‘আমার পক্ষে যদি ওর জন্য গান গাওয়া সম্ভব হত!’, শাহরুখের এক্সপ্রেশন মুগ্ধ করেছিল লতাদিদিকে

Home জলসাঘর ‘আমার পক্ষে যদি ওর জন্য গান গাওয়া সম্ভব হত!’, শাহরুখের এক্সপ্রেশন মুগ্ধ করেছিল লতাদিদিকে
‘আমার পক্ষে যদি ওর জন্য গান গাওয়া সম্ভব হত!’, শাহরুখের এক্সপ্রেশন মুগ্ধ করেছিল লতাদিদিকে

বঙ্গভূমি লাইভ ডেস্ক: ৬ ফেব্রুয়ারি। ভারতীয় সঙ্গীত দুনিয়ায় নক্ষত্রপতন। চলে গেছেন সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকর। তাঁকে শেষবারের মতো শ্রদ্ধা জানাতে মুম্বইয়ের শিবাজী পার্কে হাজারো মানুষের ভিড়ে উপস্থিত বিভিন্ন ক্ষেত্রের খ্যাতনামা ব্যক্তিবর্গ। রবিবার শিবাজি পার্কে ম্যানেজার পূজা দাদলানির সঙ্গে সুরসম্রাজ্ঞীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হন শাহরুখ খান।

আরিয়ান কাণ্ডের পর, জনসমক্ষে বিশেষ দেখা মেলেনি শাহরুখ খানের। তাই লতা মঙ্গেশকরের শেষকৃত্যেও তিনি যে উপস্থিত থাকবেন তা অনেকেরই ভাবনার বাইরে ছিল। কিন্তু এদিন শিবাজি পার্কে উপস্থিত হয়েছিলেন শাহরুখ।

ব্যক্তিগত জীবনে খুবই ধার্মিক শাহরুখ খান। সেদিনও নিজের ধর্মীয় আচার মেনেই তাঁর লতাদিদিকে শেষশ্রদ্ধা জানান শাহরুখ। দেখা যায়, লতা মঙ্গেশকরের মরদেহের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি আল্লার কাছে দোয়া করছেন আর ম্যানেজার পূজা জোড়হাতে সুর সম্রাজ্ঞীকে প্রণাম করছেন।

দোয়া করার পর শাহরুখ মাস্ক নামিয়ে কিছু করতে দেখা যায়। মুসলিম প্রথা অনুযায়ী কোনও আপনজনের মৃত্যু হলে তাঁরা ঐ মৃত ব্যক্তির জন্য দোয়া করেন, কোরান থেকে আয়াত পাঠ করেন ও আত্মার শান্তি কামনা করেন। আচার হিসাবে ফুঁ দেন তাঁরা। সেই ধর্মীয় আচারই লতার জন্য পালন করেন শাহরুখ খান। কিন্তু এই নিয়ম সম্পর্কে না জেনেই তাঁর দিকে ধেয়ে আসে কুমন্তব্যের ঝড়। বিদ্বেষীরা দাবি তোলেন শাহরুখ নাকি থুতু ছিটিয়েছেন। শাহরুখের মুসলিম আচারের কারণেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয় তুমুল বিতর্ক। এক নেট নাগরিক স্পষ্ট করে কমেন্টে লিখেছেন যে, ‘মুসলিম রীতি অনুযায়ী যখন দোয়া চাওয়া হয়, তখন ফুঁ দেওয়ার রীতি রয়েছে। লতা মঙ্গেশকরের জন্য দোয়া  চাওয়ার সময় তাই ফুঁ দিচ্ছিলেন কিং খান। এটা মুসলিম ধর্মের রীতি। শাহরুখ খান মোটেই থুথু ফেলেননি।’ ‘ভারতরত্ন’ লতার চিরবিদায়ের বিষাদ ভুলে আড়াআড়ি ভাগ হয়ে নেটপাড়া মজে যায় সেই বিতর্কে। একদল উঠে পড়ে প্রমাণ করতে চায়, শাহরুখ লতাজিকে অপমান করেছেন। আর অন্যদল শাহরুখ আর পূজার শ্রদ্ধা জানানোর ছবি শেয়ার করে বলতে থাকেন, ‘লতা মঙ্গেশকর গেয়েছিলেন, ঈশ্বর আল্লা তেরো নাম, সবকো সম্মতি দে ভগবান, হে ঈশ্বর ইয়া আল্লা এ পুকার শুন লে । তাঁর গাওয়া সেইগানই যেন সার্থকতা পাচ্ছে শাহরুখের হাত ধরে।’ অন্য এক নেটিজেন লিখেছেন, ‘লতার জন্যই হয়তো এই ভারতের দেখা মেলা সম্ভব হল।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় নখ-দন্ত বার করে এই অবাধ আক্রমণে একটা কথা স্প্ষ্ট পরধর্ম সহিষ্ণুতা ভারতের ধর্ম হলেও, একে অন্যের ধর্মাচরণ সম্পর্কে প্রায় কিছুই জানিনা। আরও একটা বিষয় স্পষ্ট, কতটা গভীর সম্মান ও শ্রদ্ধাবোধ থাকলে, এক শিল্পীর বিদায়বেলায় আরেকজন ছুটে আসেন, সে সম্পর্কে অজ্ঞতা। ঠিক যেমন শিল্পী হিসেবে পারষ্পরিক সম্মান এবং শ্রদ্ধা ও স্নেহের সম্পর্কে জড়িয়ে ছিলেন লতা-শাহরুখ।

