অবস্থান বিক্ষোভে কেজি ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ছাত্রছাত্রীরা! অফলাইন (offline exam) নয়, পরীক্ষা নিতে হবে অনলাইনেই!

অবস্থান বিক্ষোভে কেজি ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ছাত্রছাত্রীরা! অফলাইন (offline exam) নয়, পরীক্ষা নিতে হবে অনলাইনেই!

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: ‘সব ক্লাস গুগল মিটে, পরীক্ষা কেন বসে সিটে?’ এই স্লোগান তুলে বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর পৌর শহরের কেজি ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে বিক্ষোভ করলেন ছাত্র ছাত্রীরা। বিক্ষোভরত ছাত্র-ছাত্রীদের প্রশ্ন, এতদিন ক্লাস অনলাইনে হয়েছে পরীক্ষা কেন অফলাইনে (offline exam) হবে ?

করোনাকালে অনলাইনেই হয়েছে কলেজের সব ক্লাস। কিন্তু অফলাইনে (offline exam) পরীক্ষা নেওয়ার কথা ঘোষণা করতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন পড়ুয়ারা। বুধবার, অফলাইন পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে ছাত্র বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠল বিষ্ণুপুরের কে.জি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ চত্বর। সকাল থেকে এই বিক্ষোভের জেরে কলেজের স্বাভাবিক পঠনপাঠন ব্যাহত হয় বলে অভিযোগ করেছে কলেজ কর্তৃপক্ষ। মূলত কলেজের প্রথম ও পঞ্চম সেমিস্টারের পড়ুয়ারা এই দাবিতে সরব হয়েছে।

এই প্রসঙ্গে কলেজের অধ্যক্ষ তন্ময় ঘোষ বলেন যে কলেজে ‘ক্লাস টেস্ট’ চালু রয়েছে। কিন্তু কোনও কোনও পরীক্ষার্থী এদিনের পরীক্ষায় উপস্থিত ছিলেন বলেই জানিয়েছেন তিনি। পরীক্ষা বন্ধ করার লিখিত আবেদন পেয়েছেন বলেও জানান তম্ময়বাবু। উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেই পরীক্ষার ব্যবস্থা করা হয়েছিল বলেই জানিয়েছেন তিনি।

করোনা অতিমারির তৃতীয় ঢেউয়ের প্রকোপ কাটিয়ে ধীরে ধীরে ছন্দে ফিরছে গোটা দেশ। প্রায় একমাস বন্ধ থাকার পর, ফের একবার খুলেছে স্কুল-কলেজের দরজা। কিন্তু কলেজ খুলতেই পরীক্ষা নেওয়ার কথা ঘোষণা করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। তাতেই বেজায় চটেছেন পড়ুয়ারা।

করোনা অতিমারির দ্বিতীয় ঢেউ কাটিয়ে উঠে গত বছরের ১৬ নভেম্বর থেকে খোলা হয় স্কুল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের প্রকোপ দেখা দিতেই বছরের প্রথমেই বন্ধ করে দেওয়া হয় স্কুল কলেজ সহ বাকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি।

শুধু মাত্র কেজি ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটই নয়, অনেকে কলেজেই ছাত্রছাত্রীদের দাবি প্রায় একই রকম। অফলাইনে (offline exam) নয়, পরীক্ষা নিতে হবে অনলাইনেই। এমনই দাবি বাঁকুড়ার গভর্নমেন্ট পলিটেকনিক কলেজের ছাত্রছাত্রীদেরও। এদিন নিজেদের দাবি জানিয়ে ইন্টারন্যাল আসেসমেন্টের  অফলাইন পরীক্ষা বয়কট করলেন তাঁরা। এমনকি পরীক্ষা বয়কট করে কলেজের গেটে বিক্ষোভও দেখান। প্রসঙ্গত করোনার প্রভাবে গত দু’ বছর ধরে রাজ্যের অন্যান্য স্কুল কলেজগুলির পাশাপাশি বন্ধ ছিল পলিটেকনিক কলেজগুলিও। গত দু বছর ধরে কলেজ বন্ধ থাকলেও ক্লাস হয়েছে অনলাইনেই। কিন্তু ইন্টারনেট সমস্যার কারণে বহু পড়ুয়াই ক্লাস করতে পারেননি। এমনকি ছাত্র ছাত্রীদের দাবি অনলাইনে ক্লাস (online class) হলেও অনেক বিষয়েরই সিলেবাস শেষ হয়নি তাঁদের। এর মধ্যেই গত ৩ ফেব্রুয়ারি রাজ্য সরকারের নির্দেশে অন্যান্য স্কুল কলেজগুলির পাশাপাশি খুলে যায় পলিটেকনিক কলেজগুলিও।

