‘চ্যাপ্টার ক্লোজড’, মমতার বার্তায় আপাত যুদ্ধ বিরতি তৃণমূলে

Home কলকাতা ‘চ্যাপ্টার ক্লোজড’, মমতার বার্তায় আপাত যুদ্ধ বিরতি তৃণমূলে
‘চ্যাপ্টার ক্লোজড’, মমতার বার্তায় আপাত যুদ্ধ বিরতি তৃণমূলে

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক : তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ‘কোভিড মডেল’ বিতর্কে সাময়িক ইতি টেনে দিল তৃণমূল। গত দু’দিন ধরে বিবৃতি যুদ্ধের পর শুক্রবার দলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ ট্যুইট করেন ‘চ্যাপ্টার ক্লোজড’। দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘এবিষয়ে যে বা যাঁরা বিবৃতি দিচ্ছেন, সকলকেই বলা হচ্ছে তা না করতে। কিছু বলার থাকলে দলে বলুন। দল বা সরকারের ভাবমূর্তির ক্ষতি হয়, এমন কোনও কাজ করা যাবে না।’ মহাসচিবের নির্দেশ মেনেই বির্তকে ইতি টেনেছেন সকলে।

ঘটনার সূত্রপাত গত বুধবার অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের করা ‘কোভিড মডেল’ মন্তব্যকে কেন্দ্র করে। ওই মন্তব্যকে ঘিরে অভিষেকের তীব্র সমালোচনা করেন শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘দলের সাধারণ সম্পাদকের কোনও ব্যক্তিগত মতামত থাকতে পারে না।’ কল্যাণের মন্তব্যের প্রতিবাদ করেন দলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। এরপরেই শুরু হয়ে যায় বিবৃতির লড়াই।

কল্যাণের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন আরামবাগের সাংসদ অপরূপা পোদ্দার। তিনি বলেন, ‘মুখ্য সচেতক হয়ে কল্যাণ কেন দলের সাধারণ সম্পাদকের সমালোচনা করবেন? উনি ঘরশত্রু বিভীষণ। উনি ইস্তফা দিন।’ অপরূপার মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেন লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়।

সুদীপবাবু অপরূপাকে মেসেজ পাঠিয়ে জানান, ‘কল্যাণের বিপক্ষে বলার জন্য তোমার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’ অপরূপা সঙ্গে সঙ্গেই সমস্ত বিষয়টি জানান অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সুত্রের খবর, এরপর অভিষেক সুদীপের কাছে জানতে চান কল্যাণ যখন তাঁর বিরুদ্ধে কথা বলছিলেন তখন সুদীপ চুপ ছিলেন কেন? এই প্রশ্নে অস্বস্তিতে পড়ে যান সুদীপ। ইতিমধ্যেই পার্থ চট্টোপাধ্যায় সকলকেই ফোন করে নির্দেশ দেন নতুন কোনও বিবৃতি দেওয়া চলবে না। কল্যাণের সেদিনের বক্তব্য ক্রমশ সামনে আসতে শুরু করে। জানা যায় শুধু অভিষেককে নয়, আইনজীবী সঞ্জয় বসুর বিরুদ্ধেও তোপ দেগেছেন কল্যাণ।

একই সময় দিল্লিতে একাধিক সাংসদ কল্যাণের ধারাবাহিক আপত্তিকর কাজ নিয়ে অলোচনা করেন। শ্রীরামপুরের বিধায়ক ডা.সুদীপ্ত রায় ট্যুইটে অভিষেককে সমর্থন করেন। সূত্রের খবর, বিকেলে কল্যাণের সাথে কুণালের দীর্ঘক্ষণ কথা হয়। সিদ্ধান্ত হয় ‘যুদ্ধ বিরতির’। কিন্তু, সন্ধ্যায় হঠাৎ দেখা যায় কল্যাণ শ্রীজাতর ‘তফাৎ শুধু শিরদাঁড়ায়’ কবিতার কয়েকটি লাইন ফেসবুকে পোস্ট করেছেন। অন্যদিকে কুণালও শিরদাঁড়া নিয়ে অন্য একটি কবিতা পোস্ট করেছেন তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্টে। তবে কারুর পোস্টেই কোনও রাজনৈতিক বার্তা ছিল না। এরপরে নাকি দু’জনের আবারও ফোনে কথা হয়। দলনেত্রীর বার্তা মেনে পরিস্থিতি এখনও ‘ক্লোজড চ্যাপ্টারের’ মধ্যেই আছে। শুক্রবার প্রকাশ্যে কোনও বাগ্-যুদ্ধ হয় নি। পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে দলীয় সুত্রের খবর।

Leave a Reply

Your email address will not be published.