ডিজিটাল ইন্ডিয়ার বড় পদক্ষেপ, উত্তরাখণ্ডের ১২ হাজার গ্রামে পৌঁছল ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity)

ডিজিটাল ইন্ডিয়ার বড় পদক্ষেপ, উত্তরাখণ্ডের ১২ হাজার গ্রামে পৌঁছল ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity)

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) ভারত-চিন-নেপাল সীমান্তবর্তী এলাকার ১২,০০০ গ্রামে অবশেষে পৌঁছে গেল ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity)। কেন্দ্রীয় সরকারের টেলিযোগাযোগ মন্ত্রকের অন্তর্ভুক্ত ‘ভারতনেট’ (BharatNet) প্রকল্পের দ্বিতীয় ধাপে এই পরিষেবা গ্রামবাসীদের দেওয়া হচ্ছে। উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াত এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদের যৌথ পরিকল্পনায় এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে।

ভারতনেট প্রকল্প সাধারণ ভাবে ভারত ব্রডব্যান্ড নেটওয়ার্ক লিমিটেড (BBNL) নামেও পরিচিত। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল বিশেষত গ্রামগুলিতে ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity) পৌঁছে দিতে ন্যাশনাল অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্কের সাহায্যে ভারতনেট প্রকল্প চালু করে কেন্দ্রীয় সরকার। দেশজুড়ে প্রাথমিক ভাবে প্রায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার গ্রাম পঞ্চায়েত সহ ৬ লক্ষ ২৫ হাজার গ্রামে ইন্টারনেট পরিষেবা পৌঁছনোর লক্ষ্যে ২০১৪ সালে ভারতনেট প্রকল্প শুরু হয়। প্রথম ধাপে ২০১৭ সালের মধ্যে প্রায় ৩ লক্ষ গ্রামকে এই প্রকল্পের আওতায় আনা হয়। পরবর্তীতে ভারতনেট প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে ২০২৩ সালের ৩১ মার্চের লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে। যার মধ্যে অবশিষ্ট এলাকা গুলিকে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এই পরিকল্পনার ফলস্বরূপ ইন্টারনেট পরিষেবা পৌঁছেছে উত্তরাখণ্ডের গ্রাম গুলিতে। সুতরাং বলাই যায় ভারতনেট প্রকল্প ডিজিটাল ইন্ডিয়া গড়ার লক্ষ্যে ভারত সরকারের (a government-owned broadband infrastructure provider) এক অনন্য পদক্ষেপ।

উত্তরাখণ্ডের এই প্রত্যন্ত গ্রামগুলি সীমান্তবর্তী অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই দুর্গম এলাকা হিসেবে চিহ্নিত। সেই কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা একেবারেই অপ্রতুল ও আবহাওয়া জনিত কারণে পরিবহন ব্যবস্থাও উন্নত নয়। সেক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়ে টেলিযোগাযোগ পরিষেবা। বিশেষ করে কুমায়ুন অঞ্চলের অন্তর্গত পিথরগড় এলাকায় ব্যাঙ্ক, পোস্ট অফিস সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ পরিষেবা গুলি ভীষণ ভাবে ব্যাহত হচ্ছিল। ফলে অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছিলেন এই অঞ্চলের সাধারণ মানুষরা। অবশেষে ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity) মেলায় অনেকটাই স্বস্তিতে এলাকার গ্রামবাসীরা।

উত্তরপ্রদেশের তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের আধিকারিকরা জেলা প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে এলাকাগুলি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনের পর যে বিষয় গুলি উঠে আসে তা হল, পার্বত্য অঞ্চলের এই সীমান্তবর্তী গ্রামগুলিতে স্থানীয়রা প্রায়শই নিত্য প্রয়োজনীয় পরিষেবা গুলি থেকে বঞ্চিত হন। ফলে জীবন ও জীবিকার দিক থেকে পিছিয়ে পড়েন তাঁরা। দুর্বল ইন্টারনেট সংযোগের কারণে দৈনন্দিন গুরুত্বপূর্ণ ক্রিয়াকলাপ গুলিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সেই কারণে সীমান্তবর্তী গ্রামগুলিতে নেটওয়ার্ক সংযোগ বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেওয়ার পরিকল্পনা করেন।

