তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) হবে পারমানবিক লড়াই: রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী

Home বিদেশ-বিভূঁই তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) হবে পারমানবিক লড়াই: রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী
তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) হবে পারমানবিক লড়াই: রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: এর আগে ‘ফাদার অফ অল বোম্ব’ ব্যবহারের হুমকি দিয়েছিল রাশিয়া৷ এবার রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ পারমানবিক যুদ্ধের কথা বললেন। ল্যাভেরভ বলেছেন, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) হবে পরমাণু অস্ত্রে (nuclear weapon) যা মারাত্মক ধ্বংস সৃষ্টি করবে৷ একই সঙ্গে ল্যাভেরভের চ্যালেঞ্জ জানিয়েছেন যে রাশিয়া ইউক্রেনকে পারমাণবিক অস্ত্র অর্জন করতে দেবে না। ল্যাভরভ বলেছেন যে রাশিয়া অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞার জন্য প্রস্তুত। কিন্তু পশ্চিমের দেশগুলি রাশিয়ার ক্রীড়াবিদ, সাংবাদিক এবং সাংস্কৃতিক সেক্টরের প্রতিনিধিদের টার্গেট করবে বলে আশা করেননি তিনি। ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন বুধবার সপ্তম দিনে প্রবেশ করেছে, কিয়েভ এবং অন্যান্য বড় শহরে আক্রমণ তীব্র করছে রাশিয়া।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রক জানিয়োছে যে তারা ইউক্রেনের নিরাপত্তা পরিষেবায় ব্যবহৃত জিনিসগুলিকে হামলার লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করবে৷ রাশিয়ান বাহিনী তাদের সামরিক অভিযানকে উল্লেখযোগ্যভাবে বৃদ্ধি করেছে। তারা রকেট এবং ভারী কামান দিয়ে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভে বিধ্বংস শুরু করেছে। মঙ্গলবার খারকিভে গোলাগুলিতে নবীন নামে এক ভারতীয় ছাত্রও নিহত হয়েছে। অন্যদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি খারকিভে গোলাগুলিকে ‘যুদ্ধাপরাধ’ বলে অভিহিত করেছেন।

প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন রাশিয়ার পারমাণবিক বাহিনীকে প্রস্তুতি রাখতে বলেছেন৷ ইউক্রেন আক্রমণ নিয়ে পশ্চিমের দেশগুলির সঙ্গে উত্তেজনা নিয়ে উচ্চ সতর্কতা জারি করেছে রাশিয়া। পাশাপাশি মস্কো বারেন্টস সাগরে মহড়া চালিয়েছে। এদিকে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe biden) ইউক্রেনের প্রতি তার সমর্থন জোরদার করেছেন কিন্তু বলেছেন যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সরাসরি রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জড়িত হবে না। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র তার মিত্রদের সঙ্গে ন্যাটো অঞ্চলগুলোকে রক্ষা করবে।

প্রসঙ্গত, ইউক্রেন অভিযোগ করেছে তাদের নাগরিকদের উপর ‘ক্লাস্টার বোমা’ ব্যবহার করছে রাশিয়া। সম্প্রতি আমেরিকাতে ইউক্রেনের রাষ্ট্রদূত এবং মানবাধিকার গোষ্ঠীগুলি রাশিয়ার বিরুদ্ধে ইউক্রেনীয়দের উপর ‘ক্লাস্টার বোমা’ এবং ‘ভ্যাকুয়াম বোমা’ ব্যবহার করার অভিযোগ এনেছে৷ পারমানিক অস্ত্র (nuclear weapon) ব্যবহার নিয়ে আশঙ্কা ঘনীভূত। কিয়েভ এবং আশেপাশের এলাকায় ৭দিন ধরে যুদ্ধ চলছে। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচ সহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা রাশিয়ার এই ব্যবহারের নিন্দা করেছে। মানবাধিকার সংস্থাগুলিও বলেছে যে রাশিয়ান বাহিনী ব্যাপকভাবে নিষিদ্ধ ক্লাস্টার যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার করেছে বলে মনে হচ্ছে। এখন অনেক দেশই পরমাণু শক্তিধর (nuclear weapon countries)

