‘সরকার বাহবা পেতে চাইছে’, মোদি স্তুতিতে নারাজ ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়ারা (Ukraine to study)

Home দেশের মাটি ‘সরকার বাহবা পেতে চাইছে’, মোদি স্তুতিতে নারাজ ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়ারা (Ukraine to study)
‘সরকার বাহবা পেতে চাইছে’, মোদি স্তুতিতে নারাজ ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়ারা (Ukraine to study)

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: গত কয়েক দিন ধরে ইউক্রেনের ওপর রাশিয়ার (Russia) আক্রমণ নিয়ে তোলপাড় বিশ্ব রাজনীতি। ইউক্রেনে ঢুকে একের পর এক অংশ দখল করতে শুরু করেছে রাশিয়া। ক্রমশ কঠিন হচ্ছে ইউক্রেনের পরিস্থিতি। যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন থেকে নিজেদের দেশে ফিরছেন পড়ুয়ারা। এমতাবস্থায় ইউক্রেনে আটকে পড়া ভারতীয় পড়ুয়ারা (Ukraine to study) বায়ুসেনার একটি বিমানে করে দেশে ফিরে এলে এয়ারবেসে কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী (Union Minister) অজয় ভাটের একটি বক্তব্যে সৃষ্টি হলো এক নতুন বিতর্ক।

ঠিক কী বলেছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী? জানা গিয়েছে, আইএএফের একটি কার্গো বিমানে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইউক্রেন থেকে দেশে ফেরেন ভারতীয় পড়ুয়ারা (Indian Students)। কার্গো বিমানটি দিল্লির কাছে হিন্ডন এয়ারবেসে পৌঁছোলে তাঁদের সঙ্গে সাক্ষাত করতে আসেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী অজয় ভাট। সেখানেই নীল জ্যাকেট পরিহিত মন্ত্রীকে বলতে শোনা যায়, ‘আপনারা কোনও কিছু চিন্তা করবেন না। আপনাদের প্রাণ রক্ষা পেয়েছে মোদিজির কৃপায়। সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। চেঁচিয়ে বলুন মাননীয় নরেন্দ্র মোদিজি জিন্দাবাদ।’

অজয় ভাটের এই বক্তব্য ঘিরেই দানা বেঁধেছে বিতর্ক। একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে এই বিষয়টিকে কেন্দ্র করে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, বিমানের আসনে বসে থাকা ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়াদের (Ukraine to study) উদ্দেশে মন্ত্রী ‘ভারতমাতা’-র নামে জয়ধ্বনি দিতে বলেন (Bharat mata ki jay)। সঙ্গে সঙ্গে তাঁর সেই আবেদনে সাড়া দেন সব পড়ুয়াই। এরপরই অজয় ভাট ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়াদেরকে (Ukraine to study) ‘মোদি জিন্দাবাদ’ ধ্বনি দিতে বলেন। আর তাতে কার্যত বিপরীত প্রতিক্রিয়া দেখা দেয় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে। কয়েকজন পড়ুয়া নিমরাজি ভঙ্গিতে মোদির নামে জয়ধ্বনি দিলেও বেশিরভাগ ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়াই (Ukraine to study) চুপ ছিলেন।

