আজ ফল প্রকাশ ১০৮ পুরসভার, তাহেরপুর পুরসভায় ফের জয়ী বামফ্রন্ট (Left Front)

Home রাজ্য আজ ফল প্রকাশ ১০৮ পুরসভার, তাহেরপুর পুরসভায় ফের জয়ী বামফ্রন্ট (Left Front)
আজ ফল প্রকাশ ১০৮ পুরসভার, তাহেরপুর পুরসভায় ফের জয়ী বামফ্রন্ট (Left Front)

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: আজ রাজ্যের ১০৮টি পুরসভার ভোট গণনা। রাজ্যজুড়ে কার্যত সবুজ ঝড়ের মধ্যেও উলটপুরাণ দেখা গেলো নদিয়া জেলার তাহেরপুর পুরসভায়। গতবারের মতো এবারও তাহেরপুর পুরসভা নিজেদের দখলে রাখলো বামফ্রন্ট (Left Front)। সেখানকার ১৩টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১০টি ওয়ার্ডে জয়লাভ করেছে বামেরা। ৩টি ওয়ার্ড রয়েছে তৃণমূলের (TMC) দখলে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ১০৮টি পুরসভায় নির্বাচন হয়েছিল। আজ সেই নির্বাচনেরই ফল প্রকাশিত হচ্ছে। সকাল থেকেই কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছিল স্ট্রংরুমগুলি। গণনাকেন্দ্রে ছিল ত্রিস্তরীয় নিরাপত্তা বলয়। গণনা কেন্দ্রের ২০০ মিটারের মধ্যে জারি করা হয়েছিল ১৪৪ ধারা। গণনাকেন্দ্রের বাইরে প্রথম স্তরে ছিলো লাঠিধারী পুলিস থেকে শুরু করে কমব্যাট ফোর্স। দ্বিতীয় স্তরে প্রবেশ করতে গেলে সঙ্গে শুধুমাত্র সাদা কাগজ ও পেন ছাড়া কিছুই রাখা যাচ্ছিলো না। সংবাদ মাধ্যমের জন্যও আলাদা ব্যবস্থা থাকছে এই দ্বিতীয় বলয়ে। তৃতীয় বলয়ের একপাশে স্ট্রং রুম। এখানে রয়েছে সব ইভিএম। অন্যদিকে তৈরি হয়েছে মূল গণনা কেন্দ্র। এই বলয়ে রাজ্য সরকারের সশস্ত্র পুলিস বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছিল। আজ সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ সমস্ত ইভিএম মেশিনগুলো স্ট্রংরুমের বাইরে আনা হয়। কড়া নিরাপত্তার মধ্যে ইভিএম মেশিনগুলি গণনাকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। কিছুক্ষণ গণনার পরই দেখা যায়, নদিয়ার তাহেরপুর পুরসভার বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে পরপর বিপুল ভোটে এগিয়ে রয়েছেন সিপিআইএম (CPIM) প্রার্থীরা। তখনই পরিষ্কার হয়ে যায়, রাজ্যজুড়ে তৃণমূল কংগ্রেসের ব্যাপক জয়ের মধ্যেও ব্যতিক্রমী হতে চলেছে তাহেরপুর পুরসভার ফলাফল। সেখানে জয়ী হতে চলেছেন বামপন্থীরা।

ভোটের দিন রাজ্যের অন্যান্য পুরসভার মতোই তাহেরপুর পুরসভাতেও তৃণমূলের বিরুদ্ধে ভোট লুঠ করার অভিযোগ করেছিল বামেরা (Left Front)। সিপিআই(এম) এর তরফ থেকে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ করা হয়েছিল, তাহেরপুর পুরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের একটি বুথ বিধানচন্দ্র প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটের দিন বেলা দেড়টা নাগাদ আগ্নেয়াস্ত্র সহ কয়েকজন বহিরাগত দুষ্কৃতী ঢুকে সাধারণ নাগরিকের ভোটদানে বাধা সৃষ্টি করছে। বহিরাগত সেই দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগও ওঠে। যদিও শেষ পর্যন্ত কোনও বড় সমস্যা ছাড়াই সম্পন্ন হয়েছিল তাহেরপুর পুরসভার ভোটদানের প্রক্রিয়া। ফলাফল বেরোতেই স্পষ্ট হয়ে যায়, গতবারের মতো এবারও তাহেরপুর পুরসভা হাতছাড়া হতে চলেছে তৃণমূলের।

