রাজমিস্ত্রীদের সঙ্গে পালানো দুই বৌমাকে ঘরে তুলতে চায় না বালির শ্বশুরবাড়ি

Home রাজ্য রাজমিস্ত্রীদের সঙ্গে পালানো দুই বৌমাকে ঘরে তুলতে চায় না বালির শ্বশুরবাড়ি
রাজমিস্ত্রীদের সঙ্গে পালানো দুই বৌমাকে ঘরে তুলতে চায় না বালির শ্বশুরবাড়ি

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: মশালা বাণিজ্যিক ছবির জন্য একেবারে শাঁসালো গল্প।একইবাড়িতে দুই জা দুই যুবকের সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের জেরে ঘর ছাড়লেন।কিন্তু রিয়েল লাইফের এই গল্পের শেষটা দেখে কিন্তু হাসতে হাসতে বেরোতে পারবেন না,দর্শকদের রুমাল লাগবেই। কারণ পুলিসের হাতে ধরা পড়ে, দুই বধূ বালির শ্বশুরবাড়িতে ফিরে এলেও, বৌমাদের আর ঠাঁই দিতে চায় না কর্মকার পরিবার।দুই গৃহবধূকে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগে শেখর রায় ও শুভজিৎ দাসকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিস। দুই প্রেমিকের ঠিকানা হয়েছে শ্রীঘরে। আটক করা হয় দুই গৃহবধূ অনন্যা কর্মকার ও রিয়া কর্মকারকে।

এদিকে, ওই দুই গৃহবধূকে আর বাড়িতে গ্রহণ করতে নারাজ তাদের পরিবারের সদস্যরা। একমাত্র দুই গৃহবধূর সঙ্গে যাওয়া রিয়া কর্মকারের সাত বছরের ছেলে আয়ুশকেই তাঁরা বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যেতে চান।অনন্যার স্বামী পলাশ কর্মকার জানালেন, অনন্যা ও রিয়া যে কাণ্ড ঘটিয়েছে তাতে তাদের আর মেনে নিতে পারছেন না তাঁরা। আইনি পরামর্শ নিয়ে আয়ুশকে কাছে রাখার চিন্তাভাবনাও করছেন তাঁরা। সূত্রের খবর, স্বামীরা সময় না দেওয়ায় বাড়ি ছেড়ে রাজমিস্ত্রিদের হাত ধরে বেরিয়ে যান বলেই জানান ওই দুই বধূ।রাজমিস্ত্রি শেখরের সঙ্গে প্রেম হয় অনন্যার আর শুভজিতের সঙ্গিনী হয় রিয়া।

এদিন চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদের পর পুলিস জানায়, গত ১৫ ডিসেম্বর মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে শেখর ও শুভজিৎ দুই গৃহবধূকে নিয়ে গেলে তাদের পরিবারের লোকেরা বিষয়টি মেনে নেয়নি। এর পরই গত ১৭ ডিসেম্বর পাঁচ জন মুর্শিদাবাদ থেকে হাওড়া স্টেশনে এসে সেখান থেকে গীতাঞ্জলি এক্সপ্রেসে করে মুম্বইয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। সেখানে তিন দিন থাকার পর শেখর রায়ের বাড়ি থেকে তার পরিবারের তরফে ফের মুর্শিদাবাদে ফিরে যেতে বলা হয়।

১৫ ডিসেম্বর বেলা ১২টা নাগাদ শীতের পোশাক কেনাকাটা করতে বাড়ি থেকে বেরিয়েছিলেন বালির নিশ্চিন্দার বাসিন্দা অনন্যা কর্মকার, তাঁর জা রিয়া কর্মকার এবং রিয়ার সাত বছরের ছেলে আয়ুশ কর্মকার। এর পর থেকেই আর খোঁজ পাওয়া যায়নি তাঁদের। কর্মকার পরিবার থানায় নিখোঁজ ডায়েরি দায়ের করে। ঘটনার তদন্তে নামে পুলিস।

এই প্রেম কাহিনীর রহস্যভেদ আগেই করে দিয়েছিল পুলিস। নিখোঁজ দুই গৃহবধূর নাগাল পায় আসানসোল স্টেশন থেকে। সন্তান-সহ নিখোঁজ দুই গৃহবধূ এবং তাঁদের দুই প্রেমিককে হাতেনাতে ধরে ফেলে পুলিস।তাঁদের সকলকে সুস্থ অবস্থায় ফিরিয়ে আনে নিশ্চিন্দা থানার পুলিস।

পুলিস সূত্রে খবর, মুর্শিদাবাদের সুতি এলাকা থেকে কর্মকার পরিবারে রাজমিস্ত্রির কাজ করতে এসেছিলেন সুভাষ এবং শেখর। সে সময়ই তাঁদের দু’জনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে ওই দুই বধূর। মোবাইল ফোন না থাকায় প্রেমালাপে বিঘ্ন ঘটছিল। সুভাষ দুই জাকেই মোবাইন কিনে দেয়।

কিন্তু মুম্বই গিয়ে পকেট ক্রমশ ফাঁকা হতে থাকায় বাড়ি ফিরে আসার সিদ্ধান্ত। পুলিসের কাছে খবর ছিল মুম্বই থেকে এ রাজ্যে ফিরছেন তাঁরা। সেই মতো পুলিস অপেক্ষা করছিল আসানসোল স্টেশনে।বুধবার ভোরে দুই বধূ এবং তাঁদের প্রেমিকরা নামতেই তাঁদের আটক করা হয়। সেইদিন দুপুরেই গৃহবধূ ও তাঁদের দুই প্রেমিককে ফিরিয়ে আনে নিশ্চিন্দা থানার পুলিস।

Leave a Reply

Your email address will not be published.