পঞ্জাবে (Punjab Election)এবার ‘আপ কি সরকার’, সাফ কংগ্রেসে, বাড়িতে ভিয়েন বসিয়ে মিষ্টিমুখ নতুন মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মানের

Home দেশের মাটি পঞ্জাবে (Punjab Election)এবার ‘আপ কি সরকার’, সাফ কংগ্রেসে, বাড়িতে ভিয়েন বসিয়ে মিষ্টিমুখ নতুন মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মানের
পঞ্জাবে (Punjab Election)এবার ‘আপ কি সরকার’, সাফ কংগ্রেসে, বাড়িতে ভিয়েন বসিয়ে মিষ্টিমুখ নতুন মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মানের

ঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক:  পঞ্জাব বিধানসভা নির্বাচনে (Punjab Election) শুরু থেকেই বড় চমক৷ এবারের এক্সিট পোলকে সত্যি করে, গণনর গতিপ্রকৃতি বলছে ইতিমধ্যেই অর্ধেক আসনে নিজেদের দখল নিশ্চিত করে আমআদমি পার্টি(AAP)। পঞ্জাবে কংগ্রেসকে ধুয়ে মুছে সাফ করে ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তে চলেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল। গণনার প্রাথমিক গতিপ্রকৃতিও সেই আভাসই দিচ্ছে। এই মুহূর্তে আপের দখলে রয়েছে ৯১, বহু পিছনে থেকে কংগ্রেস ১৫, অকালি+ ৮, বিজেপি+৩(Bharatiya Janata Party) এবং অন্যান্যরা ১ আসনে এগিয়ে। ইতিমধ্যেই অর্ধেক আসনে নিজেদের দখল নিশ্চিত করে আমআদমি পার্টি। পঞ্জাবে কংগ্রেসকে ধুয়ে মুছে সাফ করে ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তে চলেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল(AAP)। গণনার প্রাথমিক গতিপ্রকৃতিও সেই আভাসই দিচ্ছে।পঞ্জাব বিধানসভা নির্বাচনে শুরু থেকেই বড় চমক৷ এবারের এক্সিট পোলকে সত্যি করে, গণনর গতিপ্রকৃতি বলছে ইতিমধ্যেই অর্ধেক আসনে নিজেদের দখল নিশ্চিত করে আমআদমি পার্টি। পঞ্জাবে কংগ্রেসকে ধুয়ে মুছে সাফ করে ব্যাপক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গড়তে চলেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল।

একনজরে ফলাফল

পঞ্জাবে এবার ‘আপ কি সরকার’, সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী ভগবন্ত মানের কেন্দ্রে শুরু বিজয়োল্লাস, মিষ্টিমুখ, মানের বাড়িতেই বসেছে ভিয়েন

দিল্লির বাইরে প্রথম জয়ের গন্ধ পাচ্ছেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল

অর্ধেকর বেশি আসনে আধিপত্য কায়েম করেছে আম আদমি পার্টি

সঙ্গরুর লোকসভা কেন্দ্রে শুরু আপ কর্মী-সমর্থকদের সেলিব্রেশন

 ‘ভারতের রাজনৈতিক ইতিহাসে আজ একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। পঞ্জাবে আপ জিতছে বলে নয়, কংগ্রেসের পরিপূরক হয়ে উঠছে আম আদমি পার্টি’ :আপের সহ-পর্যবেক্ষক রাঘব চাড্ডা 

পিছিয়ে কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নি ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নভজ্যোত সিং সিধু

চমকৌর সাহিব ও ভাদৌর-দুই কেন্দ্রেই হারের মুখে বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী

পাতিয়ালা(শহর) আসনে পরাজিত প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। জয়ী আপ প্রার্থী অজিত পাল সিং কোহলি

পঞ্জাবে ২০১৭ সালে কংগ্রেস ৭৭টি আসন পেয়ে সরকার গড়ে। ২০টি আসন পেয়েছিল আপ, ১৫টি পেয়েছিল শিরোমণি অকালি দল। পঞ্জাবে মোট আসন ১১৭টি। এই রাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজন ৫৯টি আসন। তবে এবার বুথ ফেরত সমীক্ষা বলেছে, এবার পঞ্জাবে বিধানসভা ভোটে((Punjab Election) জিতে সরকার গড়তে পারে আম আদমি পার্টি। সেক্ষেত্রে মোট ১১৭টি আসনের মধে আপের ঝুলিতে যেতে পারে ৭৬ থেকে ৯০টি। কংগ্রেস(Congress) পেতে পারে ১৯ থেকে ৩১টি আসন। ৭ থেকে ১১টি আসন যেতে পারে অকালি দলের দখলে। আর ১ থেকে ৪টি আসন পেতে পারে বিজেপি(Bharatiya Janata Party)। 