১০৮টি পুরসভার ভোটগণনায় তৃণমূলের দখলে রয়েছে ১০৩টি আসন। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে কলকাতা পুরসংস্থার নির্বাচনে এবং চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে বিধাননগর, আসানসোল, চন্দননগর ও শিলিগুড়ির পুরসংস্থার নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছিলো তৃণমূল কংগ্রেস। বুধবার রাজ্যের বাকি ১০৮টি পুরসভাতেও দেখা গেলো একই প্রবণতা। বহু জায়গায় নির্দল প্রার্থীদেরও জিতিয়েছেন মানুষ। এবারের পুরভোটে তৃণমূলের প্রেস্টিজ ফাইট ছিল অধিকারী গড় কাঁথি।তেমনই পূর্ব মেদিনীপুরের কাঁথি পুরসভা ছিল রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছেও সম্মানের লড়াই। গণনার প্রথম থেকেই প্রবণতা বলছিল, কাঁথিতেও ফুটতে চলেছে ঘাসফুল।আর সেই কাঁথি পুরসভাও পুনর্দখল নিশ্চিত করল তৃণমূল। অধিকারীদের নিজের ওয়ার্ডেও মুখ পুড়ল বিজেপির।শিশির-শুভেন্দুদের বাসভবন শান্তিকুঞ্জ যে ওয়ার্ডে অবস্থিত, সেই ১৫ নম্বর ওয়ার্ডেও বিজেপি প্রার্থীকে হারিয়ে মধুর প্রতিশোধ নিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। সর্বশেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী, দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার বারুইপুর পুরসভা, উত্তর চব্বিশ পরগণার বারাসাত পুরসভা, অশোকনগর-কল্যাণগড় পুরসভা, হুগলি জেলার রিষড়া পুরসভায় সহ বহু পুরসভায় জয়লাভ করেছে তৃণমূল। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, এগরা, বেলডাঙা ও চাঁপদানি পুরসভার ফলাফল ত্রিশঙ্কু।

উত্তরবঙ্গে দার্জিলিং পুরসভা গঠন করলো নবগঠিত হামরো পার্টি। সেখানকার ১৮টি ওয়ার্ডে জিতে পুরবোর্ড গড়ছে হামরো পার্টি। অনীত থাপার বিজিপিএম জয়ী হয়েছে আটটি ওয়ার্ডে। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চা জয়ী হয়েছে ৪টি ওয়ার্ডে এবং তৃণমূল প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন ২টি ওয়ার্ডে।

১০৮টি পুরসভার মধ্যে বামফ্রন্টের দখলে ১টি পুরসভা (নদিয়ার তাহেরপুর পুরসভা) ও অন্যান্যদের দখলে রয়েছে ১টি পুরসভা। এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুসারে, তাহেরপুর পুরসভার ১০টি ওয়ার্ডে, কালনা পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, জঙ্গিপুর পুরসভার ৩টি ওয়ার্ডে, শ্রীরামপুর পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, উত্তরপাড়া পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, সোনামুখী পুরসভার ৫টি ওয়ার্ডে, বারাসাত পুরসভার ৩টি ওয়ার্ডে, রাজপুর-সোনারপুর পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, বসিরহাটের ২টি ওয়ার্ডে, হাবড়া পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, জয়নগর -মজলিপুর পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, খড়গপুর পুরসভার ২টি ওয়ার্ডে, ঝাড়গ্রামের ২টি ওয়ার্ডে, তমলুক পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, রামপুরহাটের ১টি ওয়ার্ডে,বাঁশবেড়িয়ার ১টি ওয়ার্ডে, গোবরডাঙা পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, কোচবিহার পুরসভার ২টি ওয়ার্ডে, নিউ ব্যারাকপুর পুরসভার ১টি ওয়ার্ডে, বাদুরিয়ার ১টি ওয়ার্ডে, বেলডাঙার ৩টি ওয়ার্ডে, মধ্যমগ্রামের ৪টি ওয়ার্ডে, ইসলামপুরের ১টি ওয়ার্ডে, গোবরডাঙার ১টি ওয়ার্ডে, বালুরঘাটের ২টি ওয়ার্ডে, উলুবেড়িয়ার ১টি ওয়ার্ডে,অশোকনগরের ২টি ওয়ার্ডে, মেদিনীপুরের ৩টি ওয়ার্ডে, ইংরেজবাজারের ২টি ওয়ার্ডে, উত্তর দমদমের ১টি ওয়ার্ডে, বৈদ্যবাটির ২টি ওয়ার্ডে, গারুলিয়ার ১টি ওয়ার্ডে ও কামারহাটির ১টি ওয়ার্ডে জয়ী হয়েছেন বাম প্রার্থীরা।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের পুরসভা নির্বাচনে রাজ্যজুড়ে সবুজ ঝড়ের মধ্যেও তাহেরপুর পুরসভা দখলে রেখেছিল বামেরা। এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না। রাজ্যের ১০৮টি পুরসভার মধ্যে তাহেরপুর পুরসভা রইল বামেদের দখলেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.