ভারতে ওমিক্রনের জাল বিস্তার, আক্রান্ত বেড়ে ৩৬, হদিশ মিলল অন্ধপ্রদেশ ও চণ্ডীগড়ের প্রথম রোগীর

Home দেশের মাটি ভারতে ওমিক্রনের জাল বিস্তার, আক্রান্ত বেড়ে ৩৬, হদিশ মিলল অন্ধপ্রদেশ ও চণ্ডীগড়ের প্রথম রোগীর
ভারতে ওমিক্রনের জাল বিস্তার, আক্রান্ত বেড়ে ৩৬, হদিশ মিলল অন্ধপ্রদেশ ও চণ্ডীগড়ের প্রথম রোগীর

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: ভারতে জাল বিস্তার করছে ওমিক্রন। এবার অন্ধ্রপ্রদেশ এবং চণ্ডীগড়েও ধরা পড়ল প্রথম ওমিক্রন সংক্রমণ। জানা গিয়েছে, আয়ারল্যন্ড থেকে অন্ধ্রপ্রদেশে আসা ৩৪ বছরের এক ব্যক্তির দেহে থাবা বসিয়েছে করোনাভাইরাসের এই নতুন স্ট্রেন। যদিও ওই ব্যক্তির দেহে করোনার কোনও উপসর্গ ছিল না। এদিকে চণ্ডীগড়েও ধরা পড়েছে ওমিক্রন। এখনো সর্বাধিক আক্রান্তের খোঁজ এসেছে মহারাষ্ট্র থেকেই। ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের এই নতুন ভেরিয়েন্টের জেরে সপ্তাহান্তে লকডাউন জারি হয়েছে মুম্বইয়ে। দেশে এই মুহূর্তে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ৩৬।

অন্ধ্রপ্রদেশের আক্রান্তের সম্পর্কে জানা গিয়েছে, ৩৪ বছরের ওই ব্যক্তি আয়ারল্যান্ড থেকে মুম্বই হয়ে বিশাখাপত্তনমে ফিরেছিলেন। ২৭ নভেম্বর তাঁর করোনা পরীক্ষা করা হয় এবং রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপরেই জিনোম পরীক্ষায় জন্য পাঠানো হয়। তখনই জানা যায় ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছেন তিনি। কিন্তু, তাঁর শরীরে সেভাবে কোনও উপসর্গ নেই। এমনকী, ১১ ডিসেম্বর তাঁর পুনরায় করোনা পরীক্ষা করা হয় এবং রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। অর্থাৎ বিশেষজ্ঞদের একাংশের বক্তব্য ছিল, ওমিক্রন সংক্রামক হলেও অত্যাধিক হানিকারক নয়।

এদিকে, চণ্ডীগড়েও এক ২০ বছরের যুবকের দেহে পাওয়া গিয়েছে ওমিক্রন। জানা গিয়েছে, ২২ নভেম্বর ইতালি থেকে ভারতে ফিরেছিলেন তিনি। ১ ডিসেম্বর তাঁর কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। ফাইজারের টিকার দু’টি ডোজ নিয়েছিলেন তিনি। রবিবার পুনরায় তাঁর করোনা টেস্ট করা হয়েছে এখনও অবশ্য রিপোর্ট হাতে আসেনি।

রবিবারই কর্নাটক থেকে তৃতীয় ওমিক্রন আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছে। ৩৪ বছরের এই ব্যক্তিও দক্ষিণ আফ্রিকা ফেরত। রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী কে সুধাকর জানিয়েছেন, সরকারি হাসপাতালে আক্রান্তের চিকিৎসা চলছে। এবং এই কয়েকদিনে যাঁরা যাঁরা আক্রান্তের সংস্পর্শে আসেন, তাঁদের সকলকে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়েছে।

উল্লেখ্য, শনিবার পর্যন্ত ভারতে ওমিক্রন আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৩৩ জন। এবার তা বেড়ে হল ৩৬। এই সংখ্যাটা আগামী দিনে বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছিলেন বিশেষজ্ঞরা। যদিও এই স্ট্রেন নিয়ে আতঙ্কের কোনও কারণ নেই বলে জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। হু-র দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার ডিরেক্টর ডক্টর পুনম ক্ষেত্রপালের মতে, ‘একটি নতুন ভেরিয়েন্ট সামনে আসার অর্থ কখনওই এই নয় যে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। তবে ওমিক্রনের জন্য পরিস্থিতি অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। এখনও মহামারী শেষ হয়নি। বিশ্বে এই মুহূর্তে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। ওমিক্রনের জেরে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আশঙ্কা থাকছে।’  তিনি আরও বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকায় ওমিক্রন সংক্রমণ বাড়ছে। কিন্তু, আমাদের আরও তথ্যের প্রয়োজন। ডেল্টা না ওমিক্রন কার শক্তি বেশি তা নিয়ে এখনও পর্যাপ্ত তথ্য হাতে এসে পৌঁছায়নি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.