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধকে (Russia-Ukraine War) ঘিরে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের (third world war) আশঙ্কা করছেন অনেকেই। এবার সেই আশঙ্কা ঘৃতাহুতি দিলেন রুশ বিদেশ মন্ত্রী সার্গেই। পুতিনের মন্ত্রিসভার এই সদস্য জানালেন, যদি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) হয়, তবে তা পারমাণবিক যুদ্ধ হবে।

গত সপ্তাহেই ইউক্রেনের বিরুদ্ধে স্পেশ্যাল মিলিটারি অপারেশন শুরুর নির্দেশ দেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। এরপর ইউক্রেনজুড়ে গোলাবর্ষণ শুরু করে রুশ সেনা। একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ এলাকা কার্যত ধ্বংস করে দেওয়া হয়। পশ্চিমের শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর রোষের মুখে পড়েও থামতে নারাজ রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ইতিমধ্যে সেই রুশ ধ্বংসলীলার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে। তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের (third world war) আশঙ্কা ঘনীভূত।

যদিও রুশ প্রেসিডেন্টকে তাঁর কৃতকর্মের জন্য কড়া বার্তা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন (Joe Biden) । তিনি বলেন, পুতিন হয়ত ভাবছেন যুদ্ধক্ষেত্রে জিতছেন, কিন্তু এর জন্য ওঁকে বড় মূল্য চোকাতে হবে। আগামীদিনে কী হবে, এর কোনও ধারনা নেই। আর তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ (third world war) চায় না বিশ্ব।

মঙ্গলবার রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার পরিষদ এবং  নিরস্ত্রীকরণ সম্মেলনে ভিডিও মাধ্যমে দেওয়া বক্তৃতায় রাশিয়ার বিদেশমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

Russian Foreign Minister: World War III Will Involve Nuclear Weapons

অন্যদিকে মঙ্গলবার ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট বলেন, ইউক্রেনে যা ঘটছে তা একটি ট্র্যাজেডি; ইউক্রেনীয়রা জমি, স্বাধীনতা ও নিজেদের জীবনের জন্য লড়াই করছেন। কেউ আমাদের ভাঙতে পারবে না, কারণ আমরা ইউক্রেনীয়।

রাশিয়া ইউক্রেনের শিশুদের লক্ষ্যবস্তু করছে, রুশ হামলায় সোমবার ১৬ শিশু মারা গেছে বলে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বিশেষ অধিবেশনে অভিযোগ করেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট।

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের উদ্দেশে জেলেনস্কি বলেন, প্রমাণ করুন আপনারা আমাদের সঙ্গে আছেন, প্রমাণ করুণ আপনারা প্রকৃত ইউরোপীয়।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর ঘোষণা করেন ভ্লাদিমির পুতিন। এরপর থেকে রুশ বাহিনী দেশটির একের পর এক শহরে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে (Russia-Ukraine War)। বুধবার সপ্তম দিনের মতো যুদ্ধ চলছে।

রাষ্ট্রসংঘের মানবাধিকার নজরদারি কমিটি ইউক্রেনে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। সেখানে রাষ্ট্রসংঘের মানবিক কর্মসূচি আরও বাড়ানো হবে বলেও জানিয়েছেন রাষ্ট্রসংঘের মহাসচিব। শান্তি জন্য বন্দুক নয়, আলোচনার পথ খোলা রাখতে আহ্বান জানান তিনি। অবস্থান ব্যাখ্যা রাশিয়ার রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেছেন, নিদের দেশের অবস্থান ব্যাখ্যা করে বলেছেন, পূর্ব ইউক্রেনের ২টি বিচ্ছিন্ন হওয়া অংশের নিরাপত্তা নিয়ে ভুল ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। প্রসঙ্গত এদিনই রাষ্ট্রসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত ভ্যাসিলি নেবেনজিয়ার কার্যকালের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত ক্যারোলিন শোয়ালগার বলেছেন, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ ব্যর্থ হয়েছে। তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ তাদের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। সেই কারণে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ পরিষদের দায়িত্ব পালনে এগিয়ে আসা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published.