‘প্রার্থী দিতে না পেরে অশান্তির নাটক’, বিজেপিকে বিঁধে শান্তির ভোটে সিলমোহর মমতার

Home কলকাতা ‘প্রার্থী দিতে না পেরে অশান্তির নাটক’, বিজেপিকে বিঁধে শান্তির ভোটে সিলমোহর মমতার
‘প্রার্থী দিতে না পেরে অশান্তির নাটক’, বিজেপিকে বিঁধে শান্তির ভোটে সিলমোহর মমতার

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: নিজেদের দৈন্যতা ঢাকতেই অশান্তির নাটক করা হচ্ছে বলে মনে করেন তৃণমূল নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর কথায়, কলকাতা পুরসভার সবক’টি ওয়ার্ডে প্রার্থী দিতে না পেরে অশান্তির নাটক করা হচ্ছে। রবিবার বিজেপি-র নাম না করে এই মন্তব্য করলেন মমতা। উল্লেখ করা যেতে পারে, পুরভোটে শাসকদলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ করেছে বিজেপি। তবে বিরোধী দলের সে দাবি নাকচ করে দিয়েছেন মমতা। তাঁর মতে, শান্তিপূর্ণ ভাবে কলকাতায় পুরভোট হয়েছে।

কলকাতা পুর নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পর্বের একেবারে শেষলগ্নে ভোট দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রবিবারের ভোট দেখে তিনি যে সন্তুষ্ট, তা গোপন করলেন না। মুখ্যমন্ত্রীর কথায়,‘আমি খুশি যে মানুষ শান্তিতে ভোট দিচ্ছেন। এটাই আমরা চাই। উৎসবের আবহেই ভোট হচ্ছে।’ এদিন ভবানীপুর মিত্র ইনস্টিটিউশনে ভোট দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ভ্রাতৃবধূ তথা ৭৩ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থী কাজরী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে মিত্র ইনস্টিটিউশনে ভোট দিতে আসেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই মিডিয়ার সামনে, পুরভোটে গন্ডগোলের যে অভিযোগ বিজেপি তুলেছে তা নস্যাৎ করেন। বিজেপি-কে খোঁচা দিয়ে তিনি বলেন, ‘কেউ যদি ১৪৪টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা না করতে পারে, তা হলে তাঁরা নাটক করবে। ওদের পাত্তা না দেওয়াই ভাল। আমি খুশি যে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। মানুষ শান্তিতে ভোট দিতে পেরেছেন। ভোট ভালই হচ্ছে’।

এদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভোট দিয়ে বেরিয়ে যাওয়ার পরই সেখানে চূড়ান্ত নাটকীয় পরিস্থিতি তৈরি হয়। ৭৩ নম্বর ওয়ার্ড থেকেই প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করে নিলেন সিপিএম প্রার্থী মধুমিতা দাস। মিত্র ইনস্টিটিউশনে এসে রিগিংয়ের অভিযোগ জানালেন তিনি। বাম প্রার্থীর অভিযোগ, ‘দুপুর ১টার পর থেকে বামফ্রন্টের সব এজেন্ট তুলে দেওয়া হয়। এরপরই দলে দলে ছেলে ঢোকে ছাপ্পা ভোট দিতে।’

এদিন দুপুর ২টোর কিছু পরে, ভবানীপুর মিত্র ইনস্টিটিউশনেই ভোট দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।সকাল থেকেই বিরোধীরা ভোটে অনিয়মের অভিযোগ তুলেছিলেন। তাঁদের কটাক্ষ করেই অভিষেকের বার্তা, ‘নাচতে না জানলে উঠোন বাঁকা।’  এর পরই তাঁর আশ্বাস, ‘কোনও অশান্তিতে তৃণমূল কর্মীদের যোগ পেলেন ভিডিও ফুটেজ সামনে আনুন, দলীয় স্তরে ব্যবস্থা নেবে দল।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.