Russia Ukraine War: রাশিয়াকে সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্রের তকমা দিক ব্রিটেন, জেলেনস্কির আবেদন

Home বিদেশ-বিভূঁই Russia Ukraine War: রাশিয়াকে সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্রের তকমা দিক ব্রিটেন, জেলেনস্কির আবেদন
Russia Ukraine War: রাশিয়াকে সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্রের তকমা দিক ব্রিটেন, জেলেনস্কির আবেদন

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ (Russia Ukraine war) আজ ১৪ দিনে পড়ল। রাশিয়াকে ‘সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্রের’ তকমা দেওয়া হোক। এমনই দাবি করলেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট (Ukranian President) ভলোদিমির জেলেনস্কি। প্রেসিডেন্ট জেলেনস্কি বলেন, রাশিয়া যেভাবে হানাদারি শুরু করেছে ইউক্রেন জুড়ে, তাতে শিগগিরই তাকে ‘সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্রের’ তকমা দিক ব্রিটেন। পাশাপাশি মস্কোর উপর যাতে আরও জোরদার নিষেধাজ্ঞা চাপানো হয়, সে বিষয়েও দাবি জানান ভলোদিমির জেলেনস্কি (Volodymyr Zelensky)।

এদিকে ইউক্রেনকে (Ukraine) মান্যতা দিতে রাজি নয় ন্যাটো। সেই কারণে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের (Russia Ukraine War) ময়দানে ন্যাটো নামছে না। ইউক্রেনে রাশিয়ার হানাদারির ২ সপ্তাহ পর ফের তোপ দাগলেন ভলোদিমির জেলেনস্কি। তিনি বলেন, রাশিয়ার (Russia) সঙ্গে সম্মুখ সমরে নামতে চাইছে না ন্যাটো। রুশ সেনার মোকাবিলায় কোনও কারণে ন্যাটো সরে থাকছে। পাশাপাশি কোনও বিতর্কিত বিষয়েও নিজেদের জড়াতে চাইছে না ন্যাটো। সেই কারণে রাশিয়ার হামলার হাত থেকে ইউক্রেনকে (Ukraine) রক্ষা করতে ন্যাটো এগিয়ে আসছে না বলে মন্তব্য করেন জেলেনস্কি। ইউক্রেনের প্রতি ন্যাটোর মনোভাব প্রত্যক্ষ করার পর তিনি আর সাহায্য চাইছেন না। এমনকী, ইউক্রেনকে ন্যাটোর সদস্যপদ দেওয়ার জন্য তিনি জোর জবরদস্তিও করছেন না বলে মন্তব্য করেন ভলোদদিমির জেলেনস্কি। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের (Russia Ukraine War) প্রভাব পড়েছে সারা বিশ্বে।

আরও জানতে পড়ুন – Russia Ukraine War: দেশের সীমান্ত পেরিয়ে পোল্যান্ড যাওয়ার সময় কান্না ইউক্রেনীয় বালকের, ভিডিও ভাইরাল

সবকিছু মিলিয়ে রাশিয়ার ইউক্রেনে আগ্রসনের (Russia’s invasion of Ukraine) পর এবার মস্কোর পাশাপাশি ন্যাটোর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিতে শুরু করেছেন বছর ৪৪-এর ইউক্রেনের এই রাষ্ট্রনেতা। কারণ রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধে (Russia Ukraine War) দেশ ধস্ত।

রাশিয়া এবং ইউক্রেনের যুদ্ধ (Russia Ukraine war) চলছে! যুদ্ধ বিরতির কথা ঘোষণা করা হলেও সে দেশের বিভিন্ন জায়গা টার্গেট করে হামলা চালাচ্ছে রাশিয়ান ফোর্স। মনে করা হচ্ছে আগামিদিনে ইউক্রেনের উপর হামলার গতি আরও বাড়াবে রাশিয়া। আর এর মধ্যেই রাশিয়ার উপর লাগাতার নিষেধাজ্ঞা দিয়ে চলেছে একাধিক দেশ।

ইতিমধ্যে মস্কোর বিরুদ্ধে একাধিক নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আমেরিকাও। মঙ্গলবার আরও একবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা জারি করলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। কার্যত এবার সরাসরি রাশিয়ার অর্থনীতি ভেঙে দেওয়ার ছক কষে আঘাত আমেরিকার।

