লতাজির ভাইকে রেডিও থেকে বরখাস্ত করেছিল কংগ্রেস, সংসদে বললেন মোদি

Home দেশের মাটি লতাজির ভাইকে রেডিও থেকে বরখাস্ত করেছিল কংগ্রেস, সংসদে বললেন মোদি
লতাজির ভাইকে রেডিও থেকে বরখাস্ত করেছিল কংগ্রেস, সংসদে বললেন মোদি

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: সদ্য প্রয়াত হয়েছেন সুরসম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর। এবার তাঁর আবেগকে হাতিয়ার করে কংগ্রেসকে আক্রমণ শানালেন নরেন্দ্র মোদি। কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে বারবার ‘কণ্ঠরোধ’-এর যে অভিযোগ করেন কংগ্রেস নেতারা, এবার সুকৌশলে তাঁদের বিরুদ্ধেই সেই অস্ত্র প্রয়োগ করলেন প্রধানমন্ত্রী।মঙ্গলবার রাজ্যসভায় ‘বাকস্বাধীনতা রোধ করা’ প্রসঙ্গ টেনে আনেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি অভিযোগ করেন, লতা মঙ্গেশকরজির প্রয়াণে বর্তমানে শোকস্তব্ধ গোটা দেশ…এবার আপনাদের একটা কথা বলি শুনুন, গোয়াতে কংগ্রেস শাসন থাকাকালীন তাঁর ভাই হৃদয়নাথ মঙ্গেশকরকে অল ইন্ডিয়া রেডিও-র চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। কারণ, বীর সাভারকরের কবিতা পাঠ করেছিলেন তিনি।একই সঙ্গে প্রয়াত সঙ্গীতিশিল্পী কিশোর কুমার এবং গীতিকার মাজরুহ সুলতানপুরির প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি। নরেন্দ্র মোদির অভিযোগ, জরুরি অবস্থাকালে ইন্দিরা গান্ধীর সামনে নাথানত না করায় রেডিও-তে গান গাওয়া থেকে নিষিদ্ধ করা হয় কিশোর কুমারক। প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর সমালোচনা করায় ১৯৪৯ সালে জেলে যেতে হয় গীতিকার মাজরুহ সুলতানপুরিকে।