অনেকে মনে করছেন, দেশের উদ্দেশে শ্রদ্ধা জানানো এবং দেশের প্রধানমন্ত্রীকে জয়ধ্বনি দেওয়া-এই দুইয়ের মধ্যে বিস্তর ফারাক হয়েছে। ইউক্রেন ফেরত পড়ুয়ারা (Ukraine to study) অবশ্য দাবি করেছেন, তাঁদের দেশে ফেরানোর কোনও উদ্যোগ না নিয়ে শুধুমাত্র বাহবা বা হাততালি কুড়োতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার। সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, ইউক্রেন ফেরত এক ছাত্রী (Ukraine to study) বলেছেন নিজেদের উদ্যোগে ও চেষ্টায় দেশে ফিরতে পেরেছেন তাঁরা। এতে সরকারের কোনও ভূমিকাই নেই। তাই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যখন তাঁদের ‘মোদি জিন্দাবাদ’ স্লোগান দিতে বলছিলেন, তখন সেই জয়ধ্বনি দেওয়া থেকে বিরত ছিলেন তাঁরা।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ একটি টেলিভিশন বার্তায় ইউক্রেন আক্রমণ করার কথা ঘোষণা করেছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ইউক্রেনের সেনাবাহিনীকে অস্ত্র ছাড়ার আবেদনও করেছিলেন তিনি। পুতিন স্পষ্টতই জানিয়ে দিয়েছিলেন যদি কোনও রক্তক্ষয় হয়, তবে তার সম্পূর্ণ দায় নিতে হবে ইউক্রেনকেই। পরে রাষ্ট্রপুঞ্জের জরুরি অধিবেশনে ইউক্রেনের প্রতিনিধি বলেন, এই পরিস্থিতিতে অস্ত্র সংবরণের কথা বলার সময় পেরিয়ে গিয়েছে। ইউক্রেনে বহু আগে থেকেই রাশিয়ার হামলা শুরু হয়ে গিয়েছে। তখন রাষ্ট্রপুঞ্জের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস পুতিনকে বাহিনী প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছিলেন। রাষ্ট্রপুঞ্জের জরুরি অধিবেশনে মহাসচিব বলেছিলেন, ‘প্রেসিডেন্ট পুতিন, আপনাকে অনুরোধ, দয়া করে আপনার বাহিনীকে আটকান। সেনা ফিরিয়ে নিন। দয়া করে শান্তি বজায় রাখুন।’ কিন্তু তাঁর কথায় কর্ণপাত করেননি রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। ইউক্রেনের একের পর অংশ দখল করছে তারা। থেমে থাকছে না ইউক্রেনও। রুশ আক্রমণের যোগ্য প্রতিরোধ গড়ে তুলছে তাঁরা। রাশিয়াকে যোগ্য জবাব দিয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদিমির জেলেনস্কি। আজ পুতিনের উদ্দেশে তিনি বলেছেন-‘সব হিসাব রাখছি। দেখা হলে মস্কোয় বিল পাঠিয়ে দেবো।’

কয়েকদিন আগে ইউক্রেনে বোমাবর্ষণে নিহত হয়েছেন ভারতীয় ছাত্র নবীন শেখরাপ্পা জ্ঞানগউধর। মৃত ওই ছাত্র ছিলেন কর্নাটকের হাভেরির বাসিন্দা। প্রিয় নবীনের মৃতদেহ একবার চোখে দেখার জন্য বাড়িতে অপেক্ষা করছেন তাঁর পরিবার। কিন্তু কর্নাটকের এক বিজেপি বিধায়কের বক্তব্যে সৃষ্টি হয়েছে বিতর্ক। ইউক্রেনে মৃত ছাত্রের দেহ দেশে ফিরিয়ে আনা প্রসঙ্গে হুবলি-ধারওয়াদ কেন্দ্রের বিজেপি বিধায়ক অরবিন্দ বেল্লাদ বলেছেন, ‘মৃতদেহ ফ্লাইটে বেশি জায়গা নেয়।’ এখানেই থামেননি তিনি। একটি কফিনের বদলে প্রায় আট-দশ জনকে বিমানে বসানো যেতে পারে, এমনটাই বক্তব্য তাঁর। জানা গিয়েছে, নবীনের মৃতদেহ কবে নাগাদ তার শহর হাভেরিতে ফিরিয়ে আনা হবে তাকে ঘিরে সৃষ্টি হওয়া অনিশ্চয়তা নিয়ে প্রশ্নের জবাবে এই কথা বলেন তিনি। যদিও তিনি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নবীনের মৃতদেহ দেশে ফেরানোর সর্বাত্মক চেষ্টা করছেন।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেনে রাশিয়ার হামলার পরই সেখানে আটক ভারতীয়দের দেশে ফেরাতে সচেষ্ট কেন্দ্র। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে আটকে থাকা ভারতীয়দের অধিকাংশই ডাক্তারির পড়ুয়া। তাঁদের দ্রুত দেশে ফেরানোর জন্য ইউক্রেন সংলগ্ন রোমানিয়া, স্লোভাকিয়ার মতো একাধিক দেশ থেকে বিমান ছাড়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই প্রায় ৮০ শতাংশ ভারতীয় পড়ুয়া ইউক্রেন ছেড়েছেন। তাঁদের একটা বড় অংশকে ইতিমধ্যেই দেশে ফেরানো হয়েছে। শুক্রবারই তিনটি বিমানে ৬০০-র বেশি পড়ুয়া ফিরে এসেছে দেশে। বাকিদেরও দ্রুত ফেরানোর পরিকল্পনা করা হচ্ছে, এমনটাই জানানো হয়েছে সরকারের তরফ থেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.