‘দেশবিরোধী (Anti-National) কাজ করবো না’, নয়ডার বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে গেলে দিতে হবে মুচলেকা !

Home দেশের মাটি ‘দেশবিরোধী (Anti-National) কাজ করবো না’, নয়ডার বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে গেলে দিতে হবে মুচলেকা !
‘দেশবিরোধী (Anti-National) কাজ করবো না’, নয়ডার বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে গেলে দিতে হবে মুচলেকা !

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের গ্রেটার নয়ডায় (Greater Noida) অবস্থিত বেনেট বিশ্ববিদ্যালয় (Bennet University)। টাইমস গোষ্ঠীর মালিক বেনেট কোলম্যান অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড সংস্থার মালিকানাধীন এই বিশ্ববিদ্যালয়ে এবার নতুন নিয়ম চালু হলো। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, এবার থেকে যে সমস্ত ছাত্রছাত্রীরা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবেন, তাদের অভিভাবকদের একটি অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকায় স্বাক্ষর করতে হবে। সেই অঙ্গীকারপত্রে লেখা থাকবে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ও তার বাইরে ওই অভিভাবকদের সন্তানরা কোনভাবেই ‘দেশদ্রোহীমূলক’ (Anti-National) কোনও কাজে যুক্ত হতে পারবেন না। শুধু তাই নয়, মুচলেকায় লেখা রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন ছাত্রছাত্রীরা কোনও ‘অসামাজিক কার্যকলাপে’ অংশগ্রহণ করতে পারবে না এবং ওই কাজের সমর্থন বা প্রচারেও অংশগ্রহণ করবে না।

স্বাভাবিকভাবেই বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ঘোষণার পর বিষয়টি নিয়ে শুরু হয়েছে বিতর্ক। জানা গিয়েছে, মুচলেকায় সংজ্ঞায়িত ‘দেশবিরোধী’ (Anti-National) কার্যকলাপগুলির মধ্যে অন্যতম হলো কোনও ‘বেআইনি সমাবেশ বা প্রতিবাদে অংশগ্রহণ’। গত ১৪ মার্চ সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ২৫০০ ছাত্রছাত্রীকেই ই-মেইল করে এই অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকাটি পাঠানো হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফ থেকে অবশ্য জানানো হয়েছে, তারা নিজেরা এই বিষয়ে কোনও উদ্যোগ নেয়নি বরং উত্তরপ্রদেশ সরকারের নির্দেশ মেনেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার, অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল গুলজিৎ সিং চাড্ডা জানিয়েছেন, এটি রাজ্য সরকারের একটি বিধিবদ্ধ প্রয়োজনীয়তা।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের জুন মাসে উত্তরপ্রদেশে যোগী আদিত্যনাথের (Yogi Adityanath) মন্ত্রিসভায় এই বিষয়ে একটি আইন পাস হয়েছিল। তাতে বলা হয়েছিল, উত্তরপ্রদেশে তৈরি হওয়া নতুন ও বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়গুলির তরফ থেকে ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের একটি অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকায় স্বাক্ষর করিয়ে নেওয়া হবে। এই অঙ্গীকারপত্রে ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের এই মর্মে স্বাক্ষর করতে হবে যে তাদের সন্তানরা কোনরকম দেশবিরোধী (Anti-National) কার্যকলাপের সঙ্গে যুক্ত থাকবে না।

ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের এই অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকায় স্বাক্ষর করাকে কেন্দ্র করে দানা বেঁধেছে বিতর্ক। বলা হচ্ছে, উত্তরপ্রদেশ মন্ত্রিসভায় পাস হওয়া আইন অনুসারে, রাজ্য সরকার (UP state government) শুধুমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হতে বলেছিল, এবং তাদের অভিভাবকদের নয়। তাহলে এখন কেন ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকায় স্বাক্ষর করানো হচ্ছে? এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার কর্নেল চাড্ডা জানিয়েছেন, ছাত্রছাত্রীরা এবং তাদের অভিভাবকেরা অঙ্গীকারবদ্ধ না হলে রাজ্য সরকারের নিয়ম পালন করা সম্ভব নয়। তাই সরকারী নিয়ম পালন করতে সর্বপ্রথমে ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদেরই মুচলেকায় স্বাক্ষর করানো উচিত। ছাত্রছাত্রীদের ভর্তির সময় তাদের অভিভাবকেরা নিয়ম মেনে মুচলেকায় স্বাক্ষর করলে তবেই সরকারী নির্দেশ পালন করা সম্ভব হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশ অনুসারে, মোট পাঁচ ধরনের কাজকে ‘দেশবিরোধী (Anti-National) কার্যকলাপ’ বলা হয়েছে। সেগুলি হলো-

ক) যেকোনও বেআইনি কার্যকলাপ, যা রাষ্ট্র বা অন্যান্য মানুষের বিরুদ্ধে হিংসা সৃষ্টি করতে পারে বা উস্কে দিতে পারে, তার অংশ হওয়া।

খ) কোনো বেআইনি চিন্তা বা কাজ, যা ভারতের কোনও অঞ্চলকে বিচ্ছিন্নতার দিকে পরিচালিত করে বা ভারতের জাতীয় স্বার্থের বিরোধী কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ।

গ) যে কোনও কার্যকলাপ, যা ভারতের সার্বভৌমত্ব বা অখণ্ডতা এবং একতাকে অস্বীকার করে, প্রশ্ন করে, হুমকি দেয় বা ব্যাহত করে।

ঘ) যে কোনো বেআইনি কার্যকলাপ, যা সরকারকে জোরপূর্বক উৎখাত করা, অভ্যন্তরীণ শান্তি বিঘ্নিত করা বা জনসেবা ব্যাহত করা এবং আঞ্চলিক গোষ্ঠী বা বর্ণ বা সম্প্রদায়ের মধ্যে শান্তি, নিরাপত্তা, জনশৃঙ্খলা, সম্প্রীতি ব্যাহত করার উদ্দেশ্যে করা।

ঙ) যেকোনো বেআইনি সমাবেশ বা প্রতিবাদে অংশগ্রহণ করা এবং তার প্রচার করা।

বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও পড়ুয়া উপরিউক্ত পাঁচ ধরনের দেশবিরোধী (Anti-National) কার্যকলাপে জড়িত থাকলে বা তাকে সমর্থন করলে তা ‘বড় মাপের লঙ্ঘন’ হিসাবে বিবেচিত হবে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এই ধরনের কাজের সঙ্গে কোনও ছাত্রছাত্রী যুক্ত থাকলে, তাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবিলম্বে বহিষ্কার পর্যন্ত করা হতে পারে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তারা আরও জানিয়েছে, যে কোনও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কাছে এই ধরনের কার্যকলাপের কথা রিপোর্ট করার অধিকার রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের। আর শুধু নিজে ব্যক্তিগতভাবে দেশ বিরোধী (Anti-National) কাজে যুক্ত না থাকলেই হবে না, যদি কেউ অন্য কোনও ছাত্র বা অধ্যাপককেও দেশবিরোধী কার্যকলাপে লিপ্ত থাকতে দেখেন, তবে তাও অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের নজরে আনতে হবে। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। সব মিলিয়ে, ছাত্রছাত্রীদের অভিভাবকদের এই ধরনের অঙ্গীকারপত্র বা মুচলেকাতে সই করানোকে কেন্দ্র করে বর্তমানে বিতর্কের কেন্দ্রবিন্দুতে উত্তরপ্রদেশের বেনেট বিশ্ববিদ্যালয়। যে কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার আগে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের পড়ুয়াদের অভিভাবকদের অঙ্গীকরপত্র বা মুচলেকায় স্বাক্ষর করানোর ঘটনা সত্যিই বিরল, এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.