ইউক্রেনের পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) কাল! দেশে ফিরতে মূল্য চোকাতে হচ্ছে পড়ুয়াদের

Home দেশের মাটি ইউক্রেনের পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) কাল! দেশে ফিরতে মূল্য চোকাতে হচ্ছে পড়ুয়াদের
ইউক্রেনের পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) কাল! দেশে ফিরতে মূল্য চোকাতে হচ্ছে পড়ুয়াদের

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: রাশিয়ার আগ্রাসনে ধ্বংসের মুখে ইউক্রেন। সেখানে পড়তে যাওয়া কাল (Ukraine to study) ! যুদ্ধভূমি থেকে নিজের দেশের নাগরিরকদের ফিরিয়ে আনতে মরিয়া ভারত সরকার। বিশেষ করে সেখানে রয়েছেন ভারতীয় পড়ুয়ারা (Indian student)। সেখান থেকে দেশে ফিরতে তাঁদের করুণ অভিজ্ঞতা হচ্ছে। অভিযোগ, অন্য দেশের নাগরিকদের ফেরাতে অগ্রাধিকার দিচ্ছে ইউক্রেন। ভারতীয় ছাত্রদের নাকি ইউক্রেন পুলিসের হাতে মার খেতে হয়েছে।

দেশে ফিরেছেন এমন অনেক ইউক্রেনে পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) নাগরিক এখনও আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন। তাঁদের করুণ অভিজ্ঞতা এখনও তাঁদের তাড়িয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে। দেশে ফিরে অনেক পড়ুয়া জানাচ্ছেন, ইউক্রেন পুলিসের হাতে তাঁদের মার খেতে হয়েছে। রেলস্টেশনে সেনার হাতে মার খান তাঁরা।

ভারতে ফেরার পর পড়ুয়ারা (Indian student) জানিয়েছেন, অনেক আধিকারিক মদ্যপ অবস্থায় ছিলেন। তাঁরা নাকি ঘুষও চেয়েছেন। অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে অন্য দেশের নাগরিকদের আগে ট্রেনে উঠতে দেওয়া হয়। ভারতীয়রা বঞ্চনার শিকার। দেশে ফিরে তাঁরা এই দাবিতে সরব। আধিকারিকরা নাকি তাঁদের কাছে ১০০ ডলার করে ঘুষ চান।

এই যুদ্ধের আবহে রাশিয়া চাঞ্চল্যকর দাবি করে। ইউক্রেনে পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) ভারতীয়দের নাকি পণবন্দি করে রাখা হয়েছে। যদিও সেই দাবি ওড়ায় নয়াদিল্লি। রাশিয়া ইউক্রেন (Ukraine) যুদ্ধের (Russia-ukraine war) প্রভাব মারাত্মক।

বৃহস্পতিবার ভারতীয় (indian) বিদেশ মন্ত্রকের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘ইউক্রনের ভারতীয় দূতাবাস সেখানকার ভারতীয় (Indian) নাগরিকদের সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রেখে চলেছে। ইউক্রেনে পড়তে যাওয়া (Ukraine to study) অনেক ভারতীয় খারকিভ শহর ছেড়ে চলে গিয়েছেন। তবে কাউকে বন্দি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়নি।’ ভায়তীয় পড়ুয়াদের দেশে ফেরানোর বিষয়ে ইউক্রেন সরকারের উদ্যোগের প্রশংসাও করা হয়েছে ওই বিবৃতিতে।

ইউক্রেনের ভারতীয় দূতাবাস কর্তৃপক্ষের তরফে পড়ুয়াদের পণবন্দি করার খবরের সত্যতা যাচাই করে কোনও তথ্যপ্রমাণ মেলেনি বলেও ওই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অরিন্দম বাগচী ওই বিবৃতি তাঁর সরকারি টুইটারে পোস্ট করে লিখেছেন, ইউক্রেনে পড়তে যাওয়া ভারতীয় পড়ুয়াদের (Ukraine to study) পণবন্দি করার খবর নিয়ে সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে আমাদের প্রতিক্রিয়া।