এদিন বিক্ষোভরত পড়ুয়াদের দাবি কলেজ খোলার সঙ্গে সঙ্গেই কাউন্সিলের নির্দেশে পঞ্চম সেমিস্টারের ইন্টারন্যাল আসেসমেন্টের পরীক্ষার সূচী ঘোষণা করে দেয় কলেজ কর্তৃপক্ষ। তাঁদের আরও দাবি, এত দ্রুত পরীক্ষা ঘোষণা হওয়ায় কোনও রকম প্রস্তুতির সুযোগই পায়নি তাঁরা, বহু ছাত্রছাত্রী তো অনলাইন ক্লাসই (oline class) করতে পারেননি। পড়ুয়াদের দাবি যেহেতু দুবছর ধরে অনলাইন ক্লাস চলছে তাই পরীক্ষাও নিতে হবে অনলাইনেই। অফলাইন পরীক্ষা (offline exam) বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তাঁদের এই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে পড়ুয়ারা। তবে বিষয়টি নিয়ে পুরোপুরি মুখ খুলতে চাননি তাঁরা।

এই ব্যাপারে বিক্ষোভকারী এক ছাত্রী সৌমিতা লোহার বলেন, ‘আমাদের দাবি পরীক্ষা যেনো অনলাইনে হয়। কারণ আমাদের ৮০ শতাংশ সিলেবাস শেষ হয়েছে অনলাইনে, ফার্স্ট ইন্টারনালের আগে আমাদের বলা হয়েছিল অনলাইনে পরীক্ষা হবে। কিন্তু হঠাৎ করে পরীক্ষার চার সপ্তাহ আগে আমাদের বলা হচ্ছে পরীক্ষা হবে অফলাইনে (offline exam)। আমাদের অর্ধেক সিলেবাস শেষ হয়নি,ক্লাস হয়নি। এটা কীভাবে সম্ভব, কীভাবে আমরা পরীক্ষা দেব। আমরা পরীক্ষার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুত নই। সমস্ত ক্লাস যখন অনলাইনে হয়েছে তখন পরীক্ষাও অনলাইনেই নিতে হবে। তা ছাড়া আমাদের একটাও প্র্যাক্টিক্যাল ক্লাস হয়নি।’ অন্যদিকে আরেক ছাত্র অরিন্দম দের বক্তব্য, ‘ আমাদের আন্দোলন অনলাইন পরীক্ষার জন্য। কলেজ খোলা মাত্র হঠকারীতায় আমাদের পরীক্ষার নোটিশ ধরিয়ে দেওয়া হল। আমাদের অর্ধেক ক্লাসও হয়নি। ফলে আমাদের পক্ষে কীভাবে পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব। আমরা কলেজের বিরুদ্ধে নই, আমরা শুধু কাউন্সিলের কাছে জবাব চাই।’

অন্যদিকে, ক্লাস শুরু করলেও অফলাইনে পরীক্ষা (offline exam) দিতে একদমই রাজি নয় পুরুলিয়ার রঘুনাথপুর গভঃ পলেটেকনিক কলেজের তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষার্থীরা। অফলাইনের বদলে অনলাইন পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে পুরুলিয়ার রঘুনাথপুর গভঃ পলিটেকনিক কলেজে অবস্থান বিক্ষোভে তৃতীয় বর্ষের পড়ুয়ারা। মাত্র দশদিনের নোটিশে পড়ুয়াদের অফলাইন পরীক্ষা দেওয়ার নোটিশ জারি হতেই ছাত্রছাত্রীরা এর বিরোধিতা করতে শুরু করে। অফলাইন পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে ছাত্র বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে কলেজ চত্বর। সকাল থেকে এই বিক্ষোভের জেরে কলেজের স্বাভাবিক পঠনপাঠন ব্যহত হয় বলে অভিযোগ। জানুয়ারি মাসের পর থেকে প্রায় একমাস বন্ধ থাকার পর ফের একবার খুলেছে স্কুল-কলেজের দরজা। কিন্তু কলেজ খুলতেই পরীক্ষা নেওয়ার কথা ঘোষণা করে কলেজ কর্তৃপক্ষ। তাতেই ক্ষুব্ধ পড়ুয়ারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.