প্রয়াণের এক দশক পর জ্যোতি বসুর বায়োপিক? ইঙ্গিত টলিউড চিত্রনাট্যকারের

Home কলকাতা প্রয়াণের এক দশক পর জ্যোতি বসুর বায়োপিক? ইঙ্গিত টলিউড চিত্রনাট্যকারের
প্রয়াণের এক দশক পর জ্যোতি বসুর বায়োপিক? ইঙ্গিত টলিউড চিত্রনাট্যকারের

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: বাংলা তথা দেশের রাজনীতির ইতিহাসের একটি উজ্জ্বল নাম জ্যোতি বসু। সোমবারই ছিল তাঁর একাদশ মৃত্যুবার্ষিকী। এদিন রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীকে স্মরণ করেছেন অনেকেই। এর ঠিক পরের দিনই জ্যোতি বসুর বায়োপিক তৈরির ইঙ্গিত দিলেন টালিগঞ্জের চিত্রনাট্যকার এন কে সলিল ।

নয়ের দশকের শেষের দিকে বাংলা ছবির জগতে নিজের কেরিয়ার তৈরি করতে আসেন এন কে সলিল। সিনেমার বহু বিখ্যাত সংলাপের পিছনে ছিল তাঁরই কলম। ‘তুলকালাম’, ‘এমএলএ ফাটাকেষ্ট’, ‘চ্যালেঞ্জ’, ‘পাগলু’র মতো ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন তিনি। সেই সলিলই জানিয়ে দিলেন, সুযোগ পেলে জ্যোতি বসুর জীবন কাহিনি নিয়ে চিত্রনাট্য লিখতে চাইবেন তিনি।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরেই সলিল জানান, সুযোগ পেলে তিনি জ্যোতি বসুর বায়োপিকের চিত্রনাট্য লিখতে চান। টলিউডের চিত্রনাট্যকারের বক্তব্য, এখনকার রাজনীতিবিদদের সম্পর্কে অনেক কিছুই জানা যায়। তাই যাঁর সম্পর্কে খুব বেশি জানা নেই, তাঁর জীবন কাহিনি নিয়েই চিত্রনাট্য লিখতে চান।

দীর্ঘ সময় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন জ্যোতি বসু। বাংলার রাজনীতির কয়েক দশক দাপট ছিল জ্যোতি বসুর। তাঁর জীবন কাহিনীতে এমন অনেক অজানা তথ্য রয়েছে, যা ছবিতে ধরলে জ্যোতি বসুর সামগ্রিক ব্যক্তিত্বের প্রতিফলন ঘটাবে বলেই ধারণা সলিলের। বাংলার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর ভূমিকায় কাকে দেখা যেতে পারে বা কাকে দেখতে চান তিনি, সে সম্পর্কে অবশ্য কিছু জানাননি সলিল।

১৯৯৮ সালে ‘আমি সেই মেয়ে’ সিনেমার চিত্রনাট্য লিখেছিলেন এন কে সলিল। অভিনেতা হিসেবে তাঁর বিশেষ পছন্দের মিঠুন চক্রবর্তী এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। এই দুই তারকার জন্য একাধিক জনপ্রিয় সংলাপ লিখেছেন তিনি। এবার সুযোগ পেলে বাংলার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর জীবনের কাহিনি নিয়ে চিত্রনাট্য লিখতে চান।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.