‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ (The Kashmir Files) কর মুক্ত হলে, আমরা কেন? প্রশ্ন ‘ঝুণ্ডের’ প্রযোজকের

Home অ‘‌সাধারণ’ ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ (The Kashmir Files) কর মুক্ত হলে, আমরা কেন? প্রশ্ন ‘ঝুণ্ডের’ প্রযোজকের
‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস’ (The Kashmir Files) কর মুক্ত হলে, আমরা কেন? প্রশ্ন ‘ঝুণ্ডের’ প্রযোজকের

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক : ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস'(The Kashmir Files) যদি কর মুক্ত হয় তাহলে ‘ঝুণ্ড’ নয় কেন? সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বিতর্কিত প্রশ্ন তুললেন অমিতাভ বচ্চন অভিনিত ‘ঝুণ্ড’ ছবির অন্যতম প্রোডিউসার সবিতা রাজ হীরেমথ। তাঁর বক্তব্য কাশ্মীর ফাইলস যদি দেশের জন্য মূল্যবান সিনেমা হয় তাহলে ‘ঝুণ্ড’ ও সমান গুরুত্বপূর্ণ।

ঐতিহাসিক সিনেমা ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস'(The Kashmir Files) মুক্তি পেয়েছে চলতি মাসের ১১ তারিখে। সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার আগে থেকেই দর্শকদের মধ্যে প্রবল উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছিল। সিনেমাটি নিয়ে মানুষের প্রত্যাশা ছিল আকাশছোঁয়া। আর সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে অনেকটাই সফল ডিরেক্টর বিবেক অগ্নিহোত্রি। সিনেমাটি মুক্তির পর থেকেই দর্শকদের মধ্যে উৎসাহ দেখা যাচ্ছে। এর মধ্যেই ছবির প্রোডাকশন টিমের জন্যে এলো দারুণ সুখবর। সর্ব প্রথম হরিয়ানা সরকার হরিয়ানা রাজ্যে ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস (The Kashmir Files)সিনেমাটিকে করমুক্ত (Tax free) ঘোষণা করে। এরপরেই সিনেমাটির সমস্ত কর ছাড় দেওয়া হল মধ্যপ্রদেশেও। মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহান সম্প্রতি এই নতুন সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। এই প্রসঙ্গে একটি টুইটও করেছেন তিনি। সেখানে তিনি লেখেন, ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস(The Kashmir Files) ছবিটি কাশ্মীরি হিন্দুদের বেদনা, কষ্ট, সংগ্রাম এবং মানসিক আঘাতের একটি হৃদয়বিদারক গল্প নিয়ে তৈরি। এই ছবিটি আরও বেশি সংখ্যক মানুষের দেখা উচিত। তাই আমরা মধ্যপ্রদেশ রাজ্যে এটিকে করমুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’ তাঁর এই সিদ্ধান্ত নিয়ে ইতিমধ্যেই জোর চর্চা শুরু হয়েছে গিয়েছে দেশের রাজনৈতিক মহলের অন্দরেও। এক্ষেত্রে মনে রাখা ভালো মধ্যপ্রদেশেও বিপুল সংখ্যক কাশ্মীরি পণ্ডিত বাস করে। এই সমস্ত মানুষেরা উপত্যকায় নৃশংসতার পর কাশ্মীর ছেড়ে এখানে বসতি স্থাপন করেন। এর সঙ্গে ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলসে'(The Kashmir Files) রয়েছে অনুপম খেরের (Anupam Kher) অসাধরন অভিনয়। বিজেপি বিধায়ক রামেশ্বর শর্মাও কাশ্মীরি পণ্ডিতদের সঙ্গে ছবিটি দেখবেন বলে জানা যাচ্ছে। এই প্রসঙ্গে তাঁর দাবি, এই ছবিটি প্রতিটি ব্যক্তির দেখা উচিত যাতে মানুষ বুঝতে পারে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের প্রতি কীভাবে অবিচার করা হয়েছে।এই দুটি রাজ্য ছাড়াও উত্তর প্রদেশ, গোয়া, ত্রিপুরা, কর্নাটক, হরিয়ানা, গুজরাট, উত্তরাখন্ড এই ছবিটিকে কর মুক্ত ঘোষনা করেছে।  সম্প্রতি এই ছবির পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রী এবং প্রযোজক। অভিষেক আগরওয়ালও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পরে, অভিষেক বলেছিলেন যে কাশ্মীর গণহত্যার সময় কাশ্মীরি পণ্ডিতদের দেশত্যাগের উপর একটি চলচ্চিত্র তৈরি করার সুযোগ পেয়ে তিনি ধন্য মনে করছেন নিজেকে। এই ক্ষেত্রে মনে রাখা ভালো মধ্যপ্রদেশেও বিপুল সংখ্যক কাশ্মীরি পণ্ডিত বাস করে। এই সমস্ত মানুষেরা উপত্যকায় নৃশংসতার পর কাশ্মীর ছেড়ে এখানে বসতি স্থাপন করেন। বিজেপি বিধায়ক রামেশ্বর শর্মাও কাশ্মীরি পণ্ডিতদের সঙ্গে ছবিটি দেখবেন বলে জানা যাচ্ছে। এই প্রসঙ্গে তাঁর দাবি, এই ছবিটি প্রতিটি ব্যক্তির দেখা উচিত যাতে মানুষ বুঝতে পারে কাশ্মীরি পণ্ডিতদের প্রতি কীভাবে অবিচার করা হয়েছে। সম্প্রতি এই ছবির পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রী এবং প্রযোজক অভিষেক আগরওয়ালও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পরে, অভিষেক বলেছিলেন যে কাশ্মীর গণহত্যার সময় কাশ্মীরি পণ্ডিতদের দেশত্যাগের উপর একটি চলচ্চিত্র তৈরি করার সুযোগ পেয়ে তিনি ধন্য মনে করছেন নিজেকে।