পঞ্জাবের বিধানসভা ভোটে(Punjab Election) এ বার পুরনো রাজনৈতিক সমীকরণ ভেঙে যেতে পারে বলে অধিকাংশ বুথফেরত সমীক্ষাতেই পূর্বাভাস মেলে। শিরোমণি অকালি দল আর কংগ্রেস রাজনীতিতে বিভক্ত পঞ্চনদের তীরে এ বার অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টি (AAP) সরকার গঠনের লড়াইয়ে এগিয়ে থাকবে বলে ওই সমীক্ষাগুলির দাবি।

টানটান উত্তেজনার মধ্যে শেষের পথে পঞ্জাবের হাই ভোল্টেজ বিধানসভা নির্বাচনের(Punjab Election) ভোটগণনা। আর ফলাফলের গতিপ্রকৃতিতে প্রথম থেকেই স্পষ্ট ছিল আজ অগ্নিপরীক্ষায় ব্যর্থ হতে চলেছেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নি। দলের কোন্দল আর ঝাড়ুর দাপটে প্রায় ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে গেল পঞ্জাবের শাসকদল কংগ্রেস(Congress)। বিধানসভা নির্বাচনে(Punjab Election)চন্নি একসঙ্গে দুটি কেন্দ্রের প্রার্থী হয়েছিলেন। নির্বাচনের আগেই দলীয় কোন্দল সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিল কংগ্রেস। অমরিন্দর সিং বনাম নভজ্যোত সিং সিধুর বিরোধের জেরে ২০২১ সালের সেপ্টেম্বর মাসেই পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দেন ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিং। এরপর নভজ্যোত সিং সিধু মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার আশা করলেও, শেষ অবধি বিধানসভা নির্বাচনে দলিত ভোটের কথা মাথায় রেখেই মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে বেছে নেওয়া হয় চরণজিৎ সিং চন্নিকে।

রাজ্য সামলানোর দায়িত্ব পাওয়ার পরও সিধুর বিরোধিতার মুখে পড়তে হয়েছিল চরণজিৎ সিং চন্নিকে। তবে সবকিছু সামাল দিয়েই তিনি প্রচার চালিয়েছিলেন রাজ্য়ের বিভিন্ন প্রান্তে। সম্প্রতিই বেআইনি বালি খাদান মামলায় তার আত্মীয়ের নাম জড়ানোয় কিছুটা ব্যাকফুটে চলে গেলেও, শেষ অবধি পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হিসাবে নভজ্যোত সিং সিধুর বদলে চরণজিৎ সিং চন্নিকেই বেছে নেওয়া হয়। একইসঙ্গে চমকৌর সাহিব ও ভাদৌর কেন্দ্রের প্রার্থী করা হয় তাঁকে। সেই দুটি কেন্দ্রেই পরাজিত তিনি।

অবশ্য এর আগে দু’বার পঞ্জাবের ভোটযুদ্ধে(Punjab Election) ভালো ‘ফাইট’ দেওয়ার উদাহরণ রয়েছে কেজরিওয়ালের দলের(AAP)। ২০১৪-র লোকসভা ভোটে ওই রাজ্যের ১৩ আসনের মধ্যে অকালি-বিজেপি জোট ৬ এবং আপ ৪টিতে জিতেছিল। কংগ্রেস জিতেছিল ৩টিতে। আবার ২০১৭-র বিধানসভা ভোটে ১১৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭৭টিতে জিতে নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতা পায় কংগ্রেস। আপ ২০টিতে জিতে হয় দ্বিতীয়। অকালি দল-বিজেপি জোট ১৮টি (১৫+৩) আসনে জেতে। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে অবশ্য আপ-এর আসন ১-এ নেমে আসে। কংগ্রেস একাই জেতে ৮টিতে।

এ বার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরেন্দ্র সিংহের দলত্যাগ এবং মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ সিং চন্নীর সঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি নভজ্যোৎ সিং সিধুর বিবাদের জেরে কংগ্রেস কিছুটা বিপাকে। কৃষিবিলের বিরোধিতা করে সে রাজ্যে বিজেপি-কে ছেড়ে মায়াবতীর সঙ্গে সমঝোতা করেছে অকালি দল। অন্য দিকে, নয়া দল ‘পঞ্জাব লোক কংগ্রেস’ গড়ে অমরেন্দ্র শামিল হয়েছেন পদ্মশিবিরে। গত আট বছরে দক্ষিণ পঞ্জাবের মালওয়া অঞ্চলে আপ-এর সাংগঠনিক সক্রিয়তা অনেকটাই বেড়েছে। এই অঞ্চলের ৬৯টি আসনের বড় অংশ এ বার কেজরিওয়ালের ঝুলিতে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.