজয় কুমারকে গ্রেফতার করে দিল্লি পুলিস। একাধিক রাজ্যে গা ঢাকা দিয়েও শেষ পর্যন্ত পুলিসের হাত থেকে বাঁচতে পারেননি সুশীল।

জেল আধিকারিকদের (Tihar Jail ) বক্তব্য সুশীলকুমার পেশাদার কুস্তিগীর। এর মধ্যে জেলে অন্যান্য কয়েদিদের তিনি ফিটনেসের এবং কুস্তির কায়দা শেখাতে পারবেন। জেল অফিসারদের বক্তব্য যে এতে বন্দিদের মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।

প্রসঙ্গত, তিহার জেলে প্রথমবার সমস্ত ধরনের খেলা এবং প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশন লিমিটেড এর উদ্যোগে। কয়েদিদের খোখো, ভলিবল, ব্যাডমিন্টন, বাস্কেটবল, দাবা এবং ক্যারাম খেলার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। বর্তমানে বন্দীদের সংশোধন করাই কারাগার কর্তৃপক্ষের প্রথম এবং প্রধান উদ্দেশ্য। সেই কারণে সঙ্গীতের ক্লাস, পেইন্টিং স্কুল ইত্যাদি সবই আছে তিহার জেলে। সেই সঙ্গেই উত্পাদন ইউনিটে তাদের কাজও করানো হয়। যাতে জেল থেকে মুক্তির পর, এরা সকলে সমাজের মূল স্রোতে মিশে, সহজে জীবন-জীবিকার পথ বেছে নিতে পারে। এর মধ্যে রয়েছে পাট, মোমবাতি এবং সুগন্ধি তৈরির কাজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.