আধিকারিকরা আরও জানিয়েছেন, এই উদ্যোগটি কেবলমাত্র প্রযুক্তিগত সমস্যাগুলি সমাধান করবে তাই নয়, এর পাশাপাশি উত্তরাখণ্ডের পার্বত্য অঞ্চলের অভিবাসন সমস্যাকে আটকাতেও সাহায্য করবে। আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সার্বিক ভাবে অনলাইন ব্যবস্থার উন্নতি ঘটলে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য পরিষেবা আরও উন্নত করা সম্ভব হবে। প্রসঙ্গত, করোনা পরবর্তী সময়ে অপরিহার্য হয়ে পড়েছে অনলাইন পড়াশোনা। দু বছর ধরে শিক্ষা ব্যবস্থা ব্যাহত হওয়ার কারণে বাধ্য হয়েই স্কুল গুলিকে ডিজিটাল শিক্ষা ব্যবস্থাকে বিকল্প হিসাবে মেনে নিতে হয়েছিল। তার জন্য উন্নত ইন্টারনেট পরিষেবা থাকা আবশ্যক। দেশের প্রত্যন্ত এলাকাগুলির বহু পড়ুয়া এই অসুবিধার কারণে গত দুবছরে পড়াশোনার সুযোগ হারিয়েছেন। ডিজিটাল উপায়ে পড়াশোনা চালানো তাদের কাছে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সরকারি পরিসংখ্যান বলছে, এদেশের মাত্র ৯% সরকারি স্কুলে ইন্টারনেট সংযোগ (Internet Connectivity) রয়েছে। এই পরিকাঠামো দিয়ে বিদ্যালয়ে কোনও ভাবেই ডিজিটাল শিক্ষা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। এই ঘাটতি পূরণে ভারতকে একটি শক্তিশালী ও সাশ্রয়ী সমাধান তৈরি করতে হবে। এই সমস্যা সমাধানে কেন্দ্রীয় সরকারের ভারতনেট প্রকল্প খুবই কার্যকরী হবে বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা।

উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী ত্রিবেন্দ্র সিং রাওয়াত এই প্রকল্প প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ভারতনেট প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে এই অঞ্চলগুলিকে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা অনেক আগেই নেওয়া হয়েছিল। প্রশাসনের তরফ থেকে কয়েকটি অনুমোদন বাকি থাকায় প্রকল্পটি রূপায়ণে কিছু সমস্যা হচ্ছিল। অবশেষে আর্থিক অনুমোদন ও অন্যান্য ছাড়পত্র পাওয়ার পর প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। ফাইবার অপটিক কেবলের সাহায্যে চারধাম সহ উত্তরাখণ্ডের গ্রামাঞ্চল গুলিতে ভারতনেটের মাধ্যমে উন্নত ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity) পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হয়েছে।

ভারতনেট প্রকল্পের বিষয়ে আরও বিশদে জানাতে গেলে বলা যায়, এই প্রকল্প হল বিশ্বের সবথেকে বড়ো গ্রামীণ ইন্টারনেট সংযোগ প্রোগ্রাম। ভারত সরকারের ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রকল্পের অন্তর্গত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি প্রজেক্ট হল এই ভারতনেট। দেশের আড়াই লক্ষ্য গ্রাম পঞ্চায়েতে হাই স্পিড ইন্টারনেট পরিষেবা (Internet Connectivity) পৌঁছে দিতে সাহায্য করবে এই ভারতনেট প্রকল্প। ভারত ব্রডব্যান্ড নেটওয়ার্ক (Broadband Network) লিমিটেডের মাধ্যমে দেশের সব গ্রাম পঞ্চায়েতে টেলি মেডিসিন, টেলি এডুকেশন, ই-হেলথ, ই-এন্টারটেইনমেন্ট ইত্যাদি বিভিন্ন পরিষেবা পৌঁছে দেওয়াই এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published.