যুদ্ধ নয় কূটনৈতিক পথই সঠিক, রাষ্ট্রসংঘে (UN) ভোটদানে বিরত থেকেও ভারতের অবস্থান

Home বিদেশ-বিভূঁই যুদ্ধ নয় কূটনৈতিক পথই সঠিক, রাষ্ট্রসংঘে (UN) ভোটদানে বিরত থেকেও ভারতের অবস্থান
যুদ্ধ নয় কূটনৈতিক পথই সঠিক, রাষ্ট্রসংঘে (UN) ভোটদানে বিরত থেকেও ভারতের অবস্থান

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: সোমবার রাষ্ট্রসংঘে (United Nations) ইউক্রেন (Ukraine) নিয়ে ফের ভোটাভুটি, ফের বিরত থাকল ভারত। সোমবার রাষ্ট্রসংঘের (UN) হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলে জরুরি সভা বসেছিল। যেখানে রাশিয়াকে (Ruissia) যুদ্ধে বিরত থাকার প্রস্তাব দেওয়া হয়। ২৯ টি দেশ প্রস্তাবে পক্ষে অর্থাৎ ইউক্রেনের পক্ষে ভোট দেয়। ৫ টি দেশ বিরুদ্ধে ভোট দেয়। অন্যদিকে ১৩ টি দেশ ভোটদানে বিরত থাকে।

বিরোধের শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তি চায় ভারত। সোমবার ইউএনজিএ-র ১১ তম জরুরি অধিবেশন ডাকা হয়েছিল ইউক্রেন নিয়ে প্রস্তাব পাশ করাতে। রাষ্ট্রসংঘে (un) ভারতের (india)  স্থানীয় প্রতিনিধি টিএস তিরুমূর্তি সেখানে বলেন, ভারত এই বিরোধের শান্তিপূর্ণ নিষ্পত্তি চায়। এটাই ভারতের ধারাবাহিক অবস্থান বলেও বর্ণনা করেন তিনি। ভারতের প্রতিনিধি আরও বলেন, কূটনৈতিক পথে সমস্যার সমাধান ছাড়া সেখানে আর কোনও বিকল্প নেই। গত তিনদিনের মধ্যে এনিয়ে তৃতীয়বার ভারত (india) রাষ্ট্রসংঘে (un) তিনবার ভোটাভুটিতে বিরত থাকল। প্রথমে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এবং পরে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ সভায় ভারত ভোটদানে বিরত থাকে।

ইউক্রেন না টিকলে, আন্তর্জাতি শান্তি টিকবে না ১৯৯৭-এর পরে এই প্রথমবার রাষ্ট্রসংঘের (un) হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলে জরুরি সভা বসেছিল সোমবার। সেখানে বহু দেশের রাষ্ট্রদূত ইউক্রেনে রাশিয়ার (Russia) হামলা থেকে বিরত থাকার পক্ষে মত প্রকাশ করেন। ইউক্রেনের (ukraine)রাষ্ট্রদূত সার্গেই কিসলিয়েস সেখানে বলেন, ইউক্রেন না থাকলে আন্তর্জাতিক শান্তিও টিকবে না। যদি ইউক্রেন না বাঁচে তাহলে গণতন্ত্রের পতন হলেও কেউ আশ্চর্য হবে না। মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রাষ্ট্রসংঘের (un) মহাসচিবের অন্যদিকে রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতারেস বলেছেন, ইউক্রেনে রাশিয়ার (Russia) সামরিক অভিযানে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে। তিনি আরও জানিয়েছেন রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার নজরদারি কমিটি ইউক্রেনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সেখানে রাষ্ট্রসংঘের মানবিক কর্মসূচি আরও বাড়ানো হবে বলেও জানিয়েছেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব। শান্তি জন্য বন্দুক নয়, আলোচনার পথ খোলা রাখতে আহ্বান জানান তিনি। অবস্থান ব্যাখ্যা রাশিয়ার রাষ্ট্রসংঘে (un) রাশিয়ার (Russia) রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেছেন, নিদের দেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করে বলেছেন, পূর্ব ইউক্রেনের ২টি বিচ্ছিন্ন হওয়া অংশের নিরাপত্তা নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত এদিনই রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়ার কার্যকালের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত ক্যারোলিন শোয়ালগার বলেছেন, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ব্যর্থ হয়েছে। তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। সেই কারণে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ পরিপদকে দায়িত্ব পালনে এগিয়ে আসা উচিত।
রাশিয়ার (Russia) আক্রমণে ইউক্রেনের (Russia-Ukraine war) পরিস্থিতি নিয়ে আতঙ্কিত ভারত। অবিলম্বে যুদ্ধ বন্ধ করার আর্জি জানিয়েছে দেশ। ভারত, ইউক্রেনের অবনতিকর পরিস্থিতির জন্য গভীরভাবে উদ্বিগ্ন এবং অবিলম্বে যুদ্ধ বন্ধ করার এবং শত্রুতা শেষ করার আহ্বান করেছে। ভারতের মন্তব্য, দুই দেশের মধ্যে যা মতপার্থক্য শুধুমাত্র সৎ, আন্তরিক এবং মজবুত আলোচনার মাধ্যমে দূর করা যেতে পারে।

