‘প্রকাশ্যে নমাজ পাঠ বরদাস্ত নয়!’ হুঙ্কার দিয়ে বিতর্কে গেরুয়া শিবিরের খট্টর

Home দেশের মাটি ‘প্রকাশ্যে নমাজ পাঠ বরদাস্ত নয়!’ হুঙ্কার দিয়ে বিতর্কে গেরুয়া শিবিরের খট্টর
‘প্রকাশ্যে নমাজ পাঠ বরদাস্ত নয়!’ হুঙ্কার দিয়ে বিতর্কে গেরুয়া শিবিরের খট্টর

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: ধর্মীয় অসহিষ্ণুতাআরও এক নজির তৈরি করলেন হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহর লাল খট্টর। প্রকাশ্যে নমাজ বরদাস্ত করা হবে না বলে সাফ কথা গেরুয়া শিবিরের নেতার।প্রকাশ্যে নমাজ পড়া নিয়ে গুরুগাঁওয়ে সাম্প্রতিক অশান্তির প্রেক্ষিতে খট্টর বলেন, ‘গুরগাঁওয়ে মুসলিমদের খোলা জায়গায় শুক্রবারের নমাজ পাঠ উচিত নয়।’

২০১৮ সালের সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী গুরুগাঁওয়ের ৩৭টি স্থান প্রকাশ্যে নমাজ পাঠের জন্য চিহ্নিত করা ছিল। কয়েকটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠনের বিক্ষোভ-আন্দোলনে সাম্প্রদায়িক অশান্তির আশঙ্কায়, নভেম্বরের গোড়ায় আটটি স্থানে নমাজের অনুমতি বাতিল করে হরিয়ানা সরকার। পাশাপাশি সরকারি নির্দেশিকায় জানিয়ে দেওয়া হয়, বাকি ২৯টি স্থান নিয়ে যদি কোনও আপত্তি ওঠে, সে ক্ষেত্রেও অনুমতি বাতিল করা হবে। উল্লেখ করা যেতে পারে নির্দিষ্ট স্থানে নমাজ পাঠ নিয়েও, মুসলিমদের ক্রমাগত হেনস্তা এবং বাধার মুখোমুখি হতে হচ্ছিল।

এই পরিস্থিতিতে খট্টরের মন্তব্য অত্যন্ত ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ । হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর সরকার, গুরগাঁও প্রশাসন ও সংশ্লিষ্ট সকল গোষ্ঠীকে একসঙ্গে বসিয়ে, সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে আলোচনা চায়। যার মাধ্যমে সমস্যার সহজ সমাধানের পথ বেরিয়ে আসে। খট্টরের কথায়কারও অধিকার চর্চায় অন্য কেউ বাধা তৈরি করুক, তা কখনওই তাঁরা চান না, ‘কিন্তু যত দিন পর্যন্ত না শান্তিপূর্ণ সমাধানের সন্ধান মিলছে, তত দিন বাড়িতে বা ধর্মস্থানে নমাজ পড়তে হবে।’ সরকারি অনুমতি ছাড়া খোলা জায়গায় নমাজ বরদাস্ত করা হবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মিডিয়ার সঙ্গে এ প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে খট্টরের মন্তব্য, ‘আমরা পুলিসের সঙ্গেও কথা বলেছি। এই সমস্যার মীমাংসা প্রয়োজন। ধর্মীয়স্থানে যদি প্রার্থনার করা হয়, তাতে কোনও আপত্তি নেই। সেগুলি তো তৈরিই হয়েছে প্রার্থনার জন্য। কিন্তু খোলা জায়গায় তা চলতে দেওয়া উচিত নয়। প্রকাশ্য নমাজ পাঠের রেওয়াজ আমরা বরদাস্ত করব না।’

খট্টরের সংযোজন, দখল হয়ে থাকা ওয়াকফ সম্পত্তিগুলি বেদখল করা নিয়ে প্রশাসন সচেষ্ট হবে। সরকারি জমিতে মনাজ পাঠ নিয়ে ভীষণভাবেই আপত্তি তোলে হিন্দু সংগঠনগুলি। যাদের আপাতত সন্তুষ্ট রাখতেই চাইছেন খট্টর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.