বইমেলায় (Kolkata International Book Fair) একাধিক বার পকেটমারি! অভিযুক্ত জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রী

Home আজব বইমেলায় (Kolkata International Book Fair) একাধিক বার পকেটমারি! অভিযুক্ত জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রী
বইমেলায় (Kolkata International Book Fair) একাধিক  বার পকেটমারি! অভিযুক্ত জনপ্রিয় বলিউড অভিনেত্রী

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক : বইমেলায় (International Book Fair) একের পর এক পকেটমারি। এটা নতুন কিছুই নয়, কিন্তু পকেটমার যদি হন কোনও বলিউড অভিনেত্রী! তাহলে চমকে উঠতে উঠবেন যে কেউ। অভিযুক্ত অভিনেত্রীর নাম রূপা দত্ত। না, এটা কোনও সিনেমার চিত্রনাট্য নয়, এমনটাই ঘটেছে বাস্তবে। কলকাতা বইমেলায় (Kolkata International Book Fair) পকেটমারির অভিযোগে আপাতত শ্রীঘরে পরিচিত বলিউড অভিনেত্রী। শনিবার কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা (Kolkata International Book Fair) থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করে বিধাননগর উত্তর থানার পুলিস।

কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলায় (Kolkata International Book Fair) টহল দিচ্ছিলেন পুলিশ কর্মীরা। হঠাৎ তাঁদের একজনের চোখে পড়ে, এক মহিলা একটি মানিব্যাগ ডাস্টবিনে ফেলে চলে যাচ্ছেন। এমন ঘটনা দেখে সন্দেহ হয় পুলিশ কর্মীদের। ওই মহিলাকে আটকান তাঁরা। কেন তিনি ব্যাগ ফেলে চলে যাচ্ছেন সেই বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিস। কোনও সদুত্তর দিতে পারেননি সন্দেহভাজন ওই মহিলা।

এর পর মহিলার ব্যাগ খুলে তল্লাশি চালানো হয়। দেখা যায়, তাঁর ব্যাগে রয়েছে একাধিক মানিব্যাগ। প্রচুর টাকাও থাকতে দেখা যায়। তখন জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই মহিলাকে বিধাননগর উত্তর থানায় নিয়ে আসা হয়। জেরার মুখে ভেঙে পড়েন তিনি। স্বীকার করেন সব অপরাধ। জানা যায় নাম পরিচয়। পুলিস সূত্রে খবর, ধৃত মহিলার নাম রূপা দত্ত। পেশায় একজন অভিনেত্রী (actress)। টলিউডের (Tollywood) একাধিক জনপ্রিয় সিনেমা এবং বলিউডের সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন তিনি। টেলিভিশনের পর্দায় বেশ পরিচিত এক মুখ। পুলিস ইতিমধ্যেই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে বইমেলাতে (Kolkata International Book Fair)পকেটমারির অভিযোগে মামলা রুজু করেছে উত্তর বিধাননগর থানার পুলিশ। রবিবার (১৩ মার্চ) তাকে আদালতে তোলা হবে।

পুলিশি জেরায় রূপা জানিয়েছেন, বিভিন্ন জনবহুল এলাকা, বইমেলা(book fair), অনুষ্ঠানে গিয়ে পকেটমারি করতেন তিনি। এদিনও সেই উদ্দেশে বইমেলায় (Kolkata Interational Book Fair) এসেছিলেন। তাঁর কাছ থেকে ৭৫ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ। মিলেছে একটি ডায়েরিও, যেখানে পকেটমারির হিসেব লেখা রয়েছে। কেন একজন অভিনেত্রী এমন কাজ করতেন, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। তবে পুলিশের অনুমান, রূপা একটি বড় চক্রের অংশ। তাঁকে জেরা করে সেই চক্রের মূল অভিযুক্তদের খোঁজ পেতে চাইছে পুলিস।