 

কিন্তু ‘ঝুণ্ড’ ছবির প্রযোজক মনে করেন ‘দ্য কাশ্মীর ফাইলস'(The Kashmir Files) যদি কর মুক্ত (Tax Free) হয় তাহলে তাঁদের ছবিও কর মুক্ত হওয়ার দাবি রাখে। কী আছে এই ছবিতে? বয়স আশি ছুঁই ছুঁই। কিন্তু রুপোলি পর্দায় সেই বয়সকেই যেন টেক্কা দিলেন তিনি। ‘ঝুণ্ড’ (Jhund) ছবিতে অমিতাভ বচ্চন (Amitabh Bachchan) আবারও বুঝিয়ে দিলেন কেন তিনি বিগ বি। তাঁর অভিনয়ের ক্যারিশমা দেখতেই এখন মুখিয়ে আছেন বলিউডের (Bollywood) দর্শকরা। মুক্তির আগেই অমিতাভের এই ছবিকে দরাজ সার্টিফিকেট দিলেন দক্ষিণী অভিনেতা ধনুশ (Dhanush)।টি-সিরিজের ইউটিউব চ্যানেলে ‘ঝুণ্ড’ ছবির একটি রিভিউ দিয়েছেন ধনুশ। ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে ৪ মার্চ। নাগরাজ মঞ্জুলে পরিচালিত ছবিতে অমিতাভ বচ্চনের অভিনয়ে তিনি কতটা মুগ্ধ সে কথাই বারবার বলেছেন ধনুশ। তাঁর কথায়, আমি জানি না কোত্থেকে শুরু করব। জাস্ট অসাধারণ। নাগরাজ মঞ্জুলে দুর্দান্ত। আমি এই ছবির অনেকগুলো টেকনিক্যাল চমক দেখিয়ে দিতে পারি যেগুলোর কোনও তুলনা হয় না। দিনের শেষে এই ছবি হল একটা আবেগ যা বাকি সব কিছুকে ছাপিয়ে যায়। এটা একটা মাস্টারপিস। আমি এই ছবিটা দেখে খুবই খুশি হয়েছি।

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার থেকে পরিচালক, রাতুলের ‘ইকির মিকির’ ভিন্নধারার থ্রিলার এরপরই শুরু হয় রজনীকান্তের প্রাক্তন জামাইয়ের অমিতাভ-বন্দনা (Amitabh Bachchan)। তিনি বলেন, অমিতজি দুরন্ত কাজ করেছেন এই ছবিতে। আমি নাগরাজ মঞ্জুলেকে ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাদের এমন একটা ছবি উপহার দেওয়ার জন্য। ঝুণ্ড’ ফুটবলের গল্প বলে। এদেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ফুটবলকেই কুড়িয়ে জড়ো করেছেন পরিচালক। তারপর অমিতাভ বচ্চনের কাঁধে তুলে দিয়েছেন সেই কুড়োনো ফুটবল দিয়ে স্বপ্ন আঁকার ভার।ছবির ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে বেশ কিছুদিন আগে। ইতিমধ্যে তা নিয়ে নানা মহলে চর্চা চলছে। এই ছবিতে অমিতাভ বচ্চনকে দেখা যাচ্ছে ‘স্লাম সসার্স’ নামের একটি এনজিওর প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে। বস্তির ছোট বড় ছেলেমেয়েদের নিয়ে তিনি গড়ে তুলতে চান একটা আস্ত ফুটবল টিম, একসময় যা গোটা দেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। কিন্তু বস্তির জীবন অসামাজিকতার অন্ধকারে ঢাকা। সেই আঁধারে আলো ফেলতে চেয়ে একলা ছুটে মরেন কোচ বিজয় বরসে (অমিতাভ বচ্চন)। শেষমেশ কী হয়, ফুটবলের পায়ে পায়ে আঁধার ঘুঁচে আলো ফোটে কিনা তা দেখার জন্য মুখিয়ে আছেন বচ্চন ভক্তরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.