তৃণমূলকে ‘সাম্প্রদায়িক’ অপবাদ দিয়ে দল ছাড়লেন গোয়ার প্রাক্তন বিধায়ক

Home দেশের মাটি তৃণমূলকে ‘সাম্প্রদায়িক’ অপবাদ দিয়ে দল ছাড়লেন গোয়ার প্রাক্তন বিধায়ক
তৃণমূলকে ‘সাম্প্রদায়িক’ অপবাদ দিয়ে দল ছাড়লেন গোয়ার প্রাক্তন বিধায়ক

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: লাভু মামলেদার, গোয়ার পোন্ডা আসনের প্রাক্তন বিধায়ক। সৈকত রাজ্যে তৃণমূল সংগঠন শক্তিশালী করার চেষ্টা শুরু মাত্রই, ভিনরাজ্যে শিকড় থাকা ঘাসফুল শিবিরে পা রেখেছিলেন।গত সেপ্টেম্বরেই গোয়ার প্রাক্তন বিধায়ক তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাম্প্রতিক গোয়া সফরের সময়েও লাভুকে তৃণমূলনেত্রীর সঙ্গেই দেখা গিয়েছে। কিন্তু আচমকাই শুক্রবার তিনি তৃণমূল ছাড়ার ঘোষণা করেছেন। একই সঙ্গে বাংলার শাসকদল গোয়ায় সাম্প্রদায়িক মনোভাব নিয়ে চলছে বলে অপবাদ দিয়েছেন।তৃণমূল ধর্মের ভিত্তিতে মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরি করছে বলেও অভিযোগ লাভুর। লাভুর সঙ্গে তৃণমূল ছাড়লেন আরও পাঁচজন।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে একটি চিঠি পাঠিয়ে দলত্যাগের সিদ্ধান্ত জানান লাভু। মমতাকে পাঠানো চিঠিতে লাভু প্রশান্ত কিশোরের সংস্থা আইপ্যাক নিয়েও অভিযোগ তুলেছেন। তাঁর দাবি, তৃণমূল যে সংস্থাকে গোয়ায় বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারের জন্য নিয়োগ করেছে সেই সংস্থা গোয়ার ভাবাবেগ বুঝতে অক্ষম। তাঁর আরও অভিযোগ, ঘাসফুল শিবিরের নীতির জেরে গোয়াবাসীর ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত লাগছে।

সম্প্রতি গোয়ায় মাহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টির (এমজিপি) হাত ধরেছে তৃণমূল। তা মোটেও ভাল চোখে দেখেননি প্রাক্তন বিধায়ক লাভু। এই পদক্ষেপকেই সাম্প্রদায়িক বলে অভিযোগ তুলেছেন লাভু। সে কারণেই দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত বলে মনে করা হচ্ছে। তাঁর দাবি, হিন্দু ভোটকে এমজিপি-র দিকে ঘোরাতে চাইছে তৃণমূল। নিজেরা ঘরে তুলতে চাইছে খ্রিস্টান ভোট। দলের এই অবস্থানকেই তিনি সাম্প্রদায়িক মনে করছেন। যে দল গোয়াবাসীর মধ্যে বিভাজন ঘটাতে চায়, গোয়ার অসাম্প্রদায়িক চরিত্র নষ্ট করতে চায়, তাদের সঙ্গে থাকতে চান না বলে জানিয়েছেন লাভু।

প্রসঙ্গত গত সেপ্টেম্বরে গোয়ার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা রাজ্যসভায় তৃণমূলের সাংসদ লুজিনহো ফেলেরিওর সঙ্গে তৃণমূলে যোগ দেন লাভু মামলেদার। পোন্ডার বিধায়ক লাভু এখন তৃণমূলের সঙ্গে এমজিপি-র ঘনিষ্ঠতায় ক্ষুব্ধ হলেও তিনি ওই দলের বিধায়ক ছিলেন ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত। শুক্রবার লাভুর ইস্তফা প্রসঙ্গে সাংসদ ফেলেইরো বলেন, ‘দল গোয়ায় নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে চলছে। সেই লক্ষ্যেই অবিচল থাকবে। কোনও ব্যক্তির সিদ্ধান্ত তাতে প্রভাব ফেলবে না।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.