প্রধানমন্ত্রীর দাবি, পরিবার ছাড়া কংগ্রেস কিছুই ভাবতে পারে না। ‘রাজনীতিতে পরিবারতন্ত্র’ হল গণতন্ত্রের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। তিনি তুলে ধরলেন কংগ্রেস আমলে স্বাতীনতার অধিকার হরণের একাধিক প্রসঙ্গ। তার মধ্যে অন্যতম, প্রয়াত সুর-সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকররের ভাইকে অল ইন্ডিয়া রেডিও থেকে বরখাস্তের বিষয়টি। রাজ্যসভায় প্রধানমন্ত্রী জানান, বীর সাভারকারের উপর একটি কবিতা পাঠ করার জন্য লতা মঙ্গেশকরের ভাইকে অল ইন্ডিয়া রেডিও থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল কংগ্রেস জমানায়।রাজ্যসভায় রাষ্ট্রপতি ভাষণের উপর ‘মোশন অফ থ্যাংকস’ বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘যাঁরা ব্যক্তি স্বাধীনতার কথা বলেন, আমি এখন তাঁদের ইতিহাস প্রকাশ করছি। লতা মঙ্গেশকরের পরিবার অতীতে গোয়ায় থাকতেন। কিন্তু কংগ্রেস তাঁর পরিবারের সঙ্গে কেমন আচরণ করেছে তা দেশকে জানতে হবে। তাঁর ছোট ভাই হৃদয়নাথ মঙ্গেশকরকে অল ইন্ডিয়া রেডিও-র চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল। তাঁর দোষ ছিল যে, তিনি বীর সাভারকরের দেশপ্রেমের উপর একটি কবিতা পাঠ করেছিলেন।’নমোর সংযোজন, ‘এটাই আমপনাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা। কেবল হদয়নাথজির সঙ্গেই নয়, কংগ্রেস আমলে এ ধরণের বহু অবিচারের উদাহরণ রয়েছে। তালিকা বেশ লম্বা।’‘ভারতের নাইটেঙ্গেল’ লতা মঙ্গেশকর গত ৬ ফেব্রুয়ারি ৯২ বছর বয়সে মুম্বাইয়ের ব্রিচক্যান্ডি হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। শিল্পীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে শিবাজি পার্কে হাজির হয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ছিলেন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রের বহু বিশিষ্টরা। পূর্ণ রাষ্ট্রীয় সম্মানের সঙ্গে দাহ করা হয় লতা শিল্পীর নশ্বর দেহ।সোমবার রাজ্যসভায় জবাবি ভাষণে কংগ্রেসকে তুলোধনা করেন নরেন্দ্র মোদি। বিদ্রুপের সুরে তিনি বলেন, ‘ দেখে মনে হয়, কংগ্রেস ১০০ বছরেও ক্ষমতায় আসতে চায় না।’ পাল্টা প্রধানমন্ত্রীর মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেন অধীর চৌধুরী সহ কংগ্রেস সাংসদরা। আজ রাষ্ট্রপতির বক্তৃতার জবাবি ভাষণে তিনি জোর দিলেন করোনা মোকাবিলায় সরকারের ভূমিকা থেকে ৮০ কোটি পরিবারের জন্য বিনামূল্যে রেশনের বিষয়ে । ৭৫ বছরের জমে থাকা খামতি মেটাতে হবে। সরকারি সহায়তা মূল্যে ফসল ক্রয়ে রেকর্ড। এখন গরিবেরও পাকা ঘর। গরিবকেও লাখপতি বলা যায়। রাজ্যসভায় দাবি, দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। কাজে যেটুকু খামতি আছে, তা দূর করতে হবে। এরপরই তিনি দেশে অতিমারী পরিস্থিতির কথা তুলে ধরেন। বলেন ১০০ বছরে সবথেকে বড় অতিমারী করোনা। করোনা মোকাবিলায় ভারতের কাজের প্রশংসা করছে গোটা বিশ্ব। এই কৃতিত্ব একা সরকারের নয়, ১৩০ কোটি দেশবাসীর। ১০০ শতাংশ টিকাকরণের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। ১০০ শতাংশ টিকাকরণ আমাদের দায়িত্ব।

করোনা কালে দেশবাসীকে বিনামূল্যে রেশনের ব্যবস্থার কথা ঘোষণা করেছিল কেন্দ্র। প্রধানমন্ত্রীর দাবি, ৮০ কোটি পরিবারের জন্য বিনামূল্যে রেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। তিনি বলেন, এখন গরিবেরও পাকা ঘর হচ্ছে। সব গরিবকে এখন লাখপতি বলা যায়। ৫ কোটি পরিবারে পরিশ্রুত পানীয় জল সরবরাহ করা হয়। এছাড়াও কেন্দ্র কৃষকদের লকডাউনের আওতার বাইরে রাখার মতো সাহসী সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে দাবি করেন মোদি। তিনি আরও বলেন -‘স্টার্ট আপ প্রকল্পে বিশ্বে তৃতীয় স্থানে ভারত। জম্মু-কাশ্মীর হোক কিংবা ঝাড়খণ্ড উন্নয়নের গতি অব্যাহত। তাঁর সংযোজন, আজ আন্তর্জাতিক খেলাধূলার মঞ্চ থেকে পদক আনছে দেশ। তিনি আরও বলেন, আজকের দিনে অটলবিহারী বাজপেয়ীর কথা মনে পড়ছে খুব। তাঁর দাবি, সরকারি সহায়তা মূল্যে রেকর্ড পরিমাণ ফসল কেনা হয়েছে। মোদিকে পাল্টা আক্রমণ করতে ছাড়েনি কংগ্রেসও। কংগ্রেস সাংসদরাও বাক স্বাধীনতা নিয়ে মোদিকে চেপে ধরেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.