দ্রুত ছড়াচ্ছে ওমিক্রন, মুম্বইয়ে বর্ষবরণের রাতে জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা

Home দেশের মাটি দ্রুত ছড়াচ্ছে ওমিক্রন, মুম্বইয়ে বর্ষবরণের রাতে জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা
দ্রুত ছড়াচ্ছে ওমিক্রন, মুম্বইয়ে বর্ষবরণের রাতে জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: দেশে ফের উর্ধ্বমুখী করোনা সংক্রমণের গ্রাফ। আর কোভিড-১৯ ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যাও ঝড়ের গতিতে বেড়ে চলেছে। তাই সাবধান এবং সতর্ক থাকতে ফিরে আসছে করোনাকালের নানা বিধিনিষেধ। দেশের মধ্যে সর্বাধিক সংক্রমণের খবর এসেছে মহারাষ্ট্র থেকে। ফলে উৎসব উদযাপনের ,সুযোগে ওমিক্রন যাতে নতুন করে অতিমারীর কারণ হয়ে না ওঠে, তার জন্য  বড়দিন বা বর্ষবরণের রাতে সবরকম জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা জারি হল।

দিল্লির পথে হেঁটেই, বৃহনমুম্বই মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন বা বিএমসি-র জারি করা নিষেধাজ্ঞায় বলা হয়েছে, খোলাই হোক বা বদ্ধ, যে কোনও জায়গায় আয়োজিত পার্টি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বা জমায়েত বাতিল করতে হবে।পাশাপাশি, শুক্রবারই নতুন করে করোনা বিধি জারি করেছে মহারাষ্ট্র সরকার, সেখানেও রাজ্যের যে কোনও কোথাও জমায়েতের উপরে নিষেধাজ্ঞা আরোপিত হয়েছে। প্রশাসনের নির্দেশ, যে ভাবেই হোক সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে হবে।

মুম্বইয়ের মিউনিসিপ্যাল কমিশনার আইএস চাহালের কথায়, ‘নতুন বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে খোলা বা বদ্ধ কোনও জায়গাতেই কোনও অনুষ্ঠান বা পার্টি করা যাবে না এ বারে। সেই মর্মে বিএম সি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।’ কমিশনার আরও জানিয়েছেন,‘মুম্বইয়ে চলতি সপ্তাহে করোনা সংক্রমিতের সংখ্যা আশঙ্কা বাড়িয়েছে, বিশেষ করে ভয় ধরাচ্ছে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট। ফলে প্রশাসনের কঠোর না হয়ে আর কোনও উপায় নেই। সেই কারনেই বর্ষশেষের উদযাপনে এত কড়া ব্যবস্থা।’

উৎসবের মরশুমে ভয় ধরাচ্ছে করোনার নয়া স্ট্রেন ‘ওমিক্রন’। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হল, ইতিমধ্যেই দেশের ১৭টি রাজ্যে ছড়িয়ে পড়েছে দ্রুত মিউটেড হওয়া শক্তিশালী এই ভ্যারিয়েন্ট। নয়া প্রজাতিতে আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে চারশোর গণ্ডি। একই সঙ্গে গত ২৪ ঘণ্টায় বাড়ল ভারতের কোভিড সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যাও।

শনিবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭ হাজার ১৮৯ জন। যা ষুক্রবারের তুলনায় খানিকটা বেশি। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে ওমিক্রন। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের রিপোর্ট বলছে, এখনও পর্যন্ত দেশে ওমিক্রন আক্রান্ত ৪১৫ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১১৫ জন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.