রাষ্ট্রপতির সফর সঙ্গী দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh), আফ্রিকা সফরে যাচ্ছেন মেদিনীপুরের সাংসদ

Home কলকাতা রাষ্ট্রপতির সফর সঙ্গী দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh), আফ্রিকা সফরে যাচ্ছেন মেদিনীপুরের সাংসদ
রাষ্ট্রপতির সফর সঙ্গী দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh), আফ্রিকা সফরে যাচ্ছেন মেদিনীপুরের সাংসদ

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের (Ramnath Kovind) সফরে এবার তাঁর সঙ্গী হতে চলেছেন দিলীপ ঘোষ। তবে এই প্রথমবার নয়। বরং এর আগেও একবার কোবিন্দের সঙ্গে বিদেশ সফরে গিয়েছিলেন মেদিনীপুরের সাংসদ। সে প্রায় বছর তিনেক আগের ঘটনা। সেবারও আফ্রিকা ভ্রমণে রাষ্ট্রপতির সফরসঙ্গী হয়েছিলেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি দিলীপবাবু (Dilip Ghosh)। আর এতদিন বাদে ফের তাঁর নাম উঠে এল এই তালিকায়। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, আগামীকাল অর্থাৎ ২ মার্চ থেকে শুরু হতে চলেছে তাঁদের সফর। ২০১৯ সালের পর আবার এই বছর বিদেশ সফরে কোবিন্দের সঙ্গ দেবেন তিনি।  আগামী ২ মার্চ থেকে শুরু হওয়া এই সফর চলবে ১১ দিন পর্যন্ত। তবে রামনাথ কোবিন্দের (Ramnath Kovind) সঙ্গে এই বিদেশ সফরে দিলীপ ঘোষ ছাড়াও সঙ্গে থাকবেন আরও বেশ কয়েকজন। এমনটাই জানা যাচ্ছে সূত্রের তরফে। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের অগাস্ট মাসে আফ্রিকার তিনটি দেশে সফর করেন রাষ্ট্রপতি। সেই সময়ও রাষ্ট্রপতির (President Ram Nath Kovind) সফরে সঙ্গী হয়েছিলেন বাংলার এই বিজেপি সাংসদ। সেই বার আফ্রিকার বেনিন, গাম্বিয়া ও গিনিয়াতে আয়োজিত হওয়া একাধিক কর্মসূচিতে কোবিন্দের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন দিলীপও (Dilip Ghosh)।

BJP MP Dilip Ghosh will visit africa with President Ramnath Kovind | Sangbad Pratidin

প্রসঙ্গত, বিজেপি’র সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার আগে বহুদিন পর্যন্ত সঙ্ঘ প্রচারক হিসেবে কাজ করেছিলেন দিলীপ ঘোষ। এমনকী এরপর আন্দামান নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে আরএসএস- এর বিশেষ দায়িত্ব পালনও করেছিলেন তিনি। পরে ২০১৫ সালে বাংলায় বিজেপির রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব এসে জোটে তাঁর কাঁধে। এরপর থেকেই ধীরে ধীরে একের পর এক সিঁড়িতে পা রেখে উত্থান হয় তাঁর (Dilip Ghosh)। ২০১৬ সালে খড়গপুর সদর কেন্দ্র থেকে বিধানসভা নির্বাচনে দাঁড়ান তিনি। প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জ্ঞান সিং সোহনপাল। সেই বার ভোটে জ্ঞান সিংকে পরাজিত করেন দিলীপ ঘোষ। আর সেবারই প্রথমবারের জন্য বিধায়ক নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ফের উত্থান। ২০১৯ সালে মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে জয়ী হন দিলীপ ঘোষ। বহুদিন পর্যন্ত রাজ্যে বিজেপি সভাপতি’র দায়িত্ব সামলেছিলেন তিনি। তবে ২০২১ সালে তাঁকে সরিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয় সুকান্ত মজুমদারকে। এর আগে তিনি রাষ্ট্রপতির (President of India) সঙ্গে আমেরিকা সফরেও একবার গিয়েছিলেন। আর এবার তিনি দ্বিতীয়বারের জন্য যাচ্ছেন এই আফ্রিকা সফরে।

President Ram Nath Kovind departs for official seven-day visit to Africa; MoS Pratap Chandra Sarangi, MP Dilip Ghosh accompany-India News , Firstpost