রাশিয়ার তরফে ইউক্রেন সেনার বিরুদ্ধে ভারতীয় পড়ুয়াদের (Ukraine to study) পণবন্দি করার অভিযোগ তোলা হয়। দিল্লির রুশ দূতাবাসের টুইটারে লেখা হয়, ‘সাম্প্রতিক তথ্য অনুযায়ী, ইউক্রেনের নিরাপত্তা বাহিনী এই ছাত্রছাত্রীদের পণবন্দি করেছে এবং তাঁদের মানবঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। যে কোনও উপায়ে তাঁদের রাশিয়া যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। এর সম্পূর্ণ দায় কিভের।’

রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক দাবি করে, যে সব ভারতীয় পড়ুয়া ইউক্রেন ছেড়ে রাশিয়ায় যেতে চাইছেন, তাঁদের খারকিভে আটকে রাখা হয়েছে। রাশিয়ায় পৌঁছতে পারলেই তাঁদের বাড়ি ফেরানোর ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানায় ভ্লাদিমির পুতিন সরকার। বৃহস্পতিবার ভারতীয় বিদেশ মন্ত্রক জানিয়েছে, ইউক্রেনে যুদ্ধ পরিস্থিতিতে আটকে পড়া ভারতীয়দের ফেরাতে রাশিয়া, রোমানিয়া, পোল্যান্ড, হাঙ্গেরি, স্লোভাকিয়া এবং মলডোভার সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রাখা হচ্ছে।

রাশিয়ার তরফে আরও বলা হয়েছে যে এই ছাত্রছাত্রীদের মানব ঢাল হিসাবে ব্যবহার করা হচ্ছে এবং রাশিয়া এই ছাত্রছাত্রীদের ‘জরুরী ভিত্তিতে সরিয়ে নেওয়া’ কাজ সংগঠিত করার চেষ্টা করছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে একটি টেলিফোন কথোপকথনের পর জারি করা এক রিডআউটে রাশিয়ার তরফে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

রাশিয়া এবং ইউক্রেনের  মধ্যে চলতে থাকা সংঘর্ষে কিছুদিন আগেই এক ভারতীয় ছাত্র প্রাণ হারিয়েছেন। শুক্রবার ইউক্রেনের রাজধানী শহর কিয়েভে গুলিবিদ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন এক ভারতীয় ছাত্র। সেখানে পড়তে যান বহু ভারতীয় ছাত্র।  

একটি কথোপকথনে, বেসামরিক বিমান চলাচল মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী (MoS) জেনারেল ভি কে সিং বৃহস্পতিবার এই তথ্য জানিয়েছেন।

জেনারেল সিং বলেন, ইউক্রেন পাঠরত একজন ছাত্রকে গুলি করা হয়েছে বলে জানা গেছে এবং তাঁকে অবিলম্বে কিয়েভের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, ভারতীয় দূতাবাস আগে অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে জানিয়ে দিয়েছিল যে সকলের কিয়েভ ছেড়ে চলে যাওয়া উচিত। যুদ্ধের ক্ষেত্রে, বন্দুকের বুলেট কারও ধর্ম এবং দেশের দিকে তাকায় না।ইউক্রেন থেকে ভারতীয়দের সরিয়ে আনার প্রক্রিয়া এখনও চলছে। এখনও সেখানে আটকে প্রায় ১০০০ ভারতীয়। অন্তত ১,০০০ ভারতীয় নাগরিক যাদের মধ্যে ইউক্রেনের সুমিতে ৭০০ জন এবং খারকিভে ৩০০ জন এখনও আতকে রয়েছেন।

সুমি স্টেট ইউনিভার্সিটিতে আটকে পড়া ভারতীয় মেডিকেল ছাত্ররা শুক্রবার সাহায্যের জন্য একটি মরিয়া আবেদন জানিয়ে বলেছিল যে তাঁরা ৮০০-৯০০ জন তাঁদের হোস্টেলে খাবার এবং জল ছাড়াই আটকে রয়েছেন এবং বাইরে যুদ্ধ হচ্ছে, গোলাগুলি চলছে  এবং সর্বোপরি তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে। এর মধ্যেই ভারতীয়দের দেশে ফিরতে তিক্ত অভিজ্ঞতার প্রসঙ্গ সামনে এল। মোদী সরকার এখন পদক্ষেপ নেন, সেটাই দেখার।

Leave a Reply

Your email address will not be published.