রাষ্ট্রসংঘে ভারতের (india) স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত টি এস তিরুমূর্তি সোমবার ইউক্রেনের উপর রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ পরিষদের একটি বিরল জরুরি অধিবেশনে (UNGA) বলেছেন যে,  নয়াদিল্লি এখনও ইউক্রেনে (ukraine) আটকা পড়া ভারতীয় নাগরিকদের অবিলম্বে এবং জরুরি ভিত্তিতে সরিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা করার জন্য যা যা করা যায় তা করছে। তিনি আরও বলেন, ভারত গভীরভাবে উদ্বিগ্ন যে ইউক্রেনের পরিস্থিতি ক্রমাগত অবনতির দিকে যাচ্ছে। আমরা অবিলম্বে হিংসা বন্ধ এবং শত্রুতা শেষ করার জন্য আমাদের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করছি।

তিনি বলেন, আমাদের সরকার দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে কূটনীতির পথে ফিরে আসা ছাড়া আর কোনও বিকল্প নেই। উল্লেখ্য যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী রাশিয়ান ফেডারেশন এবং ইউক্রেনের (ukraine) নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁর সাম্প্রতিক কথোপকথনে আলোচনার পথকেই সমর্থন করেছেন। তিরুমূর্তি বলেছেন, আমরা আমাদের দৃঢ় প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করছি যে সমস্ত মতপার্থক্য রয়েছে শুধুমাত্র সৎ, আন্তরিক এবং মজবুত আলোচনার মাধ্যমে দূর করা যেতে পারে।

তিনি বলেন, ইউক্রেনে একটি জরুরি ও চাপের অস্বাভাবিক পরিস্থিতি তৈরি হচ্ছে। এর আগেও ভারতের তরফে বলা হয়েছিল, ভারত এখনও ইউক্রেনে আটকা পড়া ভারতীয় নাগরিকদের অবিলম্বে এবং জরুরী সরিয়ে নেওয়ার জন্য যা যা করা যায় তা করছে। বিপুল সংখ্যক ছাত্র সহ ভারতীয় নাগরিকদের নিরাপত্তাই অগ্রাধিকার পাবে।’

এমনকী ভারত ইউক্রেনের সমস্ত প্রতিবেশী দেশগুলিকে ধন্যবাদ জানিয়েছে যারা ভারতীয় নাগরিকদের জন্য তাদের সীমান্ত খুলে দিয়েছে এবং ভারতীয় কমিশন এবং তাদের কর্মীদের ভারতে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য সমস্ত সুবিধা দিয়েছে।

পাল্টা রাশিয়া (Russia)জানায়, ইউক্রেন দখলের কোনও পরিকল্পনা তাদের নেই। রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব অ্যান্টনিও গুতারেস বলেন, বর্তমান পরিস্থিতির একমাত্র সমাধান শান্তি। আমরা সব পক্ষকে অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির আহ্বান জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে গুতারেস জানান, তিনি ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টকে আশ্বাস দিয়েছেন যে রাষ্ট্রপুঞ্জ তাঁদের সবরকম সহায়তা করবে।

 

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.