প্রসঙ্গত, বিগত বেশ কয়েকমাস ধরেই বদলে গিয়েছে রাজ্য বিজেপির সমীকরণ। আর সেই বদলের জেরে আচমকাই ‘স্পটলাইট’ থেকে বেশ কিছুটা দূরে সরে গিয়েছেন দিলীপবাবু। যেসময় রাজ্য বিজেপির মাথায় ছিলেন তিনি, সেই সময়ই লোকসভা নির্বাচনে বিপুল সাফল্য লাভ করে বাংলার গেরুয়া শিবির। এরপর আসে বিধানসভা নির্বাচনের পালা। সেখানেও ২০০ আসন জয়ের স্বপ্ন দেখে বিজেপি। দলের তরফে এমন কানাঘুষো শোনা যায় যে, রাজ্যের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হতে চলেছেন দিলীপ ঘোষ। কিন্তু সেই স্বপ্নে জল ঢেলে দিয়ে মাত্র ৭৭টি আসন নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় পদ্ম শিবিরকে। দিলীপের (Dilip Ghosh) মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্নও অধরা থেকে যায়। এরপরই গদিচ্যুতও হন দিলীপ ঘোষ। বিজেপির রাজ্য সভাপতির পদ থেকে তাঁকে সরিয়ে দিয়ে সেই জায়গায় আনা হয় বালুরঘাটের সাংসদ সুকান্ত মজুমদারকে। আর তারপর থেকেই দলের সংগঠন নিয়ে দলের অভ্যন্তরে অসন্তোষ দেখা দেয়। সেই সময় সেই অসন্তোষ মেটাতে আসরে নামেন সংঘ সভাপতি মোহন ভাগবত। মোহনের সঙ্গে এই নিয়ে বৈঠকও করেন দিলীপ ঘোষ। কানাঘুষো শোনা যায় যে, খড়গপুরে তাঁর নিজের এলাকার বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গেও তাঁর বনিবনা হচ্ছে না। একের পর এক দলীয় নেতার সঙ্গে মতান্তরের খবর শোনা যায় বিভিন্ন দিক থেকে।

Bengal BJP chief passes diktat on movement of MLAs, raises question | Kolkata - Hindustan Times

এককালে সংঘ প্রচারক থেকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি হওয়া দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh) অচিরেই নিজের জায়গা হারাতে শুরু করেন। যদিও এখনও দলের সর্বভারতীয় সহসভাপতি পদে আসীন রয়েছেন তিনি। কিন্তু এই পদকে বিজেপিতে কেবলমাত্র ‘আলঙ্কারিক’ বলেই মনে করেন ওয়াকিবহাল মহল এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। বহুদিন ধরেই আর তেমন খবরে ছিলেন না দিলীপ। বিজেপির রাজ্য সভাপতি থাকাকালীন বিভিন্ন মন্তব্য করে খবরের শিরোনামে থাকাই রেওয়াজ ছিল তাঁর। কিন্তু তাতেও যেন ইতি পড়ে যায় আচমকা। কখনও তাঁর মুখে শোনা যায় গোরুর দুধে সোনা পাওয়ার তথ্য, কখনও আবার তাঁকে বলতে শোনা যায় সহজপাঠের রচয়িতা বিদ্যাসাগর। কিন্তু ইদানিং সেসবের মাঝেও কার্যত খুঁজে পাওয়া যায় না তাঁকে। এর মাঝেই আচমকা শোনা গেল রাষ্ট্রপতির সঙ্গে তাঁর বিদেশ সফরের খবর। আর তারপর থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছে যে, তাহলে কি রাষ্ট্রপতির (President of India)
সফরসঙ্গী বানিয়ে দল তাঁর গুরুত্ব বাড়াতে চাইছে নাকি কিছুদিনের জন্য রাজ্য রাজনীতি থেকে তাঁকে দূরে সরিয়ে দিতে চাইছে দল। যদিও এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে চাননি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। এদিন সকালে প্রাতঃভ্রমণে বেরিয়ে তিনি কেবল বলেন যে, ‘এর আগেও আমি ওঁর সঙ্গে আফ্রিকার ৩টি দেশে সফরে গিয়েছিলাম। এরজন্য বিভিন্ন চুক্তিও হয়। কোনও দেশের সঙ্গে ব্যবসাইয়িক চুক্তি হয়। আবার কোনও দেশকে অনুদান দেওয়া সহ বিভিন্ন রকমের কাজ থেকে থাকে। মূলত বিদেশনীতি অনুসারে বিদেশি রাষ্ট্রের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক মধুর করার জন্যই এই ভ্রমণের আয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.