শাহরুখের কেরিয়ারের সুপারহিট ছবি দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে থেকে বীর জারা, প্রায় সব ছবিতেই লতা মঙ্গেশকর গান গেয়েছেন, সেই প্রতিটি গানই সুপারহিট। কখনও শাহরুখের নায়িকা, কখনও বা মা, লতার কণ্ঠ ছুঁয়ে গেছে সেলুলয়েডের নায়ককে। এই কোকিলকণ্ঠের প্রতি শাহরুখের এতটাই মুগ্ধতা ছিল যে বারবারই বলেছেন, ‘আমার জীবনের সবচেয়ে বড় আক্ষেপ, লতাজি আমার জন্য কোনওদিন গাইতে পারবেন না।’

জনপ্রিয় লেখিকা নসরীন মুন্নি কবীরের লেখা বই, লতা মঙ্গেশকর, ইন হার ওন ভয়েস-এ শাহরুখের এই আক্ষেপের প্রতিক্রিয়ায় লতা বলেছিলেন, ‘ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করতে শাহরুখের দক্ষতা অতুলনীয়। ডর  আর বাজিগর ছবিতে ভিলেনের চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয়। আবার সেই শাহরুখই দিলওয়ালে দুলহনিয়া লে যায়েঙ্গে ছবিতে রোমান্টিক নায়কের ধারণাটাই বদলে দিতে বাধ্য করেছিলেন। দিলীপ কুমারের সঙ্গে শাহরুখের তুলনা করা হয়। তিনিও একবার এইরকম ইচ্ছের কথা বলেছিলেন। সত্যিই মনে হয়, আমার পক্ষে যদি শাহরুখের জন্য গান গাওয়া সম্ভব হত! গানের প্রতিটি কথার সঙ্গে ওর এক্সপ্রেশনে একেবারে নিখুঁত।’

অতি সম্প্রতি মাদক মামলায় আরিনায় খানের গ্রেপ্তারির পর, চিত্র সমালোচক সুভাষ কে ঝা-র সঙ্গে শাহরুখের মনের অবস্থা নিয়ে কথা হয় লতা মঙ্গেশকরের। তখন নবতিপর শিল্পী বলেন, ‘তখন ছিল দূরদর্শনের যুগ। ফৌজি নামের ধারাবাহিকে শাহরুখকে প্রথম দেখি। তখনই  মনে হয়েছিল ছেলেটার ভিতর বিশেষ কিছু একটা আছে। এরপর উর্মিলা মাতন্ডকরের সঙ্গে শাহরুখকে দেখি চমৎকার ছবিতে। তখন ও ছিল নেহাত ছেলেমানুষ, ছবির চরিত্রও ছিল একটি নিষ্পাপ, মিষ্টি ছেলের। তারপর দিওয়ানা আর বাজিগর। নেগেটিভ রোলে শাহরুখের পারফরম্যান্স প্রমাণ করে যে কোনও চরিত্রে ও বাজিমাত করতে পারে। ’

সুর-তাল-লয়ের সম্রাজ্ঞী লতা, শাহরুখকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়ে আরও বলেন, ‘আমি অনেকবারই শাহরুখকে বলতে শুনেছি,এর নাকি রিদম(তাল) আর নাচ সম্পর্কে বিশেষ জ্ঞান

নেই। পরে আমি ওকে দিলওয়ালে দুলহনিয়া লে যায়েঙ্গে- রুক জা ও দিল দিওয়ানে- এবং পরে দিল সে ছবির গান ছৈঁয়া ছৈঁয়া গানের সঙ্গে নাচতে দেখি। ওর প্রত্যেকটা মুভমেন্ট ছিল স্বপ্নের মতো।’ যাঁরা কথায় কথায় নেটদুনিয়ায় ট্রোল করেন, তাঁদের জেনে রাখা উচিত এমনই ছিল শাহরুখ খানের সঙ্গে তাঁর লতাদিদির সম্পর্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.