চব্বিশের সলতে পাকানোর পর্ব!অখিলেশের দূত হয়ে কালীঘাটে বাম আমলের মন্ত্রী কিরন্ময়

Home কলকাতা চব্বিশের সলতে পাকানোর পর্ব!অখিলেশের দূত হয়ে কালীঘাটে বাম আমলের মন্ত্রী কিরন্ময়
চব্বিশের সলতে পাকানোর পর্ব!অখিলেশের দূত হয়ে কালীঘাটে বাম আমলের মন্ত্রী কিরন্ময়

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: উত্তর প্রদেশে বিধানসভা ভোটকে সামনে রেখেই ২০২৪ লোকসভা ভোটের তৎপরচতা শুরু করল বিরোধী জোট।সেই আবহেই মঙ্গলবার কালীঘাটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে আসছেন মুলায়ম-অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির বর্ষীয়া নেতা কিরণময় নন্দ।উল্লেখ্য কিরন্ময় নন্দ দীর্ঘদিনএ রাজ্যে বাম জমানায় মৎস্যমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছেন।

উত্তরপ্রদেশ সহ পাঁচ রাজ্যে ভোটের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে নিঃসন্দেহে সপা নেতার তৃণমূল সুপ্রিমোর সঙ্গে সাক্ষাৎ অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। কথায় বলে দিল্লির দরবারের দরজা খোলে নাকি উত্তরপ্রদেশের পথেই। সেই হিসেবে সম্প্রতি অখিলেশ যাদবের মাস্টারস্ট্রোকে নিজ রাজ্যেই বেশ কিছুটা ব্যাকফুটে বিজেপি। গত  ৮-১০ দিনে রাজ্যের তিন দলিত মন্ত্রী সরকার থেকে পদত্যাগ করেছেন। গেরুয়া শিবির ছেড়েছেন বেশ কয়েকজন বিধায়কও।দলত্যাগীরা প্রায় সকলেই এখন অখিলেশের স্মরণে।  এই প্রেক্ষিতে হাত শক্ত হওয়া অখিলেশের, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে দূত পাঠানোর তাৎপর্য সহজেই অনুমেয়।

এদিকে সম্ভাব্য সাক্ষাৎ নিয়ে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে, যোগী রাজ্যের ভোটে ঘাসফুল প্রার্থী দেবে না। বরং তাদের পূর্ণ সমর্থন থাকবে অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টির প্রতি। অখিলেশের দূত এবং এ রাজ্যের প্রাক্তন মৎসমন্ত্রী কিরণময় নন্দের সঙ্গে সাক্ষাতের পর সে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হতে পারে।

প্রসঙ্গত ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের সময় সপা নেত্রী জয়া বচ্চন এসেছিলেন রাজ্যে তৃণমূলের হয়ে প্রচারে এসেছিলেন। তৃণমূলের সমর্থনে প্রচার করেছিলেন কিরণময় নন্দও। কিরন্ময় প্রচার করেছিলেন নন্দীগ্রামে। অর্থাৎ বাংলার ভোটের সময় সমাজবাদী পার্টি তৃণমূলের প্রতি তাদের সমর্থন স্পষ্ট করেছিল দলের নেতৃত্বকে পাঠিয়ে। এবার তারই পাল্টা ছবি দেখা যেতে পারে।

আগামী ১০ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে উত্তর প্রদেশ নির্বাচন৷ সশরীরে উত্তর প্রদেশ হাজির না হলেও অখিলেশ চান সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে ভার্চুয়ালি প্রচার করুন মমতা৷ এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতেই গলের সর্বভারতীয় সহ সভাপতি কিরণময় নন্দকে কলকাতায় পাঠিয়েছেন অখিলেশ৷ কালীঘাটে বিকেলেই এই বৈঠক হওয়ার কথা। উত্তর প্রদেশ ভোটে বিজেপিকে হারাতে মরিয়া সমাজবাদী পার্টি। সেই লড়াইয়ে তৃণমূলের পাশে থাকার বার্তাই এদিনের বৈঠকের পর উঠে আসবে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। বৈঠক শেষে দু’দলের যৌথ বিবৃতির অপেক্ষায় রাজনৈতিক মহল।

কিরণময় নন্দের বক্তব্য, ‘মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিঃসন্দেহে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে একজন৷ বিজেপি-র বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য তাঁর কাছে শক্তিশালী সংগঠন রয়েছে৷ গোটা দেশ দেখেছে কীভাবে বিজেপি-কে তিনি পরাজিত করে ক্ষমতা ধরে রেখেছেন। সেই কারণেই আমরা চাই উত্তর প্রদেশ নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাদের হয়ে ভার্চুয়ালি প্রচার করুন৷ করোনা অতিমারির কারণেই প্রাথমিক ভাবে আমরা ভার্চুয়াল প্রচারের কথাই ভেবেছি৷’

যদিও সমাজবাদী পার্টি নেতা কিরণময় নন্দের কালীঘাটে আসার খবরে তীব্র কটাক্ষ করেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি দিলীপ ঘোষ। দিলীপ ঘোষের কথায়,

‘অখিলেশের হয়তো মনে হচ্ছে অন্যের সমর্থন লাগবে। না হলে অবস্থা খারাপ হয়ে যাবে। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গিয়ে উত্তর প্রদেশে গিয়ে কী সাহায্য করতে পারবেন? শিবসেনাকে কী সাহায্য করতে পারবেন? গোয়াতে যে অবস্থা হয়েছে, একই হবে। ২০১৯ সালের নির্বাচনের আগে ধর্মতলায় এসে সবাই হাত উঁচু করে দাঁড়িয়ে ছিলেন ব্রিগেডে, ফল হয়েছিল এখানে বিজেপির ১৮, সারা দেশে ৩০৩। হয়েছিল এখানে। বিরোধীদের কোনও বিশ্বাসযোগ্যতা নেই।বিজেপি নিশ্চিতভাবে উত্তর প্রদেশে ক্ষমতায় আসবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.