জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননা! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমন মুম্বই আদালতের

Home দেশের মাটি জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননা! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমন মুম্বই আদালতের
জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননা! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমন মুম্বই আদালতের

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননার অভিযোগে এবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তলব করল মুম্বইয়ের এক নিম্ন আদালত। আগামী ২ মার্চ মুখ্যমন্ত্রীকে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে মুম্বইয়ের মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত।

উল্লেখ্য গতবছর ১ ডিসেম্বর মুম্বই সফরের সময় মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে জাতীয় সঙ্গীতের অবমাননার অভিযোগ তুলে মামলা দায়ের করেছিলেন এক বিজেপি নেতা। অভিযোগকারী অ্যাডভোকেট বিবেকানন্দ গুপ্তা মমতার বিরুদ্ধে, জাতীয় মর্যাদার অবমাননা প্রতিরোধ আইন,১৯৭১-এর ৩ ধারায় মামলা রুজু করেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই মুম্বইয়ের মাজগাঁওয়ের নগর দায়রা আদালত বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সমন জারি করেছে। আগামী ২ মার্চ মামলার পরবর্তী শুনানি। সেদিন মুখ্যমন্ত্রীকে আদালতে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

২০২৪ লোকসভা নির্বাচনের বিজেপি বিরোধী জোট গঠন এবং নাগরিক সমাজের সমর্থনের লক্ষ্যে গতবছর ডিসেম্বর মাসে মুম্বই সফরে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। বাণিজ্যনগরীতে বিশিষ্ট লেখক-কবি জাভেদ আখতার আহুত বিদ্বজ্জনদের সঙ্গে একটি আলোচনা সভায় অংশ নেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সভার প্রধান বক্তা ছিলেন তিনিই। সেই সভাতেই মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে জাতীয় সঙ্গীত অবমাননার অভিযোগ তুলেছিলেন স্থানীয় বিজেপি নেতা। গুপ্তার অভিযোগ ছিল, ‘ জাতীয় সঙ্গীত শুরুর সময় মমতা বসেই ছিলেন। পরে তিনি উঠে দাঁড়ান। এবং সেটি কয়েক লাইন গেয়ে সম্পূর্ণ করার আগেই থেমে যান।’ গুপ্তার দাবি তাঁর অভিযোগের সপক্ষে প্রমাণ, সেদিনের আলোচনা সভার ভাইরাল ভিডিও।আদালতে বিজেপি নেতা দাবি করেন, সাংবিধানিক পদে বসে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর দায়িত্ব নির্বাহ করেননি। মুম্বইয়ের বিজেপি নেতার সেই অভিযোগকে হাতিয়ার করে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতারাও সরব হন।

ম্যাজিস্ট্রেট পিআই মোকাশির পর্যবেক্ষণ, ‘আপাতভাবে আদালতে পেশ হওয়া সাক্ষ্য প্রমাণ, ভিডিও ক্লিপ এবং ইউটিউব লিঙ্ক থেকে মনে হচ্ছে অভিযুক্ত জাতীয় সঙ্গীত গাইতে শুরু করলেও মাঝপথে তা থামিয়ে সভাস্থল ছেড়ে চলে যান। যা দেখে প্রাথমিক ধারণায় বলাই যায়, অভিযুক্ত জাতীয় মর্যাদার অবমাননা প্রতিরোধ আইন,১৯৭১-এর ৩ ধারা মোতাবেক শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন। ’

যদিও, ঘটনার দিনই তৃণমূল নেত্রীর বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ দলের তরফে নস্যাৎ করা হয়। ঘাসফুল শিবিরের বক্তব্য ছিল, জাতীয় সঙ্গীত নিয়ে মমতার বিরুদ্ধে ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী জাতীয় সঙ্গীত গাননি। গানের শব্দ ধরে দেশের সংস্কৃতি এবং সংহতি বোঝানোর চেষ্টা করেছেন শুধু।

Leave a Reply

Your email address will not be published.