বাইডেনের ঘোষণা অনুযায়ী রাশিয়ার গ্যাস, তেল এবং এনার্জিতে নিষেধাজ্ঞা। অর্থাৎ মার্কিন প্রেসিডেন্টের ঘোষণা অনুযায়ী রাশিয়ার তেল-গ্যাস ও জ্বালানির সব ধরনের আমদানি নিষিদ্ধ। এতে রাশিয়ার অর্থনীতিতে বড়সড় ধাক্কা লাগবে বলেই মনে করছে অর্থনীতির বিশেষজ্ঞরা। ইতিমধ্যে ইউরোপের সর্ববৃহৎ তেলের সংস্থা শেল এবং বিপি-এই দুই সংস্থাই রাশিয়া থেকে গ্যাস এবং তেল কেনা বন্ধ করার ঘোষণা করে।

আর এরপর থেকেই জল্পনা তৈরি হয় যে এবার রাশিয়ার অর্থনীতিতে ধাক্কা লাগাতে তেল-গ্যাস নিয়ে বড়সড় পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে। আর এরপরেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ঘোষণা যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন বাইডেন। তিনি বলেন, রাশিয়ার তেল-গ্যাসের মতো জ্বালানি এবং এনার্জিতে নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। আর এহেন ঘোষণা অনুযায়ী মার্কিন বন্দরে রাশিয়ান তেল আর গ্রহণযোগ্য হবে না এবং আমেরিকান জনগণ পুতিনকে আরেকটি শক্তিশালী ধাক্কা দেবে।

বাইডেন জানিয়েছেন যে, এর সঙ্গে সম্পর্কিত ব্যক্তিদের সঙ্গে আলোচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

শুধু তাই নয়, মার্কিন প্রেসিডেন্ট এদিন বলেন, আমরা ইতিহাসের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ আর্থিক নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আর এই সিদ্ধান্ত রাশিয়ার অর্থনীতিকে ভয়ঙ্কর ভাবে আঘাত করবে বলেও দাবি জো বাইডেনের।

বলে রাখা প্রয়োজন, ২৪ ফেব্রুয়ারী ইউক্রেন আক্রমণ করে রাশিয়া আর তারপর থেকে বিশ্বজুড়ে অর্থনৈতিক, পরিকাঠামো, বানিজ্য সহ একাধিক বিষয়ে নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েছে রাশিয়া৷ ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধের মধ্যে রাশিয়া এখন বিশ্বের সবচেয়ে নিষেধাজ্ঞাপ্রাপ্ত দেশ হয়ে উঠেছে।

পর্যবেক্ষকরা মনে করছেন, আগামিদিনে রাশিয়ার উপর আরও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে। যা কিনা পুতিনের দেশকে একেবারে কোনঠাসা করে দেবে। যদিও এক অংশের মতে, রাশিয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আদৌতে মস্কোকে আরও চ্যালেঞ্জ নিতে বাধ্য করছে।

প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে ইউক্রেনে সংঘর্ষ জারি রেখেছে রাশিয়া। ২৪ ফেব্রুয়ারি রাতে ইউক্রেন দখলের যে অভিযান রুশ বাহিনী শুরু করেছিল, তা এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে পরিণত হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে আমেরিকা, ব্রিটেনসহ পশ্চিমা দেশগুলি ক্রমেই ক্রেমলিনের উপর চাপ বাড়াতে বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা জারি করে চলেছে। তবে তাতেও পিছু হটার নাম নেই ভ্লাদিমির পুতিনের। বাইরের সাহায্য সেই অর্থে না পেলেও নিজেদের দেশরকে রক্ষা করার কঠোর প্রত্যয়ে লড়াই করে চলেছেন ইউক্রেনীয়রা। আর রাশিয়ার রক্তক্ষরণ জারি রয়েছে। এই আবহে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে কড়া বার্তা দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। বাইডেনের কথায় ইউক্রেনে কোনও দিনই জয়লাভ করবে না রুশ বাহিনী।

এক টুইট বার্তায় বাইডেন লেখেন, এটি ইতিমধ্যেই স্পষ্ট হয়েছে যে ইউক্রেনে পুতিন পক্ষে কখনই বিজয় লাভ করা সম্ভব হবে না। পুতিন একটি শহর দখল করতে সক্ষম হতে পারেন – তবে তিনি কখনই গোটা দেশকে নিজের দখলে রাখতে পারবেন না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.