উল্লেখ্য, রূপা দত্তের জন্ম ও বড়ো হওয়া কলকাতায়। তিনি কলকাতার বেলতলা বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলেন। যোগমায়া দেবী কলেজ থেকে স্নাতক হন। এর পরই চলপ আসেন রুপলি পর্দায় (tollywood)। অভিনেত্রী (actress) রূপা দত্ত সিনেমা জগতে হাতেখড়ি করেন ২০০৫ সালে। তৎকালীন বাংলা ছবির উঠতি নায়ক জিতের বিপরীতে ‘সাথী’ সিনেমায় (Cinema) সাফল্যের সঙ্গে অভিয়ন করেন। তাঁর অভিনয় প্রশংসা কুড়িয়ে ছিল সমালোচক মহলের। এরপরই পাড়ি দেন মুম্বইয়। একাধিক সিরিয়ালে অভিনয় করেছেন তিনি। তবে জনপ্রিয় হন ‘জয় মা বৈষ্ণোদেবী’ ধারাবাহিকে অভিনয়ের জন্য। এই ধারাবাহিকে মুখ্য চরিত্রে দেখা যায় অভিনেত্রীকে। ২০১৮ হিন্দি ছবি ‘গুড নাইট সিটিতেও’ অভিনয় করেন তিনি। এছাড়া, ২০১৯ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘রূপা দত্ত অভিনয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান’।

অভিনয়ে দুর্দান্ত না হলেও, বেশ সফল ছিলেন রূপা। তারপরেও পকেটমারির মত অপরাধের সঙ্গে তিনি কিভাবে জড়িয়ে পড়লেন তা নিয়ে ধন্দে পড়েছেন অনেকেই। তবে, এবারেই প্রথম নয়। এর আগেও একাধিকবার বিতর্কে জড়িয়েছিলেন রূপা দত্ত। কার্ণি সেনার প্রেসিডেন্ট হিসাবে পরিচয় দিয়েই বিতর্কে জড়িয়েছিলেন তিনি। তার থেকেও রয়েছে আরও এক বড় ঘটনার অভিযোগ। ২০১৪ সালে অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ এনেছিলেন এই অভিনেত্রী। একটি টেক্সট মেসেজ দেখিয়ে তিনি এই অভিযোগ তুলেছিলেন। খোদ চিত্র পরিচালক অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে ‘যৌন হেনস্থা’র মিথ্যা অভিযোগ তুলেছিলেন। সে খবর প্রকাশ্যে আসতেই তোলপাড় হয়েছিল অভিনয় জগত। ঘটনাটি ঘটে ২০২০ সালে। সেইময় পায়েল ঘোষ অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ তুলেছিলেন। পায়েলের পাশে দাঁড়িয়ে সেসময় অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ তুলেছিলেন রূপা দত্ত। তিনি অভিযোগ করেছিলেন, অনুরাগ কাশ্যপ ফেসবুকে একাধিক আপত্তিকর মেসেজ পাঠিয়েছিলেন তাঁকে। তাঁর অভিযোগ ঘিরেও সরগরম হয় অভিনয় জগত। রূপা দত্ত দাবি করেছিলেন, ফেসবুকেই অনুরাগ কাশ্যপের সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল তাঁর। আর তারপর অনুরাগ একাধিকবার ইঙ্গিতপূর্ণ মেসেজ করেছিলেন তাঁকে। ন্যাশনাল চ্যানেলে সাংবাদিক সাক্ষাৎকারে বিস্ফোরক অভিযোগ করেছিলেন রূপা দত্ত। এমনকি মহেশ ভট্টের বিরুদ্ধেও একই ধরনের অভিযোগ তুলেছিলেন তিনি। মহেশ ভট্টও নাকি তাঁকে এই ধরনের মেসেজ পাঠিয়েছিলেন ফেসবুকে, যার অন্য কিছু মানে দাঁড়াও। যদিও পরবর্তী ক্ষেত্রে দেখা যায়, অনুরাগ কাশ্যপের বিরুদ্ধে তোলা তাঁর অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা। দেখা যায়, অনুরাগ সফর নামে এক ব্যক্তির চ্যাট স্ক্রিন শট করে তুলে ধরেছিলেন রূপা দত্ত। সেই অনুরাগ সফর আবার আয়ারল্যান্ডের বাসিন্দা। তিনিও ফেসবুকে পোস্ট করে জানান, তাঁকে অনুরাগ কাশ্যপ বলে ভারতের ন্যাশনাল মিডিয়াগুলোতে দেখানো হচ্ছে। তিনি আদতে অনুরাগ কাশ্যপ নন। একাধিকবার বিতর্কে জড়ানো এই অভিনেত্রী টেলিউডের একাধিক সিরিয়ালে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকাতেও অভিনয় করেছেন। কিন্তু তা বলে কি ছিনতাইবাজদের নিয়ে দল গড়েছেন তিনি? এবার সেই প্রশ্নও উঠছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.